অ্যাপেন্ডিক্স থাকার উপকারিতা উদঘাটন করল গবেষকরা

নিউজ ডেস্কঃ

পাকস্থলীতে এই ছোট্ট, চিকন টিউবটির আসল কাজ কি সেটা নিয়ে ব্যাপক রহস্য ছিল। বিজ্ঞানীরা খুঁজে পেয়েছেন মানুষের পাকস্থলীতে কেন এই অ্যাপেন্ডিক্স থাকে এবং উপকারিতা কী।
এই অ্যাপেন্ডিক্স আবার অনেকের জন্য বিড়ম্বনারও কারণ ছিল। পেটে জ্বালাপোড়া, পেট ব্যাথা থেকে শুরু করে বিভিন্ন সমস্যার জন্ম দিয়ে থাকে অ্যাপেন্ডিক্স। অ্যাপেন্ডিসাইটিস নামে সেই রোগটি হলে অপারেশনের মাধ্যমে অ্যাপেন্ডিক্সটি সড়িয়ে ফেলতে হয়।
মাঝে মাঝে মনে হয় শরীরের এ অঙ্গটি হয়তো কোন কাজেরই না। যেটা প্রয়োজনে কেটে ফেলে দিতে হয় তাহলে এর দরকারটা কি? এমন প্রশ্ন অ্যাপেন্ডিসাইটিসে ভুক্তভোগী থেকে শুরু করে বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক সবারই।
এ প্রশ্নের সমাধানে পৌঁছেছে যুক্তরাষ্ট্রের অ্যারিজোনা প্রদেশের মিডওয়েস্টার্ন বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষকরা। তারা বলছেন, এই অঙ্গটা উপকারী ব্যাকটেরিয়ার সংরক্ষণাগার হিসেবে কাজ করে।
মিডওয়েস্টার্ন বিশ্ববিদ্যালয়ের সহযোগী অধ্যাপক হিদার স্মিথ এই গবেষণা পরিচালনা করার জন্য অন্তত ৫৩৩টি ভিন্ন ভিন্ন স্তন্যপায়ী প্রাণীর অন্ত্র গবেষণা করে দেখেছেন এবং বুঝার চেষ্টা করেছেন এই অঙ্গটির বিবর্তনের যাত্রা।
কিছু জন্তুরও এই অ্যাপেন্ডিক্স আছে। যেমন বনমানুষ, খরগোশসহ বেশ কিছু প্রাণীর অ্যাপেন্ডিক্স আছে। সেখানে কুকুর ও বিড়ালের কোনো অ্যাপেন্ডিক্স নাই।
আরিজোনার সেই গবেষকদল আবিষ্কার করেছেন, বিভিন্ন প্রজাতির মধ্যে বিভিন্ন সময়ে অন্তত ৩০ বার অ্যাপেন্ডিক্সের বিবর্তন হয়েছে।
জানা গেছে, যে প্রাণীর অ্যাপেন্ডিক্স আছে তাদের লিম্ফয়েড টিস্যু গড়ার ক্ষমতা বেশি। এটা আমাদের রোগ প্রতিরোধ ব্যবস্থায় গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে বলে মনে করেন বিজ্ঞানীরা।
এছাড়া এই টিস্যুটা কিছু উপকারী ব্যাকটেরিয়ার বৃদ্ধিতে সহায়তা করে যারা অ্যাপেন্ডিক্সে মজুদ থাকতে পারে।
সহযোগী অধ্যাপক স্মিথ বলেন, যাদের অ্যাপেন্ডিক্স সরিয়ে ফেলা হয় তারা ‘অসুস্থ্যতা থেকে একটু দেরিতে আরোগ্য লাভ করে’। কারণ তাদের শরীর থেকে উপকারী ব্যাকটেরিয়ার মজুদ কেটে ফেলে দেওয়া হয়েছে।
প্রাপ্তবয়স্ক একটা অ্যাপেন্ডিক্স ৫ থেকে ১০ সেন্টিমিটার লম্বা হয় এবং ৬ থেকে ৮ মিলিমিটার প্রশস্ত হয়।
ব্রিটিশ পত্রিকা দ্য ইনডেপেনডেন্ট জানায়, ইংল্যান্ডে প্রতিবছর অন্তত ৪০ হাজার লোক অ্যাপেন্ডিসাইটিস নিয়ে হাসপাতালে ভর্তি হয়। এটা কি কারণে হয় সেটা ঠিক বলতে না পারলেও গবেষকরা মনে করছেন, কোনো কারণে এই অঙ্গটির প্রবেশদ্বার বন্ধ হয়ে গেলে পেটে জ্বালাপোড়া, পেট ব্যাথা হতে পারে!

Comments

comments