আমির খানের বিরুদ্ধে রাষ্ট্রদ্রোহ মামলা

বিনোদন ডেস্ক:
বলিউড অভিনেতা আমির খানের বিরুদ্ধে রাষ্ট্রদ্রোহের অভিযোগ এনে মামলা করেছেন এক আইনজীবী।

দেশজুড়ে চলমান ‘অসহিষ্ণুতা’ নিয়ে আমির খানের দেওয়া বক্তব্যে রাষ্ট্রদ্রোহ হয়েছে— এমন অভিযোগ এনে বুধবার কানপুরের সেশন আদালতে মনোজ কুমার দিক্ষিত নামের এক আইনজীবী মামলাটি করেন।

আইনজীবী মনোজ জানান, আমির খান ‘ভারতবিরোধী’ বক্তব্যের কারণে তার বিরুদ্ধে রাষ্ট্রদ্রোহের অভিযোগ এনে মামলাটি করা হয়েছে। আদালত মামলাটি গ্রহণ করে আগামী ১ ডিসেম্বর শুনানির দিন ধার্য করেছেন।

তিনি জানান, ভারতীয় দণ্ডবিধির ১২৪ এ (রাষ্ট্রদ্রোহ), ১৫৩ এ (ভিন্ন ভিন্ন ধর্মীয় গোষ্ঠীর মধ্যে শত্রুতা তৈরির চেষ্টা), ১৫৩ বি (দোষারোপকরণ) ও ৫০৫ (জনগণের অনিষ্ট সাধনের উদ্দেশ্যে বিবৃতি দেওয়া) ধারায় আমির খানের বিরুদ্ধে মামলাটি করা হয়।

সোমবার ভারতের রামনাথ গোয়েনকা অ্যাওয়ার্ড প্রদান অনুষ্ঠানে আমির জানান, তার ছবি ‘পিকে’ মুক্তি পাওয়ার পর দেশ ছাড়ার কথা ভেবেছিলেন। তিনি জানান, গত ছয় থেকে আট মাসে ভারতে নিরাপত্তাহীনতা ও ভয়ের সংস্কৃতি বৃদ্ধি পেয়েছে; এ কারণে তিনি আতঙ্কিত।

আমির বলেন, ‘ব্যক্তি হিসেবে, এদেশের নাগরিক হিসেবে, দেশে কী ঘটছে তা আমরা খবরের কাগজে পড়ি, টিভিতে দেখি। এসব দেখে সংশয়ে রয়েছি। সেটা অস্বীকার করবো না।’

কাজ ও মন্তব্যের ক্ষেত্রে বরাবরই হিসেবি আমির বলেন, ‘এসব বিষয়ে কিরণ রাওয়ের (আমিরের স্ত্রী) সঙ্গে যখন কথা হয়, তখন সে স্থায়ীভাবে বিদেশে যাওয়ার পরামর্শ দেয়। কিরণের জন্য এটি অনেক বড় কথা। কিন্তু বাস্তবতা হচ্ছে- সে নিজের সন্তানদের জন্য চিন্তিত। ভবিষ্যতে কী পরিস্থিতি হবে তা নিয়েই তার শঙ্কা।’ আমিরের এই মন্তব্যের পর ভারতের কেন্দ্রীয় সরকারের পক্ষ থেকে এক প্রতিক্রিয়া বলা হয়, তার এই মন্তব্য দেশের সাধারণ মানুষের আবেগকে আঘাত করেছে।

এ বিষয়ে দেশটির সংসদ বিষয়ক মন্ত্রী বেঙ্কাইয়া নাইডু বলেন, ‘দুর্ভাগ্যজনিতভাবে জেনে অথবা না জেনে আমির খান দেশবাসীকে আহত করেছেন। তার মন্তব্যে আমরা যন্ত্রণাবিদ্ধ হয়েছি।’

সূত্র: টাইমস অব ইন্ডিয়া 

Comments

comments