প্রথম আলো আয়োজিত ‘নিরাপদ খাদ্য সবার জন্য’ শীর্ষক গোলটেবিল বৈঠক অনুষ্ঠিত

নিউজ ডেস্ক:

নিরাপদ খাদ্য দেশের মানুষের অন্যতম আকাঙ্ক্ষার বিষয়। নিরাপদ খাদ্য নিশ্চিত করতে হলে আইনের প্রয়োগসহ তথ্য-উপাত্তের জন্য দেশে নির্ভরযোগ্য পরীক্ষাগার স্থাপন করতে হবে। পাশাপাশি সর্বস্তরের মানুষকে সঙ্গে নিয়ে নিরাপদ খাদ্যের জন্য সামাজিক আন্দোলন গড়ে তোলা জরুরি হয়ে পড়েছে।

গত রোববার প্রথম আলো আয়োজিত ‘নিরাপদ খাদ্য সবার জন্য’ শীর্ষক গোলটেবিল বৈঠকে পদস্থ সরকারি কর্মকর্তা, গবেষক ও বিশেষজ্ঞরা এ কথা বলেন। প্রথম আলো কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত এই গোলটেবিল আয়োজনে সহায়তা করে সুপার স্টোর চেইন শপ স্বপ্ন এবং যুক্তরাষ্ট্রের দাতা সংস্থা ইউএসএআইডি।

প্রথম আলোর সহযোগী সম্পাদক আব্দুল কাইয়ুম এর পরিচালনায় বাংলাদেশ নিরাপদ খাদ্য কর্তৃপক্ষের চেয়ারম্যান মোহাম্মদ মাহফুজুল হক, কৃষি উন্নয়ন ও গণমাধ্যম ব্যক্তিত্ত্ব শাইখ সিরাজ, বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের প্যারাসাইটোলজি বিভাগের শিক্ষক ও সবুজবাংলাদেশ24.কম এর সম্পাদক প্রফেসর ড. মো. সহিদুজ্জামান, স্বপ্ন-এসিআই এর এক্সিকিউটিভ ডিরেক্টর সাব্বির হাসান নাসির, ঢাকা চেম্বার অব কমার্স এন্ড ইন্ডাস্ট্রি এর সিনিয়র ভাইস প্রেসিডেন্ট কামরুল ইসলাম, ইউএসএইড বাংলাদেশের ডেপুটি চিফ বানি আমিন, এডভাইজর অনিরুদ্ধ হোম রায়, পল বানডিক সহ সংশিষ্ট বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের ব্যক্তিবর্গ ও সাংবাদিকবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

গোল টেবিল বৈঠকে বক্তারা সবার জন্য নিরাপদ খাদ্য নিশ্চিতের বিভিন্ন বিষয় নিয়ে মাহফুজুল হক বলেন, নিরাপদ খাদ্যের বিষয়টি অতীতে প্রশাসনিকভাবে সমাধান করার চেষ্টা করা হয়েছে। পেশাদারি বিষয়গুলো কম গুরুত্ব পাওয়ায় কিছু ভুল হয়েছিল।

বেসরকারি টেলিভিশন চ্যানেল আইয়ের পরিচালক ও বার্তাপ্রধান শাইখ সিরাজ বলেন, হাসপাতালগুলোতে রোগী বেড়ে যাওয়ার কারণ দূষিত ও ভেজাল খাদ্য। মাটি দূষিত হলে সেই মাটি থেকে আসা খাদ্য বিশুদ্ধ হওয়ার সুযোগ কম। সরকারের মৃত্তিকা গবেষণা ইনস্টিটিউটের তথ্য উদ্ধৃত করে তিনি বলেন, দেশের অধিকাংশ জেলার মাটিতে জৈব উপাদান শূন্যের কোঠায়। দেশে গরু মোটাতাজাকরণের নামে যা হচ্ছে, সে ব্যাপারে সতর্ক হওয়ার পরামর্শ দেন তিনি।

বৈঠকে সুনির্দিষ্ট কিছু সুপারিশ তুলে ধরেন বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের প্যারাসাইটোলজি বিভাগের শিক্ষক প্রফেসর ড.  মো. সহিদুজ্জামান। আধুনিক পরীক্ষাগার প্রতিষ্ঠা, ব্যক্তিগত স্বাস্থ্যবিধি অনুসরণ, খাদ্য ব্যবস্থাপনায় প্রশিক্ষণ, প্রতিটি পর্যায়ে নজরদারি এবং নিয়মিত গবেষণার ব্যবস্থা করলে পরিস্থিতির উন্নতি হবে বলে তিনি মন্তব্য করেন।

সূত্র: প্রথম আলো

 

Comments

comments