রবিবার, ১ ফেব্রুয়ারি ২০১৫ 
বিশ্ববিদ্যালয় ছাড়া জীবনের ষোল আনাই বৃথা
বিশ্ববিদ্যালয় ছাড়া জীবনের ষোল আনাই বৃথা

তাজবিদুল সিহাব, গণ বিশ্ববিদ্যালয়ঃ কথায় আছে-“বিশ্ববিদ্যালয় ছাড়া জীবনের ষোল আনাই বৃথা।” কথাটার সত্যতা সম্পূর্ণরূপে উপলব্ধি করা যায় একমাত্র বিশ্ববিদ্যালয় জীবনে...

গণ বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রোটিন ইমপ্রিনটেড পলিমারস বিষয়ক সেমিনার অনুষ্ঠিত
গণ বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রোটিন ইমপ্রিনটেড পলিমারস বিষয়ক সেমিনার অনুষ্ঠিত

তাজবিদুল সিহাব, গণ বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিনিধি : সাভারের গণ বিশ্ববিদ্যালয়ে ফার্মেসি বিভাগের উদ্যোগে প্রোটিন ইমপ্রিনটেড পলিমারস অ্যান্ড দেয়ার অ্যাপ্লিকেশন বিষয়ে এক সেমিনার...

পূনরায় বাংলাদেশি শ্রমিক নেবে সৌদি আরব
পূনরায় বাংলাদেশি শ্রমিক নেবে সৌদি আরব

ঢাকা প্রতিনিধি: বাংলাদেশ থেকে শ্রমিক নেওয়ার ওপর গত সাত বছর ধরে চলে আসা নিষেধাজ্ঞা তুলে নিয়েছে সৌদি আরব সরকার। এর...

কুল চাষে স্বাবলম্বী যশোরের শার্শার কৃষকরা
 কুল চাষে স্বাবলম্বী যশোরের শার্শার কৃষকরা

যশোর প্রতিনিধি: বাংলাদেশ কৃষি গবেষণা ইনস্টিটিউটের (বারি) উদ্ভাবিত ছয় জাতের কুল চাষে বাম্পার ফলন ও স্বাবলম্বী হয়েছেন যশোরের শার্শার প্রায় পাঁচ...

পবিপ্রবিতে চরমে বিদ্যুৎ বিভ্রাট

পবিপ্রবি প্রতিনিধিঃ
পটুয়াখালী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে(পবিপ্রবি) দেশের দক্ষিণ অঞ্চলের একমাত্র সর্ববৃহৎ উচ্চশিক্ষা প্রতিষ্ঠান।এ বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রায় ২৬০০জন শিক্ষার্থী এবং ২০০জন শিক্ষক সহ আরও কয়েকশ কর্মকর্তা-কর্মচারী রয়েছেন। বর্তমানে অনক শিক্ষার্থীর পরীক্ষা চলছে এবং বিশ্ববিদ্যালয়ে কয়েকটি গুরুত্বপূর্ন প্রজেক্ট এর কাজ চলছে। পরিতাপের বিষয় হল এ বিশ্ববিদ্যালয়ের জন্য পটুয়াখালী বিদ্যুৎ সরবরাহ কেন্দ্র থেকে নেই আলাদা কোন বিদ্যুৎ লাইন। গত কয়েক দিনের হিসেব অনুযায়ী দেখা গেছে এ লাইনে প্রতি দিনে প্রায় ১০ বারের ও বেশী বিদ্যুৎ যাওয়া-আসা করে যার ফলে প্রায় ১০-১১ ঘন্টা বিদ্যুৎ থাকে না এবং রাত ৮ টা থেকে ১০টা পর্যন্ত কিংবা রাত ১২টার পরও বিদ্যুৎ থাকে না। বিশ্ববিদ্যালয়ে একটি জেনারেটর থাকলেও সেটি ভালভাবে চলছে না এবং রোটেশনের মাধ্যমে বিদ্যুৎ দেয়ায় মাত্র একবার হলগুলোতে বিদ্যুৎ পাওয়া যায়। বিদ্যুতের এমন অবস্থায় শিক্ষার্থীদের পড়ালেখায় চরম ব্যাঘাত ঘটছে এবং শিক্ষকদের প্রজেক্টের কাজ দারণভাবে ব্যাহত হচ্ছে।

মন্তব্য


নিরাপত্তা কোড
রিফ্রেশ