তানোরে আমান কোল্ড স্টোর ঘেরাও করে মানববন্ধন

তানোর সংবাদদাতা:
রাজশাহীর তানোরে আমান গ্রুপের এ.এম কোল্ড স্টোরেজ ঘেরাও করে মানববন্ধর কর্মসূচি পালন করেছেন স্থানীয় হাজারো আলুচাষীরা।

সোমবার বেলা সাড়ে ১১টার দিকে তানোর পৌর এলাকার কাশিম বাজারস্থ কোল্ড স্টোরেজ সম্মুখে হাজারো ক্ষতিগ্রস্থ এসব কৃষক এ কর্মসূচি পালন করে। পরে উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও উপজেলা কৃষি অফিসারের কাছে স্বারকলিপি দেন। স্বারকলিপির অনুলিপি স্থানীয় সাংসদ, বিভাগীয় কমিশনার, জেলা প্রশাসক ও কৃষি সম্প্রসারণের উপপরিচালক বরাবর ডাকযোগে পাঠানো হয়।

মানববন্ধনের অনুলিপি ও স্থানীয় আলুচাষী সূত্রে জানা যায়, আমান গ্রুপের এ.এম কোল্ড স্টোরেজ কৌশলে চলতি মৌসুমে রাজশাহীর তানোর উপজেলার দেড় হাজার আলুচাষীর কাছে সর্বোচ্চ বাজার মূল্যে ত্রিশ হাজার মণ নিম্নমানের আলু বীজ বিক্রি করে। উপজেলার চাষীরা আলু বীজ উৎপাদন করতে সক্ষম না হওয়ায় নিরুপাই হয়ে আমান গ্রুপের এ.এম কোল্ড স্টোরেজ কোম্পানীর কাছে ফাঁকা নন-জুডিশিয়াম স্ট্যাম্প ও ফাঁকা ব্যাংক চেক জমা রেখে উচ্চমূল্যে চাহিদা মত আমান সীডের এসব আলু বীজ ক্রয় করে জমিতে বোপন করে। তবে,এসব আলুর বীজ নিম্নমানের হওয়ায় ১৬ আনার মধ্যে ১২ আনা আলু জমিতে পচে নষ্ট হয়ে গেছে। এতে প্রতিবিঘায় একেকজন কৃষক গড়ে ৩০ হাজার টাকা ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে। এভাবে কোটি কোটি টাকার ক্ষেত পচে নষ্ট হওয়ায় কৃষকরা নিরুপাই হয়ে পড়েছেন। বিষয়টি নিয়ে অভিযুক্ত কোল্ড স্টোর ম্যানেজারকে বারবার অবহিত করলেও কোন কিছুর কর্ণপাত করছেন না তারা। ফলে নিরুপাই হয়ে ক্ষতিপূরণের দাবীতে সোমবার কৃষক মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করেছে ক্ষতিগ্রস্থ কৃষকরা।

এনিয়ে তানোর কৃষক কালচার একাডেমির সভাপতি মহসিন রেজা জানান, আমান গ্রুপের এ.এম কোল্ড স্টোরেজ কোম্পানীর কাছে ফাঁকা নন-জুডিশিয়াম স্ট্যাম্প ও ফাঁকা ব্যাংক চেক জমা রেখে উচ্চমূল্যে আড়াইশ মণ আলু বীজ ক্রয় করে জমিতে বোপন করেন। কিন্তু চার ভাগের তিন ভাগ আলুর বীজ মাটির নিচে পঁচে নষ্ট হয়ে গেছে। একারণে জমিতে ১২ আনা গাছ গজাইনি। এতে করে তার ১২ লক্ষ টাকা লোকসান হবে। কোল্ড স্টোর ক্ষতিপূরণ না দিলে তাকে পথে বসতে হবে।একই কথা জানান, ধানতৈড় গ্রামের আলু চাষী তরিকুল, রাসেদুল, জিওল গ্রামের মনজুর রহমান, হাবিবুর রহমান, মাসুদ রানা, মোজাহার আলী, আছাদ আলী, চাঁদপুর গ্রামের আবদুল গনি, ইমরান হোসাইন, বুরুজ গ্রামের গনি মিয়া, আকচা গ্রামের নাসির ও ফিটুসহ শতাধিক কৃষক এমন ক্ষতিগ্রস্থের কথা জানান। এছাড়াও ক্ষতিগ্রস্খ কৃষকদের দাবি, আমান গ্রুপের এ.এম কোল্ড স্টোরেজ এবার কৃষকদের আলু চাষের অতি উৎসাহকে পুজি করে খাওয়ার আলু বেশি দামে বীজ আলু বলে বিক্রি করে।

এনিয়ে অভিযুক্ত আমান গ্রুপের এ.এম কোল্ড স্টোরেজের ম্যানেজার জামাল উদ্দিন জানান, কৃষকের ক্ষতিগ্রস্থের বিষয়টি আমলে নিয়ে কোম্পানীর মহাব্যবস্থাপককে সভাপতি করে ৯ সদস্য বিশিষ্ট তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। তদন্ত কমিটি প্রত্যেক ক্ষতিগ্রস্থ কৃষকের আলুক্ষেত পরিদর্শন করে ক্ষতির পরিমাণ ও কারণ চি‎িহৃত করছে। অল্প কিছুর দিনের মধ্যে কৃষকের ক্ষতির বিষয়টি আনুষ্ঠানিকভাবে জানিয়ে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণ করা হবে বলে জানান তিনি।

এবিষয়ে উপজেলা নির্বাহী অফিসার মুনীরুজ্জামান ভূঞাঁ জানান, ক্ষতিগ্রস্থ কৃষকরা মানববন্ধন শেষে তার কাছে স্বারকলপি দিয়েছে। স্বারকলিপির বিষয়টি খতিয়ে দেখে দোষ প্রমাণিত হলে কোল্ড স্টোরের বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

Comments

comments