আবুধাবির ফিক্সিংকাণ্ডে নির্দোষ সালমান বাট: আইসিসি

স্পোর্টস ডেস্ক:
এ যেন পাপ মুক্তি! সাবেক পাক অধিনায়ক সালমন বাটকে স্পট-ফিক্সিং কেলেঙ্কারি থেকে ক্লিনচিট দিল বিশ্ব ক্রিকেটের সর্বোচ্চ নিয়ামক সংস্থা।

লর্ডস গেট কাণ্ডে নির্বাসিত হওয়ার পাশাপাশি জেলও খেটেছেন বাট৷ পরে নির্বাসন উঠলেও জাতীয় দলে ফেরা সম্ভব হয়নি সাবেক পাক অধিনায়কের৷ কিন্তু আন্তর্জাতিক ক্রিকেট না-হলেও ফিরেছেন বাইশ গজে।

সম্প্রতি আবুধাবিতে অনুষ্ঠিত অল-স্টার্স টি-টোয়েন্টি লিগ টুর্নামেন্টে স্পট-ফিক্সিংয়ের অভিযোগে বাটকে জিজ্ঞাসাবাদ করে আইসিসি৷ তবে বাটের উত্তর সন্তোষজনক হওয়ায় তাকে ক্লিনচিট দিল আইসিসি।

২০১০ লর্ডস টেস্টে স্পট-ফিক্সংয়ে জড়িত থাকার অপরাধে আইসিসি থেকে মুহাম্মদ আমির, মুহাম্মদ আসিফ ও সালমান বাটকে ৫ বছরের জন্য সব ধরনের ক্রিকেট থেকে নির্বাসিত করেছিল আইসিসি৷ সঙ্গে ৩০ মাসের জন্য জেল হয়েছিল সালমন বাটের৷ ২০১৫ সালের আগস্ট মাসে এই তিন ক্রিকেটারের উপর থেকে নির্বাসন তুলে নেয় আইসিসি৷ কিন্তু ফের ম্যাচ-ফিক্সিং সংক্রান্ত বিষয়ে বিতর্কিত পাক ক্রিকেটারকে জিজ্ঞাসাবাদ করে আইসিসি-র দুর্নীতিদমন শাখা।

অল-স্টার্স লিগে ম্যাচ-ফিক্সিং বিষয়ে নজর রেখেছিল আইসিসি৷ এই লিগটিতে একটি টিমের হয়ে খেলছিলেন সলমান বাট।

আইসিসি-র তরফে ক্লিনচিট পাওয়ার পর স্বস্তির নিশ্বাস ফেলা বাট জানিয়েছেন, ‘ওরা আমাকে বেশ কিছু প্রশ্ন করে৷ আমি সেগুলোর উত্তর দিয়েছি৷ উত্তর সন্তোষজনক হওয়ায় আমাকে ক্লিনচিট দেন।’ সঙ্গেই কিছুটা আক্ষেপের সঙ্গে বাট আরও যোগ করেন, ‘আমি নিজে, নিজের কেরিয়ারের জন্য যে মারাত্মক ভুল করেছি সেটার জন্য সবসময় কষ্ট পাই৷ এরকম সমস্ত ঝামেলার থেকে আমি অনেক দূরে থাকতে চাই৷ কিন্ত একবার আপনার নাম জড়িয়ে গেলে আপনাকে সন্দেহ করা হবে।৷ এই টুর্নামেন্টটিতে আমি মাত্র দু’টি ম্যাচ খেলেছি, যে ম্যাচটি নিয়ে বিতর্কের সৃষ্টি হয়েছে সেটিতে আমি খেলিনি। পুরো বিষয়টাই আমি ওদের জানিয়েছি। ওরা সব দেখেশুনেই আমাকে ক্লিনচিট দিয়েছে।’

Comments

comments