ভয়ঙ্কর আকার ধারণ করেছে করোনা, ৪ দিনেই রেকর্ড ২২ হাজার শনাক্ত

corona

নিউজ ডেস্কঃ গত বছরের মার্চে করোনা সংক্রমণ শুরুর পর এক বছরেরও বেশি সময় ধরে মহামারি তাড়া করে ফিরলেও, সম্প্রতি এ ভাইরাস ভয়ঙ্কর আকার ধারণ করেছে। দেশে প্রতিদিন মহামারি করোনাভাইরাসে শনাক্তের নতুন রেকর্ড হচ্ছে। বাড়ছে মৃত্যুর সংখ্যাও।

২৯ মার্চ থেকে প্রতিদিনই শনাক্ত হচ্ছে ৫ হাজারের বেশি রোগী। মাত্র ৪ দিনেই শনাক্ত হন রেকর্ড ২২ হাজারের বেশি। ফলে রোগীর চাপে ভেঙে পড়ার উপক্রম চিকিৎসাব্যবস্থাও। কান পাতলেই ভেসে আসছে হাসপাতাল থেকে হাসপাতালে ছোটাছুটি, আইসিইউ নিয়ে হাহাকার, আর নানা সংকটের কথা।

দেশের প্রায় সব প্রান্তেই বাড়ছে সংক্রমণের তীব্রতা। নমুনা পরীক্ষার বিপরীতে ১০ শতাংশের বেশি শনাক্ত হচ্ছেন, এমন ৩১টি জেলাকে উচ্চ ঝুঁকিপূর্ণ হিসেবে চিহ্নিত করেছে স্বাস্থ্য অধিদফতর। যার মধ্যে শীর্ষস্থানে আছেন যুক্তরাজ্য-প্রবাসী অধ্যুষিত মৌলভীবাজার, শীর্ষ পাঁচে আছে সিলেট।

রোগতত্ত্ব বিশেষজ্ঞরা বলছেন, সরকারের সর্বোচ্চ নীতিনির্ধারণের সাথে জড়িত শীর্ষ দায়িত্বশীল কর্মকর্তা, মন্ত্রী, প্রতিমন্ত্রী, সচিব, সংসদ সদস্য, ব্যবসায়ী, ব্যাংকার, সাংবাদিক, চিকিৎসক ও নার্সসহ সকল শ্রেণি-পেশা নির্বিশেষে কেউই করোনাভাইরাসে আক্রান্ত ও মৃত্যুর কবল থেকে রেহাই পাচ্ছে না।

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, কেবল ১৮ দফা নির্দেশনা দিয়ে সংক্রমণ মোকাবিলা সম্ভব নয়। জোর দিতে হবে আক্রান্ত ব্যক্তিদের ঘিরে ব্যাপক কর্মতৎপরতার ওপর। সেক্ষেত্রে আক্রান্তদের সংস্পর্শে আসা ব্যক্তিদের খুঁজে বের করা এবং মানুষের চলাচল নিয়ন্ত্রণে কার্যকর উদ্যোগের তাগিদ বিশেষজ্ঞদের।

উল্লেখ্য দেশে ২০২০ সালের ৮ মার্চ প্রথম করোনাভাইরাস আক্রান্ত রোগী শনাক্ত হয়। এ ভাইরাসে আক্রান্ত প্রথম রোগীর মৃত্যু হয় এর ঠিক ১০ দিন পর, ১৮ মার্চ। এরপর গতকাল ১ এপ্রিল পর্যন্ত দেশে করোনাভাইরাসে মোট ৬ লাখ ১৭ হাজার ৭৬৪ জন আক্রান্ত হয়েছে। এ পর্যন্ত মৃত্যু হয়েছে ৯ হাজার ১০৫ জনের।

  •  
  •  
  •  
  •