মাচা পদ্ধতিতে পুঁইশাক চাষে স্বাবলম্বী নির্মলা

গোপালগঞ্জ সংবাদদাতা:
গোপালগঞ্জ সদর উপজেলার রঘুনাথপুর দক্ষিণ পাড়ায় ষাট বছরের নির্মলা সুন্দরী মাচা পদ্ধতিতে পুঁইশাক চাষ করে লাখ লাখ টাকার মালিক হয়েছেন। তিনি এখন অন্যান্য চাষিদের কাছে মডেল হয়েছেন। তার দেখাদেখি অন্যরাও এগিয়ে আসছেন মাচা পদ্ধতিতে পুঁইশাক চাষে।

মঙ্গলবারে নির্মলা সুন্দরীর সাথে কথা হয় সবজি ক্ষেতে বসে। এ সময় তিনি জানান, তিন মাস আগে দশ কাঠা জমিতে মাচা পদ্ধতিতে পুঁইশাক চাষ করেন। এক মাসের মাথায় সবজি তুলে বাজারে বিক্রি করতে থাকেন। দুই তিন দিন পর পরই পুঁইশাক কাটা লাগে। এ বছর পুঁইশাকের দাম ছিল অন্যান্য বছরের চেয়ে অনেক বেশি। পাইকাড়রাও সবজি ক্ষেতে এসে পুঁইশাক কিনে নিয়ে যায়। এ পর্যন্ত প্রায় দশকাঠা জমি থেকে প্রায় তিন লাখ টাকা আয় করেছেন বলেন জানান তিনি।

নির্মলা বলেন, তার দেখাদেখি এখন এলাকার অনেকেই মাঁচা পদ্ধতিতে পুঁইশাক চাষ করে লাভবান হচ্ছেন।

স্বামী, ছেলে ও কন্যাদের নিয়ে শাঁক কাঁটা, আঁটি বাঁধা ও বাজারে বিক্রি করা সব কাজই তারা আনন্দের সাথে মিলে মিশে করেন বলে জানান তিনি।

স্থানীয়রা জানান, উপজেলার রঘুনাথপুর, সিলনা, টুঙ্গিপাড়া উপজেলার গুয়াধানা, রুপাহাটি, গোপালপুর, সত্তর কান্দা, জোয়ারিয়া, পাথরঘাটা, বন্যাবাড়ী, রাখিলা বাড়ি ও মৃত্তি ডাঙ্গা থেকে শত শত মন পুঁইশাক পাইকাররা নসিমন, ইজিবাইক, লেগুনা ও ভ্যানে গোপালগঞ্জ শহরের বাজারে নিয়ে আসে। এছাড়াও এ পুঁইশাক গোপালগঞ্জ জেলার চাহিদা মিটিয়ে ঢাকা, খুলনা, বরিশালসহ দেশের আরো অনেক জেলায় মানুষের মাঝে চাহিদা মিটাচ্ছেন।

গোপালগঞ্জের রঘুনাথপুরের সবজি চাষি বিধান বিশ্বাস, রমানাথ গাঙ্গুলি, দিলীপ বিশ্বাস, তপন বালা ও দয়াল বালা জানান, পুঁইশাক চাষ করে এবার অনেকেই লাখ লাখ টাকার মুখ দেখেছেন। এবার থেকে পুঁইশাক চাষের প্রতি আগ্রহী হচ্ছেন কৃষকরা। আগামী বছর থেকে এলাকায় এ সবজি চাষে প্রাধান্য পাবে বলে তারা জানান।

ডাক্তার অমৃত লাল বিশ্বাস বলেন, পুঁইশাকে প্রচুর পরিমাণ পুষ্টিগুণ রয়েছে। যা শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায়। এ জন্য প্রত্যেকেরই পুঁইশাক খাওয়া উচিত।

Comments

comments