সৌদি আরবে স্কলারশীপসহ উচ্চশিক্ষার সুযোগ

নিজস্ব প্রতিবেদক:
সৌদি আরবের বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে বিদেশি শিক্ষার্থীদের মাস্টার্সের পাশাপাশি অনার্স করার সুযোগ করে দিচ্ছে দেশটির সরকার।

শিক্ষা নিয়ে এমন নতুন চিন্তা-ভাবনার কথা জানিয়েছেন দেশটির শিক্ষামন্ত্রী আহমেদ আল-ইসা। খবরটি প্রকাশ করেছে সৌদি আরবের সংবাদমাধ্যম সৌদি গেজেট। সৌদি বাদশার পৃষ্ঠপোষকতায় গত মাসে উচ্চশিক্ষা বিষয়ে একটি আন্তর্জাতিক সম্মেলন রিয়াদে অনুষ্ঠিত হয়। সম্মেলনের শিরোনাম ছিল- ‘সৌদি ইউনিভার্সিটি এবং ভিশন ২০৩০: জ্ঞানই আগামীর প্রেরণা।’

সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন ডেপুটি ক্রাউন প্রিন্স মুহাম্মদ বিন সামলান। তিনি একই সঙ্গে দ্বিতীয় উপ-প্রধানমন্ত্রী এবং প্রতিরক্ষা মন্ত্রী। শিক্ষামন্ত্রী আহমেদ আল-ইসা বলেন, “বিশ্ববিদ্যালয়ের নতুন সাংগঠনিক কাঠামো নিয়ে মন্ত্রী পরিষদের বিশেষজ্ঞ কমিটিতে গবেষণা হচ্ছে।যাচাই-বাছাই শেষে এগুলো কাঠামোতে অন্তর্ভুক্ত করা হবে।”

সৌদি বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে আবেদন করার নিয়মাবলী ও করণীয়- আলিম অথবা সমমান পরীক্ষার সার্টিফিকেট ও মার্কশিট নির্ভরযোগ্য অনুবাদ সেন্টার থেকে আরবিতে অনুবাদ করার পর নোটারী পাবলিক করে শিক্ষাবোর্ড কর্তৃক সত্যায়িত করতে হবে।

শিক্ষাবোর্ড কর্তৃক সত্যায়িত করার পর পর্যায়ক্রমে শিক্ষা মন্ত্রণালয়, পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় ও বাংলাদেশে অবস্থিত সৌদি দূতাবাস হতে সত্যায়িত করতে হবে। চারিত্রিক সনদপত্র (প্রতিষ্ঠানের প্রশংসাপত্র) নির্ভরযোগ্য অনুবাদ সেন্টার থেকে আরবিতে অনুবাদের পর নোটারী পাবলিক করে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় হতে সত্যায়িত করতে হবে।

জন্ম নিবন্ধন সার্টিফিকেট আরবিতে অনুবাদ করার পর নোটারী পাবলিক করে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় থেকে সত্যায়িত করতে হবে। মেডিকেল সার্টিফিকেট আরবিতে অনুবাদ করার পর নোটারী পাবলিক করে (প্রয়োজনে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় হতে সত্যায়িত করতে হবে) পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় থেকে সত্যায়িত করতে হবে।

তাজকিয়া (প্রশংসাপত্র) ২টি, (যে কোনো দু’জন প্রসিদ্ধ আলেম অথবা যে কোনো দু’জন গেজেটেট কর্মকতা হতে হবে) যা আরবিতে হতে হবে। এরপর নোটারী পাবলিক করে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় থেকে সত্যায়িত করতে হবে।

পাসপোর্ট এর কপি। ছবি (চশমা ও টুপিবিহীন)। এসব কাগজ সংগ্রহ করে অনলাইনে বিশ্ববিদ্যালয়ের অনলাইনে পাঠাতে হবে। প্রার্থীকে অবশ্যই পাসপোর্ট ও সার্টিফিকেটের বয়স অভিন্ন ও ২৫ বছরের মধ্যে থাকতে হবে।

Comments

comments