প্রকাশিত সংবাদের প্রতিবাদ জিটিআই পরিচালকের

বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিনিধি:
বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের (বাকৃবি) গ্র্যাজুয়েট ট্রেনিং ইনস্টিটিউটের (জিটিআই) পরিচালকের বিরুদ্ধে অনিয়ম, দুর্নীতি, সহকর্মীদের সাথে খারাপ ব্যবহারসহ নানা অভিযোগে প্রকাশিত সংবাদের প্রতিবাদ জানিয়েছেন জিটিআই পরিচালক প্রফেসর এ.কে.এম. রফিকুল ইসলাম।

রবিবার (১৬ সেপ্টেম্বর) সবুজবাংলাদেশ24.কম-এ প্রতিবাদ লিপি পাঠান জিটিআই পরিচালক প্রফেসর এ.কে.এম. রফিকুল ইসলাম।

প্রতিবাদ লিপিতে প্রফেসর এ.কে.এম. রফিকুল ইসলাম জানান, বিগত ১২-০৯-২০১৮ ইং তারিখে কয়েকটি জাতীয় ও অনলাইন পত্রিকায় আমার বিরুদ্ধে একটি মিথ্যা ও ভুল তথ্য সংবলিত সংবাদ ছাপানো হয়। যার দরুন আমি একজন বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রফেসর ও বিশ্ববিদ্যালয়ের একটি ট্রেনিং ইন্সটিটিউট (গ্রাজুয়েট ট্রেনিং ইন্সটিটিউট) এর পরিচালক হিসাবে দায়িত্ব পালন করায় বিশ্ববিদ্যালয় তথা উক্ত প্রতিষ্ঠানের ও সুনাম নষ্ট হয়েছে। একটি ভুল ও মিথ্যা তথ্য সংবলিত নিউজ আমার মান সম্মান ও পদমর্যাদাকে পারিবারিক ও সামাজিক জীবনে ব্যপকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত করেছে।

উল্লেখ্য, বিগত ১২-০৯-২০১৮ ইং তারিখে বেশ কয়েকটি জাতীয় ও অনলাইন পত্রিকায় বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের (বাকৃবি) গ্র্যাজুয়েট ট্রেনিং ইনস্টিটিউটের (জিটিআই) পরিচালকের বিরুদ্ধে অনিয়ম, দুর্নীতি, অর্থ আত্মসাত, সহকর্মীদের সাথে খারাপ ব্যবহারসহ নানা অভিযোগে সংবাদ প্রকাশিত হয়।

নিম্নে প্রকাশিত সংবাদের লিংক দেওয়া হলো:

কালেরকণ্ঠ: চাকরির প্রলোভনে টাকা নেওয়াসহ নানা অনিয়মের অভিযোগ

দৈনিক জনকণ্ঠ: জিটিআই পরিচালকের বিরুদ্ধে অর্থ আত্মসাতের অভিযোগ

বাংলা নিউজ: জিটিআই পরিচালকের বিরুদ্ধে টাকা হাতিয়ে নেওয়ার অভিযোগ

জাগো নিউজ: ‘কেউ হয়তো আমাকে ফাঁসানোর চেষ্টা করছে’

এগ্রি নিউজ: বাকৃবিতে জিটিআই পরিচালক রফিকুলের বিরুদ্ধে অভিযোগের পাহাড়

দ্য পিপলস নিউজ: বাকৃবি জিটিআই পরিচালকের বিরুদ্ধে অর্থ আত্মসাতের অভিযোগ

নতুন বার্তা: বাকৃবিতে জি.টি.আইয়ের পরিচালকের সীমাহীন দুর্নীতি

Comments

comments