সুন্দরবনের বাঘ রক্ষায় আসছে ‘টাইগার ক্যারাভ্যান’

নিজস্ব প্রতিবেদক:
সুন্দরবনের জীববৈচিত্র্য সুরক্ষা ও বাঘ রক্ষায় দেশব্যাপী সকল শ্রেণি-পেশার মানুষের মধ্যে সচেতনতা সৃষ্টির লক্ষ্যে দু’বছরব্যাপী ‘জাতীয় পর্যায়ে জনসচেতনতা কার্যক্রম’-এর আনুষ্ঠানিক যাত্রা শুরু হতে যাচ্ছে আগামী ১১ ফেব্রুয়ারি।

এই কার্যক্রমের অংশ হিসেবে ‘টাইগার ক্যারাভ্যান’ নামক উচ্চপ্রযুক্তি সম্পন্ন একটি বাস দেশের বিভিন্ন স্থানে সুন্দরবন ও বাঘ বিষয়ক প্রদর্শনীতে অংশ নিবে। বাঘ ও সুন্দরবন নিয়ে একটি ভ্রাম্যমান প্রদর্শনী হিসেবে এই ‘টাইগার ক্যারাভ্যান’ সারা দেশের ১০০টি স্থানে হাজির হয়ে বাঘ সুরক্ষা বিষয়ক বিভিন্ন প্রদর্শনী, পথনাটক এবং অন্যান্য আয়োজনের মধ্যে দিয়ে এ বিষয়ে মানুষের মধ্যে সচেতনতা বৃদ্ধির লক্ষ্যে কাজ করবে।

গতকাল রাজধানীর ডেইলি স্টার কনফারেন্স হলে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে বক্তারা জানান, এই উদ্যোগটি ইউএসএইড-এর বাঘ সংরক্ষণ প্রকল্পের একটি অংশ। যুক্তরাষ্ট্রের আন্তর্জাতিক উন্নয়ন সংস্থা (ইউএসএইড) এবং বাংলাদেশ সরকারের বন বিভাগের যৌথ উদ্যোগে পরিচালিত এই প্রকল্পটির লক্ষ্য হলো মহাবিপন্ন বাঘ সংরক্ষণ এবং এর আবাসস্থল সুন্দরবনের জীববৈচিত্র্যের সুরক্ষা নিশ্চিত করা।

সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন জনাব মো. ইউনুস আলী, প্রধান বন সংরক্ষক (সিসিএফ), বাংলাদেশ বন বিভাগ; জনাব জহির উদ্দিন আহমেদ, বন সংরক্ষক, খুলনা সার্কেল ও প্রকল্প পরিচালক, ইউএসএইড-এর বাঘ সংরক্ষণ প্রকল্প; ড. কার্ল উরস্টার, ডেপুটি ডিরেক্টর ইকোনমিক গ্রোথ অ্যান্ড এনভায়রনমেন্ট অ্যান্ড এনার্জি টিম লিডার, ইউএসএইড বাংলাদেশ; অধ্যাপক ড. মো. আনোয়ারুল ইসলাম, প্রধান নির্বাহী, ওয়াইল্ডটিম; জনাব ইকবাল হোসাইন, প্রোগ্রাম অ্যান্ড পার্টনারশিপ স্পেশালিষ্ট এবং জনাব মো. নাসির উদ্দিন, কমিউনিকেশন স্পেশালিস্ট, ইউএসএইড-এর বাঘ সংরক্ষণ প্রকল্প।

রাজধানীর কৃষিবিদ ইনস্টিটিউট মিলনায়তনে আয়োজিত এক অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে বন ও পরিবেশ মন্ত্রী আনোয়ার হোসেন মঞ্জু এই জনসচেতনতা কার্যক্রমের আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করবেন বলে প্রকল্প সংশ্লিষ্টরা জানান। এই জনসচেতনতা কার্যক্রমের উদ্বোধন উপলক্ষ্যে দুই দিনব্যাপী অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হবে বলে সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয়। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের চারুকলা প্রাঙ্গণে শিশুদের চিত্রাঙ্কণ প্রতিযোগিতা, বাঘকে প্রতিপাদ্য করে বিভিন্ন স্টলের প্রদর্শনী এবং লোকসংগীতের অনুষ্ঠানসহ সকাল ৮টা থেকে রাত ৮টা পর্যন্ত বিভিন্ন আয়োজন থাকবে উদ্বোধনী অনুষ্ঠানের দ্বিতীয় দিনে।

কৃষিবিদ ইনস্টিটিউটে আয়োজিত উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে অন্যান্যদের মধ্যে আরও উপস্থিত থাকবেন বন ও পরিবেশ মন্ত্রণালয়ের মাননীয় সচিব ড. কামাল উদ্দিন আহমেদ, জনাব মো. ইউনুস আলী, প্রধান বন সংরক্ষক (সিসিএফ), বাংলাদেশ বন বিভাগ, অধ্যাপক ড. মো. আনোয়ারুল ইসলাম, প্রধান নির্বাহী, ওয়াইল্ডটিম এবং গ্যারি কলিনস, চিফ অব পার্টি, ইউএসএইড-এর বাঘ সংরক্ষণ প্রকল্প। জনসচেতনতা কার্যক্রমের আনুষ্ঠানিক উদ্বোধনের আগে মন্ত্রীসহ অন্যান্য অতিথিরা ‘টাইগার টক’ শীর্ষক একটি আলোচনায় অংশ নেবেন।

চার বছর মেয়াদী এই প্রকল্প বাস্তবায়নে মূল সংস্থা হিসেবে কাজ করছে বাংলাদেশের জীববৈচিত্র্য সুরক্ষায় ২০০৩ সাল থেকে কর্মরত বেসরকারি সংস্থা ওয়াইল্ডটিম। সহযোগী সংস্থা হিসেবে এই প্রকল্পে কারিগরি সহযোগিতা দিচ্ছে যুক্তরাষ্ট্রভিত্তিক স্মিথসোনিয়ান ইন্সটিটিউশন এবং বাংলাদেশ সেন্টার ফর অ্যাডভান্সড স্টাডিজ।

সংবাদ সম্মেলনে বক্তারা আরও জানান দেশব্যাপী জনসচেতনতা কার্যক্রমের অংশ হিসেবে ‘বাঘ আমাদের গর্ব-বাঘ সুরক্ষা করবো’ এই স্লোগানকে সামনে রেখে ‘টাইগার ক্যারাভ্যান’ বিভিন্ন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ব্যবহার করে দেশের শিক্ষিত জনগোষ্ঠী ও তরুণ সমাজকে বাঘ সুরক্ষায় আরও সম্পৃক্ত করবে।

উল্লেখ্য, বনভূমি ধ্বংস, অবৈধ বন্যপ্রাণি শিকার, বনজ সম্পদের ওপর অতিরিক্ত নির্ভরশীলতা এবং আরও নানাবিধ কারণে সরকারি হিসাব মতে সুন্দরবনের বাঘের সংখ্যা কমে মাত্র ১০৬-তে এসে দাঁড়িয়েছে।

Comments

comments