শতাধিক সাপের কামড়েও বেঁচে আছেন ‘ভেনম ম্যান’

ডেস্ক নিউজ:
একশ একটি সাপের বিষ শরীরে নিলেই মিলবে অমরত্ব। তার নেশায় সাপের দংশনে শরীর নীল করছেন সাপুরে। রুপালি পর্দায় এ ধরনের দৃশ্য হয়তো অনেকেই দেখেছেন। কিন্তু বাস্তবে কি এরকম ঘটনা কখনো শুনেছেন?

নর্দান ফিলিপাইন কোবরা। ভয়ংকর বিষাক্ত এই সাপ কাউকে কামড়ালে কয়েক মিনিটের মধ্যে তার মৃত্যু হওয়ার কথা। অথচ জো কুইলিলান প্রতি সপ্তাহে অন্তত একবার এই সাপের কামড় খেয়েও সুস্থ-স্বাভাবিক মানুষের মতো বেঁচে আছেন। এ জন্য তাকে বলা হচ্ছে ‘ভেনম ম্যান’।

নিজের জীবন নিয়ে তার এই ভয়ংকর খেলার শুরু মাত্র চৌদ্দ বছর বয়স থেকে। একদিন জঙ্গলের পথে হাঁটার সময় একটি গোখরা সাপ তাকে কামড় দেয়। কামড়ানোর পর কুইলিলান হাসপাতলে যাওয়ার বদলে যেন কিছুই হয়নি এমন ভাব করে তিনি স্বাভাবিক কাজকর্ম করতে থাকেন। প্রতিবেশীরা এমনকি তার পরিবারের লোকজনও ভেবেছিলেন তাকে হয়ত আর বাঁচানো যাবে না। কিন্তু সকলের ধারণা ভুল প্রমাণিত করে সে-যাত্রা বেঁচে যায় কিশোর কুইলিলান।

সেই থেকে শুরু। এভাবে নিজের জীবন বিপন্ন হবে জেনেও গত পনেরো বছর কুইলিলান মেতে আছেন এই ভয়ংকর খেলায়। শত শত বার নানা রকম বিষাক্ত সাপের কামড় খেয়েছেন তিনি। কয়েক বার মৃত্যুর দুয়ার থেকে ফিরে এসেছেন। নিজের একটি আঙুল হারিয়েছেন। তবুও তিনি প্রতি সপ্তাহে নিয়ম করে সাপের কামড় খাওয়া থেকে সরে আসেন নি।

কিন্তু কেন তিনি বছরের পর বছর এটা করছেন? জিএমএ নেটওয়ার্কের এক অনুসন্ধানী প্রতিবেদন থেকে জানা যায়, একত্রিশ বছর বয়সি ফিলিপাইনের এই নাগরিক পেশায় সাপুড়ে। সাপ নিয়েই তার কারবার। তিনি এভাবে সাপের কামড় খাচ্ছেন যেন তার শরীর প্রাকৃতিকভাবেই সাপের বিষ প্রতিরোধী হয়ে ওঠে। পৃথিবীর কোনো বিষধর সাপের কামড়েও যেন তার মৃত্যু না ঘটে।

সম্প্রতি একটি টেলিভিশনে রিয়েলিটি শোতে হাজির হয়ে কুইলিলান তার এই ক্ষমতা দেখান। শো চলাকালীন তিনি দুটি নর্দান ফিলিপাইন কোবরার কামড় খান। এরপর তাকে চূড়ান্ত পরীক্ষা-নিরীক্ষার জন্য হাসপাতালে নেওয়া হয়। হাসপাতালের চিকিৎসকরা তার রক্ত পরীক্ষা করে জানান, তিনি সম্পূর্ণ সুস্থ আছেন। তবে ডাক্তাররা প্রাকৃতিকভাবে কীভাবে তার শরীর সাপের বিষ প্রতিরোধী হয়েছে এর কোনো ব্যাখ্যা দিতে পারেননি।

Comments

comments