কম খরচের ভেন্টিলেটর বানাচ্ছে আফগান কিশোরীরা

নিউজ ডেস্কঃ

আফগানিস্তানে মেয়েদের একটি দল গাড়ির যন্ত্রাংশ দিয়ে কম খরচে ভেন্টিলেটর তৈরির চেষ্টা করছে৷ তাদের এ আবিষ্কার করোনা ভাইরাসের বিরুদ্ধে দেশটির লড়াইকে আরো গতিশীল করবে বলে আশা স্বাস্থ্য কর্মকর্তাদের৷

রোববার পর্যন্ত আফগানিস্তানে প্রায় এক হাজার জনের করোনা ভাইরাস সংক্রমণ শনাক্ত হয়েছে৷ মারা গেছেন ৩০ জন৷ যদিও যুদ্ধবিধ্বস্ত দেশটির প্রকৃত অবস্থা এর থেকে কয়েকগুণ বেশি খারাপ৷ পর্যাপ্ত ‘টেস্টিং কিট’ না থাকায় সেখানে কোভিড-১৯ শনাক্তের পরীক্ষা যথাযথভাবে করা যাচ্ছে না৷

পাঁচ সদস্যের ‘আফগান অল গার্লস রোবট টিম’-এর এই মেয়েদের বয়স ১৪ থেকে ১৭ বছরের মধ্যে৷ যদি তারা যন্ত্রটি সফলভাবে তৈরি করতে পারে এবং সরকারের অনুমোদন পায় তবে মাত্র তিনশ মার্কিন ডলারে সেটি বাজারে ছাড়তে পারবে বলে আশা এই কিশোরীদের৷ বাজারে একটি ভেন্টিলেটরের দাম প্রায় ৩০ হাজার মার্কিন ডলার৷

বৈশ্বিক মহামারী কোভিড-১৯-এর কোনো ওষুধ বা টিকা এখনো আবিষ্কার হয়নি৷ নেই কোনো চিকিৎসাও৷ এই রোগে যেসব গুরুতর শারীরিক জটিলতা দেখা দেয় তার অন্যতম নিউমোনিয়া৷ মারাত্মক নিউমোনিয়ায় প্রায় অকেজো ফুসফুস নিয়ে রোগীর যখন আর শ্বাস নেওয়ার ক্ষমতা থাকে না, তখন ভেন্টিলেটর দিয়ে তাকে বাঁচিয়ে রাখার শেষ চেষ্টা করা হয়৷ ফলে বিশ্বে এখন সবচেয়ে অমূল্য চিকিৎসা যন্ত্র হয়ে উঠেছে এই ভেন্টিলেটর৷ নামকরা সব বড় বড় গাড়ি নির্মাণকারী প্রতিষ্ঠান এখন গাড়ি উৎপাদন করা বাদ দিয়ে ভেন্টিলেটর বানাচ্ছে৷

আফগানিস্তানের একটি প্রযুক্তি কোম্পানি ওই কিশোরীদের ভেন্টিলেটর তৈরিতে অর্থ সহায়তা দিচ্ছে৷ কোম্পানিটির পরিচালক রোয়া মাহবুব বলেন, ‘‘দলটি স্থানীয় স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞ এবং হার্ভার্ড ইউনিভার্সিটির এক দল বিশেষজ্ঞের তত্ত্বাবধানে ম্যাসাচুসেটস ইন্সটিটিউট অব টেকনোলজির একটি নকশার ভিত্তিতে প্রাথমিক যন্ত্র তৈরির কাজ করছে৷’’

অবশ্য কিশোরীদের এই দলটির খবরের শিরোনাম হওয়ার ঘটনা এটাই প্রথম নয়৷ ২০১৭ সালে তারা ওয়াশিংটনে একটি রোবটিক্স প্রতিযোগিতায় অংশ নেওয়ার আমন্ত্রণ পেয়ে যুক্তরাষ্ট্রের ভিসার জন্য আবেদন করেছিল৷ কিন্তু ‍তাদের ভিসা দিতে অস্বীকৃতি জানানো হয়৷ হইচই ‍শুরু হলে খোদ প্রেসিডেন্ট ডনাল্ড ট্রাম্পের হস্তক্ষেপে তারা যুক্তরাষ্ট্র যাওয়ার অনুমতি পেয়েছিল৷

দলের সদস্য ১৭ বছরের সুমায়া ফারুকী এএফপিকে বলেন, ‘‘আমাদের যন্ত্র তৈরিতে সব থেকে জটিল অংশ হচ্ছে সময় ঠিক করা এবং কতটুকু পাম্প করতে হবে তার চাপ নির্ধারণ করা৷ ‍প্রত্যেক রোগীর আলাদা আলাদা মাত্রার অক্সিজেন প্রয়োজন হয়৷ কিভাবে এটা করা যায় সেটা নিয়েই এখন কাজ করছি৷’’

দেশটির প্রায় সাড়ে তিন কোটি মানুষের জন্য মাত্র ৩০০টি ভেন্টিলেটর আছে৷

স্বাস্থ্য কর্মকর্তারা যন্ত্রপ্রকৌশলী ও বিশেষজ্ঞদের কিশোরী দলটিকে এ কাজে সাহায্য করার আহ্বান জানিয়েছেন৷

আফগান স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র বলেন, ‘‘পরিশ্রমী এই মেয়েরা, আমাদের বোনেরা দিনরাত খেটে ভেন্টিলেটর তৈরির চেষ্টা করছে৷ আমাদের উচিত তাদের সাহস ও উৎসাহ দেওয়া৷’’

যেকোনো ধরনের ভেন্টিলেটর বাজারজাত করার আগে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা ও স্থানীয় স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের অনুমতি প্রয়োজন হয়৷

  •  
  •  
  •  
  •