রাবির দুই ছাত্রীকে কটুক্তি, মুচলেকায় ছাড় পেল ‍যুবক

রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিনিধি:

রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের (রাবি) দুই ছাত্রীকে উত্যক্ত করার দায়ে স্থানীয় এক বখাটের প্রথমে আটক করে পরে মুচলেকা নিয়ে ছেড়ে দেওয়া হয়েছে। গতকাল শুক্রবার রাত ১০টার দিকে বিশ্ববিদ্যালয় সংলগ্ন বিনোদপুর এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। ছাত্রীদের অভিযোগ- রাস্তায় কোন মেয়ে দেখলেই ওই যুবক তাদের উত্যক্ত করে।

উত্যক্তকারী যুবকের নাম বুলবুল আহমেদ (৪০)। সে বিনোদপুরের ‘মাইশা ছাত্রীবাস’র মালিক মিঠুনের ছোট ভাই।

প্রত্যক্ষদর্শীরা সূত্রে জানা যায়, গতকাল সন্ধ্যায় উনি দুইজন ছাত্রীকে খুব বাজে মন্তব্য করে। পরে ওই দুই ছাত্রীসহ আশেপাশের মেসের ছাত্রীরা এসে তাকে আটক করে এবং বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টরকে খবর দেয়। এ সময় তারা মেসের সামনের সড়কে জড়ো হয়ে ওই বখাটের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ শুরু করে। খবর পেয়ে

বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের সভাপতি গোলাম কিবরিয়া ও সাধারণ সম্পাদক ফয়সাল আহমেদ রুনু ঘটনাস্থলে যান এবং ওই যুবককে কান ধরে উঠবস করান। পরে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর এসে ছাত্রীদের এবং ওই বুলবুলের ভাইয়ের সঙ্গে কথা বলে বিষয়টি মীমাংসা করেন। এ সময় এ ধরনের কর্মকা- করবো না মর্মে বুলবুলের কাছ থেকে মুচলেকা নেন প্রক্টর।

কয়েকজন ছাত্রী জানান, বুলবুল প্রায়ই এ ধরনের কাজ করেন। সে রাস্তায় কোন মেয়ে দেখলেই বাজে টোন (অশালীন মন্তব্য) করেন। তার এমন আচরণে মেয়েরা মেসের বারান্দায় পর্যন্ত যেতে পারে না। স্থানীয় ও মেস মালিকের ছোট ভাই হওয়ায় ভয়ে তাকে কেউ কিছু বলার সাহসও পায় না।

গোলাম কিবরিয়া বলেন, ‘ঘটনা শোনার সঙ্গে সঙ্গে আমি ও আমার সাধারণ সম্পাদক সেখানে গিয়েছিলাম। বখাটে বুলবুলের ভাই মেস মালিক মিঠুনের সঙ্গে কথা বলেছি। ভবিষ্যতে বুলবুল এমন কাজ করলে তার বিরুদ্ধে আইনের সহায়তা নেবো বলে হুঁশিয়ারি দিয়েছি।’

জানতে চাইলে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর অধ্যাপক লুৎফর রহমান বলেন, ‘বখাটে ওই যুবকের কাছ থেকে মুচলেকা নেওয়া হয়েছে। যদি ভবিষ্যতে সে এমন কাজ করে তবে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের পক্ষ থেকে তার বিরুদ্ধে কঠোর আইনী প্রদক্ষেপ নেওয়া হবে।’

Comments

comments