মানিকগঞ্জে কুকুরের কামড়ে অর্ধশতাধিক আহত

dog৫

মানিকগঞ্জ প্রতিনিধি:
মানিকগঞ্জে পাগলা কুকুরের কামড়ে আহত হয়েছে অর্ধশতাধিক ব্যক্তি। শুক্রবার সকাল থেকে দুপুর পর্যন্ত জেলার পেচারকান্দা, বানিয়াজুরি, শহরের বান্দুটিয়া, বেউথা, জয়রা, সেওতা, গঙ্গাধরপট্টি এলাকাসহ ২০/২২টি এলাকায় পাগলা কুকুরের কামড়ে আহতরা মানিকগঞ্জ জেলা হাসপাতালে চিকিৎসা নিয়েছেন।

এক সঙ্গে এত রোগীর চিকিৎসা দিতে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষকে হিমশিমে খেতে হয়েছে। হঠাৎ কুকুর আক্রমণে আতঙ্কিত হয়েছে এলাকার মানুষ।

সকাল সাড়ে নয়টা থেকে জেলা হাসপাতালে চিকিৎসা নিতে আসতে থাকে একে একে আক্রান্তরা। মুহূর্তের মধ্যেই হাসপাতাল চত্বরে ভরে যায় আক্রান্ত মানুষে। এসময় চিৎকার ও আর চেচামেচিতে হিমশিমে পড়ে চিকিৎসকরা। হাসপাতালের জরুরি বিভাগ ছাড়িয়ে চিকিৎসা দিতে হয় হাসপাতালের বাইরের চত্বরেও। দুপুর পর্যন্ত নারী শিশুসহ ৬৬ জন আক্রান্ত ব্যক্তিকে ভ্যাকসিন দেয়া হয়।

আক্রান্তরা জানান, হঠাৎই পেছন থেকে এসে কামড়িয়ে পায়ের মাংস তুলে নিচ্ছে পাগলা কুকুর। ক্ষতবিক্ষত করেছে শরীরের বিভিন্ন অংশ।

হাসপাতালের চিকিৎসকরা জানান, এক সঙ্গে এত রোগী তারা এর আগে দেখেনি। আক্রান্তদের ক্ষতস্থানে সাবান দিয়ে ধুয়ে মুছে পরিষ্কার করে ভ্যাকসিন দেয়া হয়েছে।

জরুরি বিভাগের চিকিৎসক ডা. হাজেরা খাতুন বলেন, আক্রান্তদের প্রত্যেককে জলাতংক প্রতিরোধে ইনজেকশন দেয়া হচ্ছে যেন কেউ জলাঙ্কে আক্রান্ত না হয়।

মানিকগঞ্জ পৌর সভার মেয়র গাজী কামরুল হুদা সেলিম জানান, পৌর এলাকায় কুকুর আতঙ্কে রয়েছে মানুষজন । হাইকোর্টের নির্দেশে আজ ৭/৮ বছর ধরে কুকুর মারা যাচ্ছে। মন্ত্রণালয়ে কুকুর নিধনের জন্য আবেদন করা হয়েছে। কিন্তু মন্ত্রণালয় হাইকোর্টে নিষেধাজ্ঞা কথা বলে কুকুর মারতে নিষেধে করেছে।

মেয়র বলেন, যে হারে কুকুর বৃদ্ধি পেয়েছে এটাকে নিয়ন্ত্রণের জন্য কিছু একটা করা উচিত। পৌর এলাকায় প্রতিদিনই কোনো না কোনো এলাকায় কুকুরে আক্রমণের খবর পাওয়া যাচ্ছে। তারপরেও এদের নিধন করতে পারছি না কোর্টের নিষেধাজ্ঞার কারণে।

Comments

comments