কুকুর খুজবে করোনা রোগী

নিউজ ডেস্কঃ

করোনা রোগীদের শনাক্ত করতে দেশে দেশে নানা পদ্ধতি অবলম্বন করা হচ্ছে। এমনই পরিস্থিতি তে মার্কিন গবেষকরা অভিনব উপায়ে করোনা রোগী চিহ্নিত করার চেষ্টা চালাচ্ছেন। তাদের যুক্তি, কুকুর নিজের প্রখর ঘ্রাণশক্তি কাজে লাগিয়ে যেভাবে অপরাধী শনাক্ত করে, তেমনি মানুষের দেহে করোনার সংক্রমণও শনাক্ত করবে।

এই বিষয়ে গবেষণা চলছে, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের পেনসিলভানিয়া ভেটেরিনারি গবেষকরা। কুকুরকে প্রশিক্ষণ দেওয়ার চেষ্টা করছেন বিজ্ঞানীরা। যাতে কুকুরই প্রাথমিকভাবে শনাক্ত করবে করোনায় আক্রান্তকে। তারপর সেই আক্রান্ত ব্যক্তিকে আলাদা করা হবে।

বিজ্ঞানীরা জানিয়েছেন, করোনা সংক্রমণ শনাক্তে আবিষ্কার হয়েছে টেস্টিং কিট। তবে যেভাবে আমেরিকায় এই মহামারি ছড়িয়েছে, তাতে প্রয়োজনের তুলনায় টেস্টিং কিট কম। ফলে, আক্রান্ত ব্যক্তিকে শনাক্তের অভাবে আরও বেশি ছড়িয়ে পড়ছে করোনা।এখন যদি কুকুরকে ট্রেনিং দিয়ে তার ঘ্রাণশক্তি কাজে লাগিয়ে কেউ করোনা আক্রান্ত হয়েছে কিনা, তার শনাক্ত হলেই কিটের জন্য অপেক্ষা করতে হবে না।

পেনসিলভানিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের স্কুল অব ভেটেরিনারি মেডিসিনের (পেন ভেট) গবেষকরা বলছেন, কুকুরকে প্রশিক্ষণ দিয়ে করোনা রোগীদের শনাক্ত করা যেতে পারে। কারণ, কুকুর এর আগে ম্যালেরিয়া, ক্যান্সার, পারকিনসন্স ডিজিজে আক্রান্ত রোগীদের শনাক্ত করার ক্ষেত্রে সফল হয়েছে।

গবেষকরা আরো জানান, ১৯৮০ সালে ক্যান্সার আক্রান্ত রোগী শনাক্তে সফল হয়েছিল প্রশিক্ষিত কুকুর। মূলত, করোনা আক্রান্ত রোগীর শরীরের গন্ধের ব্যাপারে কুকুরকে প্রশিক্ষণ দেওয়া হবে। কারণ শ্বাসতন্ত্রের রোগ সাধারণত মানুষের শরীরের গন্ধ পরিবর্তন করে থাকে।মানুষের রক্ত, লালা, মুত্র কিংবা নিশ্বাসের সঙ্গে নানা ধরণের গন্ধ থাকে। যা ঘ্রাণের মাধ্যমেই আলাদা বা শনাক্ত করা যায়।

মানুষ সাধারণত ৬০ লাখ আলাদা ঘ্রাণ পেয়ে থাকে। আর কুকুর সেক্ষেত্রে শনাক্ত করতে পারে ৩ কোটি ধরণের ঘ্রাণ।গবেষকরা জানান, কুকুরকে এমনভাবে ট্রেনিং দেওয়া, যাতে তারা করোনা রোগী এবং পাশাপাশি করোনা সংক্রমণের প্রাথমিক অবস্থায় থাকা রোগীদেরও চিহ্নিত করতে পারে। ৮টি কুকুরকে প্রশিক্ষণ দেওয়া শুরু হয়েছে। তিন সপ্তাহ তাদের প্রশিক্ষণ চলবে।

  •  
  •  
  •  
  •