বাকৃবিতে আন্তর্জাতিক সম্মেলন ইকসা’র সমাপ্তি

বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিনিধি:
‘জলবায়ু সহিষ্ণু কৃষি প্রযুক্তি টেকসইকরণ’ প্রতিপাদ্য বিষয়ে বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ে (বাকৃবি) ‘ইন্টারন্যাশনাল কনফারেন্স অন সাসটেইনেবল অ্যাগ্রিকালচার (ইকসা)’ শীর্ষক দুই দিনব্যাপী আন্তর্জাতিক সম্মেলন আজ রোববার ২০ ক্টোবর ২০১৯ শেষ হয়েছে। বাকৃবির সৈয়দ নজরুল ইসলাম সম্মেলন ভবনে বিভিন্ন দেশের প্রতিনিধিদের মধ্যে ‘কোলাবরেশন ক্যাফে’ এর আয়োজন করা হয়।

এতে সভাপতিত্ব করেন ইউনিভার্সিটি অব মালয়েশিয়া সাবা এর অধ্যাপক ড. আজওয়ান এবং সভা পরিচালনা করেন বাকৃবির প্রফেসর ড.মো আলমগীর হোসেন।

দ্বিতীয়বারের মতো আয়োজিত এই সম্মেলনে দেশি-বিদেশি গবেষকদের ১৭৭টি প্রবন্ধ, ১০টি সেশন ও পোস্টার সেশন উপস্থাপিত হয়েছে।বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় ও ইউনিভার্সিটি মালয়েশিয়ার যৌথ উদ্যোগে সম্মেলনটিতে ২৪ জন বিদেশি গবেষকসহ ২শতাধীক সনামধন্য কৃষি বিজ্ঞাণীগণ অংশ নিয়েছে।

সম্মেলনের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিষয়ক মন্ত্রী ইয়াফেস ওসমান। বিশেষ অতিথি ছিলেন বাংলাদেশ পরিকল্পনা কমিশনের সদস্য (সিনিয়র সচিব) অধ্যাপক ড. শামসুল আলম। সম্মেলনটির প্রধান পৃষ্ঠপোষক বাকৃবির উপাচার্য অধ্যাপক ড. লুৎফুল হাসান। তা ছাড়া সম্মেলনে মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করবেন এসিআই অ্যাগ্রি-বিজনেসের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও সিইও ড. এফ এইচ আনসারি।বাউরেস পরিচালক প্রফেসর ড.এমএএম ইয়াহিয়া খন্দকারের সভাপতিত্বে সম্মেলনে আরও বক্তব্য রাখেন বাউরেস এর সহযোগী পরিচালক প্রফেসর ড.মুহাম্মদ মাহফুজুল হক ও সম্মেলন আয়োজন কমিটির সদস্য-সচিব প্রফেসর ড. মোঃ আলমগরীর হোসেন।

এ সম্মেলনের মাধ্যমে বাকৃবি ক্যাম্পাস স্থানীয় ও আন্তর্জাতিক কৃষি বিজ্ঞানীদের একটি মিলনমেলা পরিনত হয়। সম্মেলনকে কেন্দ্র করে তারা কৃষি বিজ্ঞানের বিভিন্ন ক্ষেত্রের সর্বাধুনিক ও যুগোপযোগী জ্ঞান এবং প্রযুক্তির বিষয়ে মত বিনিময়ের সুযোগ পাবে। এ সম্মেলনের মাধ্যমে নিরাপদ খাদ্য নিশ্চিতকরণে আগামী দিনের চ্যালেঞ্জ মোকাবিলায় জলবায়ু সহিষ্ণু খড়া-বন্যা সহনীয় কৃষি প্রযুক্তি উদ্ভাবনে একসঙ্গে কাজ করার সুযোগ পাবে।

দুই দিন ব্যাপী সম্মেলনের শেষ দিনে দেশি-বিদেশি গবেষকগণ বাউ জার্মপ্লাজম সেন্টার,বোটানিক্যাল গার্ডেনসহ বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন নৈসর্গিক সৌন্দর্য উপভোগ করেছেন।

পরে সর্ব সম্মতিতে এক বছর অন্তর অন্তর এধরনের কনফারেন্স আয়োজনে সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়। পরবর্তী কনফারেন্স ভ্যানু নেপালকে প্রাথমিকভাবে নির্বাচন করা হয়।

এছাড়াও সবার সম্মতিতে ‘রিজিওনাল নেটওয়ার্ক ফর সাসটেইনেবল এগ্রিকালচার’ (রেনসা) নামে নতুন একটি সোসাইটি গঠন করা হয়। সোসাইটির ওয়েবপেজ তৈরির সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়। ,

Comments

comments