গেইলের সেঞ্চুরি ক্যারিয়ারের শেষ ম্যাচেও!

স্পোর্টস ডেস্ক:

বয়স ৩৯ ছাড়িয়ে ৪০ চলছে এখন। তবে এখনও আন্তর্জাতিক ক্রিকেটকে বিদায় বলেননি ক্যারিবীয় ব্যাটিং দানব ক্রিস গেইল। নিজের দেশের হয়ে আগামী বিশ্বকাপটা খেলার ইচ্ছা রয়েছে তার। যদিও ফ্রাঞ্চাইজি ভিত্তিক লিগগুলোতে খেলার জন্য আপাতত জাতীয় দলে খেলবেন না বলে জানিয়ে দিয়েছেন। বলে দিয়েছেন ভারত এবং বাংলাদেশের বিপক্ষে দুই সিরিজে তিনি খেলবেন না।

তবে নিজের মাতৃভূমি জ্যামাইকাকে ‘না’ বলে দিয়েছেন গেইল। ওয়েস্ট ইন্ডিজের গুরুত্বপূর্ণ একটি দ্বীপ, যেখানে গেইলসহ অসংখ্য জগৎবিখ্যাত অ্যাথলেটের জন্ম। এখানে খেলেই আজকের ‘ক্রিস গেইল’ হয়েছেন তিনি। বয়সের ভারেই হয়তো নিজের ওপর থেকে চাপ কমাতে চান গেইল। সে কারণে জ্যামাইকার হয়ে ক্যারিয়ারের সর্বশেষ লিস্ট ‘এ’ অর্থ্যাৎ ৫০ ওভারের একদিনের ক্রিকেট খেলে ফেললেন ক্রিস হেনরি গেইল।

নিজের জন্মভূমির হয়ে ক্যারিয়ারের শেষ ম্যাচেও সেঞ্চুরি হাঁকালেন তিনি। ১১৪ বলে তিনি খেললেন ১২২ রানের এক ঝড়ো ইনিংস। এই সেঞ্চুরির সুবাধে ক্যারিয়ারের শেষ ম্যাচে জ্যামাইকাকে ৩৩ রানের দারুণ এক জয় এনে দিলেন বার্বাডোজের বিপক্ষে। কেনসিংটন ওভালে রিজিওনাল সুপার ৫০ টুর্নামেন্টের ম্যাচ ছিল এটি।

ব্রিজটাউনের কেনসিংটন ওভালে গেইলের এই শেষ ম্যাচে একটা অন্যরকম দৃশ্যের অবতারণা হয়। জ্যামাইকার নিয়মিত অধিনায়ক নিকিতা মিলার গেইলের সম্মানে শেষ ম্যাচে নেতৃত্ব ছেড়ে দেন তার কাছে। নেতৃত্ব প্লাস নিজের দেশের হয়ে ক্যারিয়ারে শেষ ম্যাচ- যে কারণে জ্বলে উঠলেন গেইল। জ্যামাইকার হয়ে ২৭তম সেঞ্চুরি করেন তিনি।

গেইল সেঞ্চুরি করলেও জ্যামাইকা অলআউট হয়েছিল ২২৬ রানে। জবাবে বার্বাডোজ অলআউট হয়ে যায় ১৯৩ রানে। বল হাতেও গেইল ছিলেন দুর্বার। ৩১ রান দিয়ে ১ উইকেট নেন তিনি।

তবে জ্যামাইকার জার্সি আরও একবার গায়ে জড়ানোর ইচ্ছা গেইলের। সেটি একদিনের ম্যাচে নয়। চার দিনের ম্যাচে। শেষ লিস্ট ‘এ’ ম্যাচ খেলতে গিয়ে গেইল বলে দিয়েছেন, ‘জ্যামাইকার হয়ে আরও একটি চারদিনের ম্যাচ খেলার ইচ্ছা রয়েছে আমার। জ্যামাইকার হয়ে ক্যারিয়ারের শেষ একদিনের ম্যাচে সেঞ্চুরি পাওয়া খুবই সৌভাগ্যের। এটা এমন এক সৌভাগ্য, যা আমি সব সময় মনের মধ্যে লালন করে থাকি। শুধু তাই নয়, একটি দলকে নেতৃত্ব দিয়ে জয় এনে দিতে পারার মধ্যেও রয়েছে দারুণ এক অনুভুতি।’

Comments

comments