ভয়ংকর ক্ষেপণাস্ত্রের পরীক্ষা চালিয়েছে রাশিয়া!

নিউজ ডেস্কঃ

এক আঘাতে একটি গোটা দেশ ধ্বংস করার ক্ষমতাসম্পন্ন এবং হিরোশিমায় ফেলা বোমার চেয়ে এক হাজার গুণ বেশি শক্তিশালী আন্তমহাদেশীয় পরমাণু ক্ষেপণাস্ত্রের পরীক্ষা চালিয়েছে পরাশক্তির দেশ রাশিয়া।

শুক্রবার রাশিয়ার প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় জানিয়েছে, মস্কো থেকে প্রায় ৮০০ কিলোমিটার দূরে মহাকাশকেন্দ্র প্লেসটেক কসমোড্রোম থেকে শয়তান-২ নামের পরমাণু ক্ষেপণাস্ত্রের পরীক্ষামূলক উৎক্ষেপ করা হয়েছে। মহাশক্তিধর এই ক্ষেপণাস্ত্রকে আরএস-২৮ সারমাতও বলা হয়।

উৎক্ষেপণের পর ৫ হাজার ৭৬০ কিলোমিটার পথ পাড়ি দিয়ে রাশিয়ার কুরা অঞ্চলে গিয়ে পড়ে সেটি। রাশিয়া তাদের দূরপ্রাচ্যের কুরা অঞ্চলে আন্তমহাদেশীয় বিধ্বংসী ক্ষেপণাস্ত্র (আইসিবিএম) ফেলে এর প্রভাব পরীক্ষা করে দেখে। বলা হচ্ছে, শয়তান-২ ক্ষেপণাস্ত্র একসঙ্গে ১২ থেকে ১৬টি পরমাণু বোমা বহনে সক্ষম এবং এর এক আঘাতে একটি পুরো দেশ ধ্বংস হয়ে যেতে পারে।

রাশিয়ার পরমাণু অস্ত্রের পরীক্ষার অংশ হিসেবে একই দিন পুরমাণু ডুবোজাহাজ থেকে আরো তিনটি আইসিবিএমের পরীক্ষা চালানো হয়েছে। ক্রেমলিন জানিয়েছে, রুশ প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন মহড়ায় অংশ নেন এবং চারটি ক্ষেপণাস্ত্রের উৎক্ষেপণ উদ্বোধন করেন তিনি।

প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় এক বিবৃতিতে জানিয়েছে, তাদের পরমাণু অস্ত্রের ব্যবস্থাপনার জন্য মহড়া চালিয়েছে তারা। এই মহড়ার সব উদ্দেশ্যই সফলভাবে সম্পূর্ণ হয়েছে। অন্যদিকে, এ মাসের গোড়ার দিকেও তারা মহড়া চালিয়েছে, যেখানে আইসিবিএম লঞ্চার রাখা হয়েছিল।

গত মাসে রাশিয়া ও বেলারুশ যৌথ সামরিক মহড়া চালিয়েছিল। তাদের এই ব্যাপকভিত্তিক যুদ্ধের মহড়া ন্যাটোর ইউরোপীয় সদস্য পোলান্ড ও কিছু বাল্টিক দেশের জন্য মাথা ব্যথার কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে।

আরএস-২৮ সারমাত সম্পর্কে কিছু গুরুত্বপূর্ণ তথ্য
শয়তান-২ বা আরএস-২৮ সারমাত যে নামেই ডাকা হোক না কেন, বলা হচ্ছে এটিই রাশিয়া এবং এই মানব গ্রহের সবচেয়ে শক্তিশালী ও প্রাণঘাতী ক্ষেপণাস্ত্র। যুক্তরাজ্যের সংবাদপত্র দি সান নতুন প্রজন্মের এ ক্ষেপণাস্ত্র নিয়ে কিছু গুরুত্বপূর্ণ তথ্য দিয়েছে।

দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের সময় জাপানের হিরোশিমা ও নাগাসাকিতে ফেলা বোমার চেয়ে এক হাজার গুণ বেশি শক্তির বোমা বহনে সক্ষম শয়তান-২। ১৬টি বোমা বহনে সক্ষম এই ক্ষেপণাস্ত্রের এক আঘাতে ফ্রান্সের মতো দেশ ধ্বংস হয়ে যেতে পারে। চলতি বছরের শুরুর দিকে মস্কো ভিক্টোরি ডে প্যারেডের মহড়ায় দেখা গিয়েছিল আরএস-২৮ সারমাত।

শয়তান-২ উৎক্ষেপণস্থান থেকে প্রায় ১১ হাজার কিলোমিটার পথ উড়ে গিয়ে লক্ষ্যবস্তুতে আঘাত করতে পারে। এর ওজন ১০০ টন। আনুষ্ঠানিক নাম আরএস-২৮ সারমাত হলেও বলা হচ্ছে, এই ক্ষেপণাস্ত্রের মাধ্যমে সাবেক সোভিয়েত আমলের ক্ষেপণাস্ত্র সক্ষমতায় ফিরতে চান প্রেসিডেন্ট পুতিন।

রাশিয়ার ক্ষেপণাস্ত্র উৎপাদন কোম্পানি ম্যাকেয়েভ ডিজাইন ব্যুরো আরএস-২৮ সারমাত তৈরি করেছে। এমন সময় এই ক্ষেপণাস্ত্রের পরীক্ষা চালানো হলো যখন পরমাণু বোমা ফেলতে সক্ষম হাইপারসনিক পিএকে-ডিএ যুদ্ধবিমান তৈরি করছে পুতিন সরকার।

সামরিক বিশেষজ্ঞ ড. পল ক্রেইগ রবার্টস বলেছেন, এ ধরনের পাঁচ-ছয়টি রাশিয়ান ক্ষেপণাস্ত্র যুক্তরাষ্ট্রের পূর্ব উপকূল পুরোপুরি নিশ্চিহ্ন করে দিতে পারে। মে মাসে রাশিয়ার সংবাদমাধ্যম স্পুটনিক এক খবরে বলেছিল, আরএস-২৮ রকেট ফ্রান্স বা টেক্সাসের মতো ভূখণ্ড ধ্বংস করে দিতে সক্ষম।

Comments

comments