রোহিঙ্গা নির্যাতনের দায়ে সু চির ১৫ বছরের জেল!

আন্তর্জাতিক ডেস্ক:

ইরানের একটি গণআদালত রোহিঙ্গাদের জাতিগত নিধনের অপরাধে মিয়ানমারের নেত্রী অং সান সু চির প্রতীকী বিচারে ১৫ বছরের কারাদণ্ডের আদেশ দিয়েছে।

তেহরানের ওই আদালতে মিয়ানমারের সেনাপ্রধান মিন অং হলাইংকে ২৫ বছরের কারাদণ্ডে দণ্ডিত করা হয়।

মঙ্গলবার তেহরানের ইমাম সাদেক বিশ্ববিদ্যালয়ের ওই প্রতীকী বিচারের বিচারক প্যানেলে উপস্থিত ছিলেন ইরান এবং বাংলাদেশের বেশ কয়েকজন মুসলিম অধিকারকর্মী। এসময় জুরি সদস্যরা রোহিঙ্গাদের উপর জাতিগত নিপীড়ন, নির্বিচারে গণহত্যা ও ধর্ষণের শক্ত প্রমাণ থাকায় মিয়ানমারের শীর্ষস্থানীয় নেত্রী ও সেনাপ্রধানকে দোষী সাব্যস্ত করে এই রায় দেন।

২০১৭’র আগস্টে রাখাইনের সেনাঘাঁটিতে রোহিঙ্গা জঙ্গিদের আক্রমণের পরপরই প্রদেশটি জুড়ে ছড়িয়ে পড়ে সহিংসতা। দুই মাসেরও বেশি সময় ধরে চলা ওই সহিংসতায় সাত লাখেরও বেশি রোহিঙ্গা সেনাবাহিনীর গণহত্যা থেকে বাঁচতে পালিয়ে আসেন বাংলাদেশে। ওই সময় থেকেই সেনাবাহিনীর এই নির্মমতার প্রতি নিশ্চুপ থাকায় আন্তর্জাতিক অঙ্গনে সমালোচিত হয়ে আসছেন এককালের শান্তিতে নোবেলজয়ী নেত্রী অং সান সুচি।

সূত্র : তাসনিম নিউজ এজেন্সি

Comments

comments