বেরোবিতে বঙ্গবন্ধুর নাম বিকৃতির ঘটনায় কমিটি, দুজনকে অব্যাহতি

বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিনিধি:
বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের (বেরোবি) প্রকৌশল দফতরের এক চিঠিতে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এবং রংপুরের প্রথম শহীদ মুক্তিযোদ্ধা শহীদ মুখতার ইলাহীর নাম বিকৃত করায় প্রকৌশলীসহ দুজনকে সাময়িক অব্যহতি দেয়া হয়েছে।

একই সঙ্গে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর (চলতি দায়িত্ব) অধ্যাপক ড. একেএম ফরিদ-উল ইসলামকে আহ্বায়ক করে ৩ সদস্যের তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। তদন্ত কমিটিকে ৪৮ ঘণ্টার মধ্যে প্রতিবেদন দাখিলের নির্দেশ দিয়েছেন বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য। বিশ্ববিদ্যালয়ের জনসংযোগ কর্মকর্তা আরিফুল ইসলাম এসব তথ্য জানান।

তিনি বলেন, কমিটির সদস্য সচিব করা হয়েছে সহকারী প্রক্টর ছদরুল ইসলাম সরকার এবং অপর সদস্য করা হয়েছে সহকারী প্রক্টর আতিউর রহমানকে।

তার আগে সোমবার সকাল ১১টায় ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা ভারপ্রাপ্ত নির্বাহী প্রকৌশলী মো. শরীফ হোসাইন পাটোয়ারি এবং কম্পিউটার অপারেটর রাকিবুল ইসলাম শ্যামলকে অব্যাহতি দাবি করে প্রশাসনিক ভবন থেকে কর্মকর্তা-কর্মচারীদের বের করে দিয়ে তালা ঝুলিয়ে দেয়।

পরে কর্তৃপক্ষের আশ্বাসের প্রেক্ষিতে দুপুর ২টায় প্রশাসনিক ভবন খুলে দেয় ছাত্রলীগ।

শাখা ছাত্রলীগ এবং বিশ্ববিদ্যালয় সূত্রে জানা যায়, গত ৪ জুলাই বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান হল, শহীদ মুখতার ইলাহী হল বরাবর প্রকৌশল দপ্তর বিশ্ববিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত প্রকৌশলী মো. শরীফ হোসাইন পাটোয়ারির স্বাক্ষরিত একটি চিঠি ইস্যু করা হয়। সেই চিঠিতে বঙ্গবন্ধুর শেখ মুজিবুর রহমানের জায়গায় ‘বঙ্গবন্দু শেখে’ এবং শহীদ মুখতার ইলাহীর জায়গায় ‘মোখতার, মূখতার’ ইলাহী লিখা হয়।

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নামের বানান ৪ জায়গায় এবং শহীদ মুখতার ইলাহীর নামের বানান ২ জায়গায় ভুল থাকায় সোমবার সকাল ১০টায় ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা প্রকৌশল দফতরের উপ-প্রকৌশলীর অফিস কক্ষে তালা ঝুলিয়ে দেয়।

এতে প্রশাসন ভবনের সব কার্যক্রম বন্ধ হয়ে পড়ে। ভোগান্তিতে পড়েন ভর্তি ও ফর্ম পূরণ করতে আসা বিভিন্ন বিভাগের প্রায় চার শতাধিক শিক্ষার্থী। এদের অনেকেরই ভর্তি ও ফরম পূরণের শেষ দিন ছিল সোমবার।

এ বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের সভাপতি তুষার কিবরিয়া এবং সাধারণ সম্পাদক নোবেল শেখ বলেন, অভিযুক্ত কর্মকর্তা-কর্মচারীকে অব্যাহতি দেওয়ায় প্রশাসনিক ভবন গেটের তালা খুলে দিয়েছি আমরা।

তারা বলেন, ৪৮ ঘণ্টার মধ্যে তদন্তের মাধ্যমে ও বিষয়টি খতিয়ে দেখে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা যদি না নেয়া হয়, তাহলে আরো কঠোর হবে ছাত্রলীগ।

বিশ্ববিদ্যালয়ের উপ-প্রকৌশলী মো. শরীফ হোসাইন পাটোয়ারির সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, আমাকে সাময়িক অব্যাহতি দেওয়া হয়েছে তাই কিছু বলতে চাচ্ছি না।

এ বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রার মুহাম্মদ ইব্রাহীম কবির, প্রক্টর (চলতি দায়িত্ব) অধ্যাপক ড. একেএম ফরিদ-উল ইসলাম, ভিসি অধ্যাপক ড. নাজমুল আহসান কলিমউল্লাহকে একাধিকবার ফোন করা হলে রিসিভ করেনি।

Comments

comments