আমজাদ হোসেনের চিকিৎসার সব দায়িত্ব নিলেন প্রধানমন্ত্রী

নিউজ ডেস্ক:

গোলাপী এখন ট্রেনেখ্যাত নির্মাতা আমজাদ হোসেনের চিকিৎসার সব দায়িত্ব নিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

তার ছেলে সোহেল আরমান মঙ্গলবার দুপুরে সাংবাদিকদের এ তথ্য জানান।

এর আগে রোববার সকালে নিজ বাসভবনে আমজাদ হোসেন ব্রেনস্ট্রোকে আক্রান্ত হন। এর পর তাকে রাজধানীর আয়েশা মেমোরিয়াল হাসপাতালে নেয়া হয়।

সেখান থেকে উন্নত চিকিৎসার জন্য তাকে সকাল সাড়ে ১০টার দিকে ইমপালস হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। তখন থেকেই তিনি আইসিইউতে লাইফ সাপোর্টে।

আমজাদ হোসেন অসুস্থ এ সংবাদ পত্রিকায় পড়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা নিজ থেকে আমজাদ হোসেনের ছেলেদের ডেকে পাঠান তার সঙ্গে দেখা করতে।

প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে সাক্ষাতের বিষয়টি তুলে ধরে সোহেল আরমান বলেন, আজ সকালে ঘুম ভাঙে প্রধানমন্ত্রীর পিএস খোরশেদ ভাইয়ের ফোনে। তিনি আমাকে বললেন, প্রধানমন্ত্রী আপনাদের সঙ্গে দেখা করতে চান, আপনারা চলে আসুন।

‘এর পর বিশেষ পাশে আমরা প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে সাক্ষাৎ করলাম। তিনি বাবার সব দায়িত্ব নিয়েছেন। যদি বিদেশে নিয়ে যাওয়া লাগে সেটিও তিনি ব্যবস্থা করবেন বলে জানিয়েছেন।’

প্রধানমন্ত্রী বাবার বর্তমান শারীরিক অবস্থার কথাও জিজ্ঞেস করেন।

১৯৪২ সালের ১৪ আগস্ট জামালপুরে জন্মগ্রহণ করেন আমজাদ হোসেন। শৈশব থেকেই তার সাহিত্যচর্চা শুরু করে। পঞ্চাশের দশকে ঢাকায় এসে সাহিত্য ও নাট্যচর্চার সঙ্গে জড়িত হন।

প্রথমে তিনি অভিনয়ে করেন মহিউদ্দিন পরিচালিত ‘তোমার আমার’ সিনেমায়। এরপর তিনি অভিনয় করেন মোস্তাফিজ পরিচালিত ‘হারানো দিন’ সিনেমায়।

‘গোলাপী এখন ট্রেনে’, ‘ভাত দে’, কসাই, ‘নয়নমণি’, ‘দুই পয়সার আলতা’, ‘জন্ম থেকে জ্বলছি’ ছবিগুলোর কাহিনিকার, চিত্রনাট্যকার ও পরিচালক আমজাদ হোসেন।

আমজাদ হোসেন একসময় চিত্র পরিচালক জহির রায়হানের সহকারী হিসেবে কাজ শুরু করেন। ১৯৬৭ সালে তিনি নিজেই চলচ্চিত্র নির্মাণ করেন।

বর্ষীয়ান চলচ্চিত্র পরিচালক ১৯৭৮ সালে গোলাপী এখন ট্রেনে এবং ১৯৮৪ সালে ভাত দে চলচ্চিত্র নির্মাণের জন্য জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার পান।

Comments

comments