জাপানের সেরা তরুন বিজ্ঞানী নিয়ে মিথ্যাচার ও গণমাধ্যমের ভূমিকা

নাদিম মাহমুদ, জাপান থেকে

দেশের বিভিন্ন গণমাধ্যমে সাম্প্রতিক প্রকাশিত এক খবরে জানা যায় ‘এবার জাপানের সেরা তরুন বিজ্ঞানী নির্বাচিত হয়েছেন মো. আরিফ হোসেন। গত ২৪ অক্টোবর জাপানিজ সোসাইটি ফর ইনহ্যারিটেড মেটাবোলিক ডিজিজের ৬১তম বার্ষিক সম্মেলনে জাপানের জিকেই বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষক আরিফ হোসেন ‘সেরা তরুন বিজ্ঞানী’ হিসেবে যে স্ব-ঘোষিত ঘোষণাটির পর দেশের গণমাধ্যমে সংবাদটি প্রকাশের হিড়িক পড়ে গিয়েছে। তবে এই পুরস্কারের রহস্য উম্মোচন করতে গিয়ে বেড়িয়ে আসে অন্যরকম তথ্য।

গত ২৬ অক্টোবর যুগান্তরে তাদের অনলাইন সংস্করে শিরোনাম করেছিল ‘ জাপানের সেরা তরুণ বিজ্ঞানী হলেন বাংলাদেশের ডা. আরিফ , যে খবরটিতে বলা হচ্ছে, এ বছরের জাপানের সেরা তরুণ বিজ্ঞানী হিসেবে নির্বাচিত হয়েছেন বাংলাদেশের ডা. আরিফ হোসেন। জাপান মেডিকেল সায়েন্সের ইতিহাসে এটি একটি অবিস্মরণীয় ঘটনা। ৬১ বছরের ইতিহাসে এই প্রথম কোন নন-জাপানিজকে এ গৌরবময় পুরস্কারের জন্য নির্বাচন করা হলো।

প্রায় একই ধরনের শিরোনামে দৈনিক বাংলাদেশ প্রতিদিন জাপানের সেরা তরুণ বিজ্ঞানী নির্বাচিত হলেন ডা. আরিফ হোসেন খবর প্রকাশ করলেও তারা ২ নভেম্বর একটি বিশেষ প্রতিবেদন জাপানের সেরা বিজ্ঞানী বাংলাদেশের আরিফ যেখানে তারা বলচেন, লাইসোসোমাল রোগের চিকিৎসাব্যবস্থা উদ্ভাবনের জন্য এ বছর জাপানের সেরা তরুণ বিজ্ঞানী হিসেবে নির্বাচিত হন ডা. আরিফ হোসেন। এ সংস্থাটি প্রতি বছর সেরা জাপানিজ তরুণ বিজ্ঞানী নির্বাচন করে।

একই তথ্য দিয়ে দৈনিক সমকাল গত ২৮ অক্টোবর শেষের পাতায় প্রথম কলামে জাপানের সেরা তরুন বিজ্ঞানী গোপালগঞ্জের ডা আরিফ খবর ছাপে। গত ৯ নভেম্বর কালের কণ্ঠ ও তাকে নিয়ে বড় স্টোরি করেছে। এছাড়া চ্যানেল আইসহ বিভিন্ন অনলাইন পোর্টাল সেরা বিজ্ঞানীকে নিয়ে সংবাদ করেছে।

এই বিষয়টি নিয়ে বার্তা সংস্থা ইউএনবির রাজশাহী প্রতিনিধির করা এক প্রতিবেদন প্রকাশ করে ইংরেজি দৈনিক ঢাকা টিব্রিউন, ডেইলি স্টার, ডেইলি সান, প্রথম আলো (ইংরেজি সংস্করণ) Bangladeshi researcher best young scientist in Japan শিরোনামে খবর প্রকাশ করেছে। যে খবরগুলোতে বলা হয়েছে, Arif Hossain, a Bangladeshi national doing his PhD in Japan, has been recognised as the best young scientist of the far-eastern country.

এমনকি মুঠোফোন কোম্পানি (গ্রামীণফোন) ফেইসবুকে আরিফ হোসন অভিনন্দন জানিয়ে একটি স্টিকারও শেয়ার করা হয়।

পত্রিকার শিরোনাম ও খবরের মিছিল দেখে যে কারও মনে হতেই পারে আরিফ হোসেনকে ধরা যেতে পারে জাপানের সেরা তরুন বিজ্ঞানী। কিন্তু অসততার আশ্রয় নিয়ে স্ব-ঘোষিত সেরা বিজ্ঞানী বনে যাওয়া এই গবেষক গত ২৪ অক্টোবর জাপানিজ সোসাইটি ফর ইনহ্যারিটেড মেটাবোলিক ডিজিজের ৬১তম বার্ষিক সম্মেলনে যে পুরস্কারটি গ্রহণ করেছেন সেই পুরস্কারে আসলে কি লেখা আছে, পাঠক আসুন একটু জেনে নিই।

পুরস্কারের শুরুতে জাপানিজ ভাষায় লেখা হয়েছে ‘নিহন সেনতেন তাইশো ইজো গাক্কাই শোরেশো’ এর অর্থ হলো জাপানিজ সোসাইটি ফর ইনহ্যারিটেড মেটাবোলিক ডিজিজের পুরস্কার’।

দ্বিতীয় ও তৃতীয় প্যারায় প্যারায় লেখা হয়েছে নোশিনকে নিক্কোন কেনকিউজো হুজোকো। সেনতান ইডিও কেনকিউ সেন্টার ইদেন বিজ্জও টিরিও কেনকিউশো হোসেন মুহাম্মদ আরিফ, কিদেননো লাইসোসোমরিও নো বিউতাইসা নানাবিনি রিরিওনি কাইসুরো কেনকিওয়া লাইসোম বিউনো বুংয়া নিউইতে হিজোনি জোইয়োনা কেনকিউ দে আয়ারি কোনগোনো হাতেনগা কিতাই সারেমাস। – এর অর্থ হলো আডভান্সড মেডিকেল স্টাডি সেন্টারের জেনিটিক রিসার্স ইনস্টিটিউট পক্ষ থেকে মুহাম্মদ আরিফ হোসেন আপনি লাইসোসোম কেন্দ্রিক রোগের মেটাবোলিক ও থেরাপি নিয়ে কাজ করেছেন। আপনার গবেষণা খুবই গুরুত্বপূর্ণ যা ভবিষ্যতে আপনার কাছ থেকে আরো ভাল কিছু প্রত্যাশা করি।

এই স্মারকের সর্বশেষ লাইনে বলা হয়েছে, ইউতো কোকোনি নিহন সেনতেন তাইশো ইজোও গাক্কাই সোরেশোও জিও ইতাশিমাস। যার বাংলা অর্থ দাঁড়ায়, আর এইজন্য আপনাকে এই পুরস্কার দেয়া হলো। এই স্মারকের কোন শব্দে বা বাক্য ‘জাপানের সেরা তরুন বিজ্ঞানী’ শব্দটি উল্লেখ করা নেই। এমনকি কোথাও বলা হয়নি, আরিফ হোসেন প্রথম নন-জাপানিজ যে কিনা ৬১ বছরের ইতিহাসে প্রথম এই পুরস্কার পেয়েছেন।

কিন্তু চতুরতার আশ্রয় নিয়েছেন আরিফ হোসেন। স্মারকটিতে জাপানিজ ভাষায় লেখায় আমরা বাঙালিরা হয়তো বিষয়টি বুঝতেই পারিনি। এমনকি সোসাইটির ওয়েব সাইটটি জাপানিজ সংস্করণে হওয়ায় কেউ সঠিক তথ্য পাবে না। এই কৌশলে রাজশাহী মেডিকেল কলেজের সাবেক এই শিক্ষার্থী সফলও হয়েছেন। কিন্তু পাঠকদের জন্য জাপানিজ ভাষাটি ভাষান্তর করে দেওয়া হয়েছে।

বিষয়টি জানতে গত ২৮ অক্টোবর জাপানিজ সোসাইটি ফর ইনহেরিটেড মেটাবোলিক ডিজিসস (জেএসআইএমডি) প্রেসিডেন্ট এর সাথে যোগাযোগ করা হলে তার পক্ষ থেকে সোসাইটিটির প্রেসিডেন্ট অধ্যাপক হিরোইউকি ইডা আমাদের বিস্তারিত তথ্য দেন।  আরিফ হোসেন জাপানের সেরা তরুন বিজ্ঞানী হিসেবে নির্বাচিত হয়েছেন কী না এমন প্রশ্নের উত্তরে জিকেই বিশ্ববিদ্যালয়ের এই প্রেডিয়াট্রিকস বিভাগের সভাপতি বলেন, এই পুরস্কারের কোন ইংরেজি নাম নেই। তরুণ গবেষকরা যাতে আরো বেশি ভালো করতে পারে তার জন্য আমরা ‘উৎসাহ পুরস্কার’ দিই। লাইসোসোমাল সংরক্ষণে যে রোগ হয় তা গবেষণার আরিফ হোসেনকে এই পুরস্কার দেয়া হয়েছে। এটি কোন বর্ষ সেরা তরুন বিজ্ঞানী পুরস্কার নয় বলে তিনি দাবি করেছেন।

জাপানে যারা পড়াশুনা করছেন, সায়েন্টিফিক কমিউনিটিগুলো সব সময় যে সব কনফারেন্স সিম্পোজিয়ামের আয়োজন করে সেখানে পুরস্কারের ব্যবস্থা রাখা হয়। মূলত যারা গবেষণায় ভাল করছে, ওরাল ও পোস্টারে ভাল করেছে তাদেরকে পুরস্কিত করা হয়। প্রায় প্রতিটি গবেষক কমিউনিটি বা সোসাইটির পুরস্কার পেয়ে থাকেন। আর ডা. আরিফ হোসেন যে পুরস্কারটি পেয়েছেন সেটিও এই ধরনের পুরস্কার।

এখানে আরিফ হোসেনের পুরস্কারকে ছোট করে দেখার বিষয় নয়। নিশ্চয় এই ধরনের পুরস্কার অবশ্যই সম্মানের। কিন্তু বিষয়টি হলো, যে পুরস্কারকে ‘বর্ষ সেরা’ পুরস্কার দাবি করা হয়, সেটি নেহাত মিথ্যাচার নয় কি? বিভিন্ন গণমাধ্যমের খবরে এমনও বলা হয়েছে, ৬১ বছরের ইতিহাসে তিনি প্রথম কোন নন-জাপানিজ যাকে এই পুরস্কারটি দেয়া হয়েছে।

বিষয়টি নিয়ে কথা হলে আরিফ হোসেন বলেন, এটি কোন প্রতিযোগিতামূলক পুরস্কার নয়। একুশে পদক যেভাবে সিলেকশন করা হয় সেই উদাহরণ দিয়ে তিনি বলেন, পৃথিবীর কেউ সেরা বিজ্ঞানী নয়। নোবেলজয়ী জাপানি অধ্যাপক ইয়ামানাকা কি পৃথিবীর সেরা বিজ্ঞানী? উৎসাহমূলক পুরস্কারকে কেন বর্ষ সেরা তরুন বিজ্ঞানী হিসেবে গণমাধ্যমে তথ্য দিয়েছেন জানতে চাইলে তিনি বারবার এড়িয়ে যান।

৬১ বছরের ইতিহাসে প্রথম কোন বিদেশীকে এই পুরস্কার দেয়া হয়েছে বলে প্রচার করেছেন আরিফ হোসেন। কিন্তু জাপানিজ সোসাইটি ফর ইনহেরিটেড মেটাবোলিক ডিজিসস (জেএসআইএমডি) বলছেন পুরস্কারটি শুরু হয়েছিল প্রায় ৩৫ বছর আগে যেখানে ২ জন চীনা গবেষককে এই পুরস্কারের আওয়াতায় আনা হয়েছে বলে জানা যায়। খোদ গত বছরই একজনকে এই পুরস্কার দেয়া হয়েছে যে কিনা চীনের যা জেএসআইএমডির ওয়েব সাইটই বলছে।

উৎসাহমূলক পুরস্কারকে আপনি কেন বর্ষ সেরা তরুন বিজ্ঞানী হিসেবে দাবি করেছেন এমন প্রশ্নের জবাবে আরিফ হোসেন কোন  উত্তর দিতে পারেননি।

আশাকরি, গণমাধ্যমগুলো সামনের দিনগুলোতে আরো বেশি দায়িত্বশীলতার পরিচয় দিবে। প্রবাসে বাঙালিদের ছোট-বড় প্রাপ্তিগুলোকে যাচাই বাচাই সাপেক্ষ্যে তুলে ধরবে এই প্রত্যাশা সকলের।

(Visited 1 times, 1 visits today)