বঙ্গবন্ধুর বায়োপিক নির্মাণে তিন পরিচালকের নাম প্রস্তাব

বিনোদন প্রতিবেদক:

বাংলাদেশ ও ভারতের সম্মিলিত প্রচেষ্টায় বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জীবনী ভিত্তিক একটি চলচ্চিত্র নির্মাণের কথা অনেক দিন থেকেই শোনা যাচ্ছে। সেই লক্ষ্যে গত ১২ জুলাই সকালে দিল্লিতে বাংলাদেশ ও ভারত সরকারের উচ্চপর্যায়ের কর্মকর্তাদের মধ্যে একটি বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। সেখানে এতে সিদ্ধান্ত হয়েছে, বঙ্গবন্ধুকে ওপর কাহিনিচিত্রটি ২০২০ সালের ১৭ মার্চ তার জন্মশতবার্ষিকীর ঠিক আগেই মুক্তি দেওয়া হবে।

সেই বৈঠকে আলোচনা হয়েছে ছবিটির নির্মাতা প্রসঙ্গে। কে ছবিটি নির্মাণ করবেন? এ ব্যাপারে বাংলাদেশের কাছে তিনজনের নাম প্রস্তাব করেছে ভারত। তিন নির্মাতা হলেন ভারতের বরেণ্য পরিচালক শ্যাম বেনেগাল, গৌতম ঘোষ ও কৌশিক গঙ্গোপাধ্যায়।

বাংলাদেশের তথ্য মন্ত্রণালয়ের প্রতিনিধিরা ঢাকায় ফিরে সরকারের শীর্ষপর্যায়ের সঙ্গে আলোচনা করে পরিচালক নির্বাচন করবেন। জানা গেছে, আগামী মাসের শেষের দিকে ঢাকায় বাংলাদেশ ও ভারতের তথ্য মন্ত্রণালয়ের প্রতিনিধিদের মধ্যে আরেক দফা বৈঠক হবে। তখনই পরিচালক চূড়ান্ত করা হতে পারে।

বঙ্গবন্ধুর বায়োপিকের জন্য ভারত যে তিন পরিচালকের নাম প্রস্তাব করেছে তাদের মধ্যে ৮৩ বছর বয়সী শ্যাম বেনেগাল এর আগে পরিচালনা করেন নেতাজি সুভাষচন্দ্র বোসের বায়োপিক জীবন নিয়ে ‘দ্য ফরগটেন হিরো’। ৬৭ বছর বয়সী গৌতম ঘোষ পশ্চিমবঙ্গের অগ্রগণ্য পরিচালকদের একজন। ‘পদ্মানদীর মাঝি’র সময় থেকেই ভারত-বাংলাদেশের যৌথ প্রযোজনায় ছবি বানানোর অভিজ্ঞতা আছে তার। সম্প্রতি তিনি ‘শঙ্খচিল’ নামেও দুই দেশের যৌথ প্রযোজনায় আরেকটি ছবি বানিয়েছেন।

৪৯ বছর বয়সী কৌশিক গঙ্গোপাধ্যায় ভারত-বাংলাদেশ সীমান্ত এলাকার গল্প নিয়ে নির্মাণ করেছেন ‘বিসর্জন’। গত বছর ভারতের জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার পেয়েছে ছবিটি। এতে অভিনয় করেন বাংলাদেশের জয়া আহসান ও কলকাতার আবির চট্টোপাধ্যায়।

এদিকে দিল্লির বৈঠকে বাংলাদেশের ৯ সদস্যের প্রতিনিধি দলের নেতৃত্ব দেন তথ্য মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব আবুল হোসেন। ভারতের পক্ষ থেকে নেতৃত্বে ছিলেন তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব জয়শ্রী মুখার্জি। এছাড়া ভারতের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের বাংলাদেশ বিভাগের দায়িত্বপ্রাপ্ত যুগ্ম-সচিব শ্রীপ্রিয়া রঙ্গনাথনও ছিলেন বৈঠকে।

গত বছরের এপ্রিলে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ভারত সফরের সময় বঙ্গবন্ধুর বায়োপিক ও মুক্তিযুদ্ধের ওপর প্রামাণ্যচিত্র নির্মাণের বিষয়ে দুই দেশের মধ্যে সমঝোতাপত্র (মউ) স্বাক্ষর হয়েছিল। সেই অনুযায়ী নির্মাণ কাজ শুরু হতে যাচ্ছে। এর প্রথম ধাপ পরিচালক নির্বাচন। পরিচালকের নাম চূড়ান্তের পরই শুরু হবে অভিনয়শিল্পী বাছাই। স্বাভাবিকভাবে সেদিকেও নজর থাকবে বাংলাদেশ ও ভারতের কোটি কোটি বাঙালির।

এছাড়া দুই দেশের যৌথ উদ্যোগে একাত্তরে বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধ নিয়ে একটি প্রামাণ্যচিত্রও তৈরি হবে। এর কাজ শেষ করার সময়সীমা ধরা হয়েছে ২০২১ সাল অর্থাৎ মুক্তিযুদ্ধের সুবর্ণজয়ন্তীতে।

Comments

comments