প্রবাসে একুশের চেতনা

নিউজ ডেস্কঃ

নতুন প্রজন্মের মাঝে মাতৃভষার চর্চা, ভাষা আন্দোলনের ইতিহাস এবং মাতৃভাষার ওপর গুরুত্ব আরোপ করে কানাডার ক্যালগেরিতে ‘প্রবাসে একুশের চেতনা’ শীর্ষক এক ভার্চুয়াল আলোচনা অনুষ্ঠিত হয়েছে।

আলবার্টার প্রথম বাংলা অনলাইন পোর্টাল ‘প্রবাস বাংলা ভয়েস’ এর আয়োজনে প্রধান সম্পাদক আহসান রাজীব বুলবুলের সঞ্চালনায় আলোচনায় সভাপতিত্ব করেন বাংলাদেশ কানাডা অ্যাসোসিয়েশন অফ ক্যালগেরির সভাপতি মোহাম্মদ রশিদ রিপন। বিশেষ অতিথি ছিলেন ক্যালগেরির এ বি এম কলেজের প্রেসিডেন্ট মোহাম্মদ আবদুল বাতেন। স্বাগত বক্তব্য রাখেন কলামিস্ট ও সমাজতাত্ত্বিক বিশ্লেষক মো. মাহমুদ হাসান।

আলোচনায় বক্তারা বলেন, ভাষার দাবির মধ্যেই নিহিত ছিল গণতন্ত্র, সাংস্কৃতিক স্বাধীকার জাতিসত্তা সম্পর্কে চেতনার উন্মেষ এবং জাতীয় আত্মনিয়ন্ত্রণের অধিকার অর্জনের সংগ্রামের বীজ ।
বাংলাদেশ কানাডা অ্যাসোসিয়েশন অফ ক্যালগেরির সভাপতি মো. রশিদ রিপন বলেন, যেকোনো জাতির জন্য প্রথম যে জিনিসটি দরকার তা হলো তার মায়ের ভাষা। যার মাধ্যমে আমরা মনের ভাব প্রকাশ করি। আর সেই লক্ষ্যে প্রবাসে মাতৃভাষা চর্চা বৃদ্ধিতে আমরা ইতিমধ্যে বিভিন্ন পদক্ষেপ নিয়েছি।

বিশেষ অতিথি ক্যালগেরির এ বি এম কলেজের প্রেসিডেন্ট মোহাম্মদ আবদুল বাতেন বলেন, একুশ সব অন্যায়, অবিচার আর অত্যাচারের বিরুদ্ধে বিদ্রোহের ন্যায্যতাকে প্রতিষ্ঠিত করেছে। বহু সংগ্রামের মধ্যে দিয়েই একুশের পথ ধরেই আমরা ১৯৭১ সালের মুক্তিযুদ্ধে বাংলাদেশকে স্বাধীন করেছি। একুশের চেতনা, ভাষা আন্দোলনের ভূমিকা এখনো ফুরিয়ে যায়নি। প্রবাসে আমাদের মাতৃভাষার চর্চাকে অব্যাহত রাখতে হবে।

অ্যাসোসিয়েশন অফ প্রফেশনাল ইঞ্জিনিয়ারিং অ্যান্ড জিও সাইন্টিস্ট অফ আলবার্টার ক্যালগেরি শাখার কোষাধ্যক্ষ প্রকৌশলী মোহাম্মদ কাদির বলেন, পাকিস্তান প্রতিষ্ঠার ভ্রান্ত দ্বিজাতিতত্ত্ব বা ধর্মীয় সাম্প্রদায়িকতার বিপরীতে অসাম্প্রদায়িক চেতনা বিস্ফোরিত হয় এই ভাষা আন্দোলনের মধ্য দিয়েই। বাংলাদেশের সকল আন্দোলনের মূলে ছিল এই ভাষা আন্দোলন।

বাংলাদেশ কানাডা অ্যাসোসিয়েশনের সাবেক সভাপতি আবদুল্লা রফিক বলেন, একুশের চেতনা অবিনশ্বর, যা আমাদের বাঙালি জাতিসত্তার অবিচ্ছেদ্য অংশ, যা বাংলা ভাষা ও সংস্কৃতিকে বিশ্বদরবারে তুলে ধরার অনুপ্রেরণা। প্রবাসেও পারিবারিক ও সামাজিক জীবনেও আমাদের মাতৃভাষার চর্চা বাড়াতে হবে। শুরু করতে হবে নিজের পরিবার থেকে এবং অন্য সংস্কৃতিতেও ছড়িয়ে দিতে হবে।

সিলেট অ্যাসোসিয়েশন অফ ক্যালগেরির সভাপতি রূপক দত্ত বলেন, ভাষার প্রশ্নে একুশের আন্দোলন হলেও প্রকৃত প্রস্তাবে তা ছিল চেতনার বিরুদ্ধে প্রথম সম্মিলিত প্রতিবাদ। মাতৃভাষার বিরুদ্ধে পাকিস্তান শাসকগোষ্ঠীর আচরণ বাঙালি জাতি কোনোদিনও ক্ষমা করবে না।

সাবেক ছাত্রনেতা, ট্রাস্টি ও সাবেক সভাপতি বেঙ্গলি অ্যাসোসিয়েশন অফ ক্যালগেরির কিরণ বণিক শংকর বলেন, একুশ মানে চাপিয়ে দেয়া সকল বিষয়ে সর্বদা প্রতিবাদ করা। মহান ভাষা আন্দোলনের যে চেতনায় উদ্বুদ্ধ হয়ে বাঙালি জাতি আজ এতটুকু এগিয়ে এসেছে তা বর্তমান প্রজন্মের কাছে প্রেরণার উৎস হয়ে থাকবে।

স্বাগত বক্তব্যে কলামিস্ট ও সমাজতাত্ত্বিক বিশ্লেষক মো. মাহমুদ হাসান বলেন, প্রবাসে আমাদের পরবর্তী প্রজন্ম যদি বাংলাভাষা আর বাঙালি সংস্কৃতিকে ধারণ করতে ব্যর্থ হয়, তবে একদিন প্রিয় বাংলাদেশের সাথে তাদের সেতু বন্ধনটি হারিয়ে যাবে, যা কোনোভাবেই কাম্য হতে পারে না। তিনি ক্যালগেরিতে একটি শহীদ মিনার নির্মাণসহ বাংলা স্কুলকে আরও অধিক পৃষ্ঠপোষকতার মাধ্যমে একটি আকর্ষণীয় প্রতিষ্ঠানে পরিণত করার আহ্বান জানান।

আলবার্টা বাংলাদেশি ইঞ্জিনিয়ার অ্যাসোসিয়েশন অফ ক্যালগেরির সভাপতি প্রকৌশলী সুব্রত বৈরাগী বলেন, ভাষা আন্দোলন পূর্ব বাংলার বাঙালি এবং বর্তমান বাংলাদেশের মানুষের মৌলিক অধিকার প্রতিষ্ঠা ও বিকাশের পথে এগিয়ে যাওয়ার এবং পরবর্তী যুগের রাজপথ করে দেয় যা ইতিহাসের পাতায় পাতায় উদ্ভাবিত হয়েছে।

  •  
  •  
  •  
  •  
ad0.3

Tags: