তরুপল্লব দ্বিজেন শর্মা নিসর্গ পুরস্কার পেলেন বাকৃবি শিক্ষক ড. মোস্তাফিজুর রহমান

নিজস্ব প্রতিনিধি:
তরুপল্লব দ্বিজেন শর্মা নিসর্গ পুরস্কার-২০১৮ পেলেন বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্রপ বোটানি বিভাগের সাবেক শিক্ষক প্রফেসর ড. মোস্তাফিজুর রহমান। দেশের উদ্ভিদবৈচিত্র্য সংরক্ষণে উল্লেখযোগ্য অবদানের জন্য তাঁকে এই পুরস্কার দেওয়া হয়েছে। লেখক ও নিসর্গবিদ অধ্যাপক দ্বিজেন শর্মার সম্মানে এই পুরস্কার চালু করেছে তরুপল্লব।

নিসর্গবিদ দ্বিজেন শর্মার প্রথম মৃত্যুবার্ষিকী ছিল শনিবার। এ উপলক্ষে গতকাল রবিবার বিকেলে জাতীয় জাদুঘরের কবি সুফিয়া কামাল মিলনায়তনে আলোচনাসভা ও ‘তরুপল্লব দ্বিজেন শর্মা নিসর্গ পুরস্কার-২০১৮’ প্রদান করা হয়। পদকপ্রাপ্ত মোস্তাফিজুর রহমানের হাতে ক্রেস্ট, সনদ ও পঞ্চাশ হাজার টাকার চেক তুলে দেন অতিথিরা। এ ছাড়া দ্বিজেন শর্মার স্মৃতির প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে তরুপল্লবের মুখপত্র প্রকৃতিপত্র প্রকাশ করেছে একটি বিশেষ শ্রদ্ধার্ঘ্য সংখ্যা।

রাজধানীর একটি হাসপাতালে ২০১৭ সালের ১৫ সেপ্টেম্বর ৮৮ বছর বয়সে শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন দ্বিজেন শর্মা। প্রকৃতি ছাড়াও তিনি বিজ্ঞান, শিশুসাহিত্যসহ আরো বেশ কিছু বিষয় নিয়ে লিখেছেন। প্রকৃতি নিয়ে তাঁর লেখা বইয়ের মধ্যে রয়েছে প্রকৃতিপুত্র, নিসর্গকথা, শ্যামলী নিসর্গ, গহন কোন বনে ইত্যাদি। কাজের স্বীকৃতি হিসেবে পেয়েছেন বাংলা একাডেমি ও একুশে পদকসহ নানা পুরস্কার।

ড. মোস্তাফিজুর রহমান তাঁর অনুভূতি প্রকাশ করতে গিয়ে বলেন, ‘দ্বিজেন শর্মা স্যারের সঙ্গে আমার বিভিন্ন গাছ নিয়ে কথা হতো। প্রকৃতির প্রতি আমার বর্তমান ভালোবাসা স্যারের হাত ধরে। পুরস্কার পেয়ে দায়িত্ব আরো বেড়ে গেল। প্রকৃতি নিয়ে কাজ করে স্যারকে সম্মান জানানোর কথা দিচ্ছি।’

সম্মানিত অতিথির বক্তব্যে সাংবাদিক ও শব্দসৈনিক মুক্তিযোদ্ধা কামাল লোহানী বলেন, দ্বিজেন শর্মা প্রকৃতির জন্য বনে-জঙ্গলে ঘুরে বেড়িয়েছেন। তাঁর ছিল একটি আদর্শিক শক্তি। র্ধমনিরপেক্ষতার বলে বলীয়ান হয়ে তিনি ষাটের দশকের সাহিত্য সংস্কৃতির মানুষকে প্রকৃতি প্রেমের কথা বলেছেন। মানুষকে সুস্থধারার সংস্কৃতির ভাবনার পথে নিতে পারলেই দ্বিজেন শর্মা বেঁচে থাকবেন।

Comments

comments