কোটা সংস্কারের দাবিতে শাহবাগ ও টিএসসিতে বিক্ষোভ, সমাবেশ

ঢাবি প্রতিনিধি:

বাংলাদেশ সিভিল সার্ভিসসহ (বিসিএস) সকল প্রকার সরকারি-বেসরকারি নিয়োগে বিদ্যমান কোটা ব্যবস্থা সংস্কারের দাবিতে আন্দোলন করেছে চাকরি প্রত্যাশী সাধারণ শিক্ষার্থীরা।

শনিবার সকাল ১১টা থেকে শাহবাগ ও ঢাবির টিএসসির রাজু ভাস্কার্যের সামনে কোটা বিরোধী এ আন্দোলন চলছে।

‘কোটা সংস্কার চাই’ নামক ফেসবুক গ্রুপের মাধ্যমে চাকরিপ্রার্থী হাজারো শিক্ষার্থীরা এই মানববন্ধন, মিছিলও সমাবেশের ডাক দেয়।

মানববন্ধনে উপস্থিত সাধারণ শিক্ষার্থীরা বলেন, তারা মূলত কোটা ব্যবস্থার বিরোধী নয়। তবে বর্তমানে নিয়োগের ক্ষেত্রে যেভাবে বিভিন্ন কোটা দেয়া হচ্ছে, তাতে প্রকৃত মেধাবীরা অন্যায়ের শিকার হচ্ছেন বলে তারা মনে করেন। তাই তাদের দাবি, মেধার ভিত্তিতে অন্তত ৯০ শতাংশ নিয়োগ দেয়া হোক। বাকি ১০ শতাংশ নিয়োগ কোটা ব্যবস্থার মাধ্যমে দেয়া যেতে পারে।

তারা বলেন, এক্ষেত্রে কোটা ব্যবস্থা সংস্কার এবং একই ব্যক্তি যাতে বারবার কোটা ব্যবস্থার সুযোগ নিতে পারে সেই ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হবে।

সাধারণ ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ পরিষদের আহ্বায়ক ইমরান হোসেন বলেন, মেধাবীরা যাতে দেশের সর্বোচ্চ প্রশাসনিক জায়গায় যেতে পারেন, সেজন্য কোটা সংস্কারের দাবি জানাচ্ছি। আমরা কোটার বিপক্ষে না।

কোটা কমিয়ে ১০ শতাংশ করার দাবি জানিয়ে তারা বলেন, ৫৬ শতাংশ কোটা রাখার কারণে প্রকৃত মেধাবীরা যোগ্যতা থাকার পরেও চাকরি পাচ্ছেন না।

বিক্ষোভ সমাবেশে পরবর্তী কর্মসূচি ঘোষণা করেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সমাজবিজ্ঞান বিভাগের ২০০৭-০৮ সেশনের শিক্ষার্থী জিয়াউল হক রিন্টু। কোটা বিলোপের দাবিতে আগামী বৃহস্পতিবার শাহবাগসহ সারাদেশের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে মানববন্ধন কর্মসূচি পালিত হবে বলে জানান তিনি।

এদিকে কোটা বহাল রাখার পক্ষে মুক্তিযোদ্ধা সংসদ সন্তান কমান্ড কেন্দ্রীয় কমিটির পক্ষ থেকেও একটি বিক্ষোভ মিছিল বের করা হয়। পরে পুলিশ বাধা দিলে তারা মিছিল নিয়ে প্রেসক্লাবের দিকে চলে যায় ৷

মুক্তিযোদ্ধা সংসদ সন্তান কমান্ডের কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি মেহেদী হাসান বলেন, ‘যারা দেশের স্বাধীনতার বিরুদ্ধে, আজকে তারা কোটার বিরুদ্ধে আন্দোলন করছেন। মুক্তযোদ্ধারা যদি দেশ স্বাধীন না করতেন, তাহলে কীভাবে তারা স্বাধীন দেশে চাকরি পেতেন ।’

 

Comments

comments