কৃমির কারনে শিশুদের অপুষ্টিহীনতা

স্বাস্থ্য ডেস্কঃ

শিশু অপুষ্টির অন্যতম প্রধান কারণ কৃমির সংক্রমণ বলে জানিয়েছে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর। এছাড়া দেশের ৩৯ শতাংশ শিশুর পেটে কৃমি এবং কৃমি সংক্রমিত শিশু স্কুলে ভালো করে না বলেও স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের এক সভায় জানানো হয়।

বুধবার স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের সম্মেলনকক্ষে আয়োজিত মতবিনিময় সভায় সরকারের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা এসব কথা বলেন।

কৃমি নিয়ন্ত্রণ সপ্তাহ সামনে রেখে অধিদপ্তরের সংক্রামক রোগ নিয়ন্ত্রণ শাখা এই মতবিনিময় সভার আয়োজন করে। ৪ নভেম্বর থেকে সারা দেশের স্কুলশিক্ষার্থীদের কৃমিনাশক বড়ি খাওয়ানো শুরু হবে।

৪ থেকে ৯ নভেম্বর দেশের প্রাথমিক পর্যায়ের সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে ৫ থেকে ১২ বছর বয়সী সব শিশুকে কৃমিনাশক বড়ি খাওয়ানো হবে বলে অনুষ্ঠানে জানানো হয়।

এরপর ১৬ থেকে ২৩ নভেম্বর সব মাধ্যমিক পর্যায়ের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে ১২ থেকে ১৬ বছর বয়সী সব শিশুকে এই বড়ি খাওয়ানো হবে।

অনুষ্ঠানে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক আবুল কালাম আজাদ বলেন, “নিয়মিত কৃমিনাশক খেলে এবং স্বাস্থ্যবিধি মানলে কৃমি দূর করা যায়। এ ব্যাপারে মানুষকে সচেতন করতে গণমাধ্যমের ভূমিকা অনেক বড়।”

তিনি বলেন, “এ বছর যে কৃমিনাশক বড়ি খাওয়ানো হবে এর মান বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার পরীক্ষায় উত্তীর্ণ। এটি নিরাপদ।”

Comments

comments