মায়ের দেনা পরিশোধ করার জন্যই অভিনেত্রী হয়েছিলেন জোলি

বিনোদন ডেস্ক:
হলিউডের জনপ্রিয় অভিনত্রী অ্যাঞ্জেলিনা জোলি। এমনকি সবচেয়ে বেশি পারিশ্রমিক পাওয়া অভিনেত্রীদের মধ্যে একজন তিনি।

১৯৮২ সালে “লুকিন’ টু গেট আউট” সিনেমার মধ্য দিয়ে শিশুশিল্পী হিসেবে চলচ্চিত্র জগতে পা রাখেন জোলি। ১৯৯৩ সালে মুক্তিপ্রাপ্ত ‘সাইবর্গ’-এ প্রধান নারী চরিত্রে অভিনয় করেন তিনি। এরপর আর পেছনে ফিরে তাকাতে হয়নি তাকে। অভিনয় করেছেন ‘হ্যাকারস’ (১৯৯৫), ‘জর্জ’ ‘ওয়ালেস’ (১৯৯৭), ‘জিয়া’ (১৯৯৮), ‘গার্ল, ইন্টারাপ্টেড’ (১৯৯৯) ও ‘লারা ক্রফ্ট: টুম্ব রেইডার’ (২০০১) এর মতো ছবিগুলোতে।

ঘরে তুলেছেন গোল্ডেন গ্লোব, অ্যাক্টরস গিল্ড ও অস্কার পুরস্কার। তবে, জীবনের এত্তোসব সফলতার জন্য মায়ের কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করছেন মার্কিন এই অভিনেত্রী। কেননা মা মার্শেলিন বার্ট্রান্ডের দেনা পরিশোধ করার জন্যই নাকি অভিনেত্রী হয়েছেন তিনি। সম্প্রতি এক সাক্ষৎকারে এমনটাই জানালেন জোলি।

এ প্রসঙ্গে ৪২ বছর বয়সী এই অভিনেত্রীর ভাষ্য, ‘অভিনেত্রী হবার ইচ্ছে আমার ছিলো না। কিন্তু আমি এখন তাদের একজন হতে পেরে খুব খুশি। এজন্য আমি কতোটা ভাগ্যবতী এবং সৌভাগ্যবান তা উপলব্ধি করতে পেরেছি আমার মায়ের চলে যাওয়ার পর। আমি যখন অভিনয় শুরু করি তখন এটি শেষ করার ভালো একটি উপায় ছিলো আমার কাছে। কারণ এটিকে চাকরি মনে করতাম আমি। আর এজন্য যে পারিশ্রমিক পেতাম তা দিয়ে মায়ের দেনা পরিশোধে সাহায্য করতাম।’

যোগ করে ‘ম্যালেফিসেন্ট’খ্যাত এই তারকা আরও বলেছেন, ‘অভিনয় একটি সৃজনশীল কাজ। যেখানে আপনাকে ইতিহাসের বিভিন্ন সময় অন্বেষণ, বিভিন্ন ব্যক্তি, নিজের বিভিন্ন দিক এবং বিভিন্ন দক্ষতা শিখাতে পারে। তাই বেড়ে ওঠার জন্য এটি একটি চমৎকার কাজ।’

Comments

comments