ক্ষতি হয়েছে ৩শ’ কোটির টাকার আম

নিউজ ডেস্কঃ

একের পর এক ঝড়ের তাণ্ডবে বৃহত্তর রাজশাহী অঞ্চলের আম বাগানগুলো থেকে অনেক আম ঝরে পড়ায় চিন্তিত বাগান মালিকরা।

ঘূর্ণিঝড় আম্পান ও বুধবারের (২৭ মে) কালবৈশাখী ঝড়ে প্রায় ৫ থেকে ১৫ ভাগ আম নষ্ট হয়েছে বলে জানান ফল গবেষণার সাথে জড়িত কর্মকর্তারা।

কৃষি বিভাগের দায়িত্বশীল কর্মকর্তারা বলছেন, এখনও যে পরিমাণ আম বাগানগুলোতে আছে তা সঠিকভাবে পরিচর্যা করে বাজারজাত করলে ভালো দাম পাবে বাগান মালিকরা।

বৃহত্তর রাজশাহী অঞ্চলের বাগানগুলোতে এবার আমের মুকুল কিছুটা কম এসেছিল। সে অনুযায়ী আমের উৎপাদনও কম হয়েছে। তার ওপর ঘূর্ণিঝড় আম্পানের আঘাতে বহু গাছ উপড়ে পড়ে, ভেঙেছে ডালপালা।

সবশেষ গতরাতের কালবৈশাখী ঝড়ে বেশকিছু আম পড়ে গেছে। এমনিতেই করোনা ভাইরাসের কারণে আম বাজারজাত করা নিয়ে দুশ্চিন্তায় আছেন বাগান মালিকরা। তার উপর একের পর এক ঝড়ে ক্ষতিগ্রস্ত বাগান মালিকরা।

ফল গবেষণা কেন্দ্র রাজশাহী প্রধান বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা ড. আলিম উদ্দিন বলেন, ‘১৫ শতাংশ আম ঝরে পড়েছে।’

এমন পরিস্থিতিতে ক্ষতিগ্রস্ত বাগান মালিকদের সরকারি প্রণোদনার আওতায় আনার দাবি জানান রাজশাহী চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রি সচিব গোলাম জাকির হোসেন।

কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর রাজশাহী অঞ্চল অতিরিক্ত পরিচালক সুধীন্দ্রনাথ রায় বলেন, এখনো বাগানগুলোতে যে পরিমাণ আম আছে তা সঠিকভাবে পরিচর্যা ও বাজারজাত করতে পারলে ভালো দাম পাবে বাগান মালিকরা।

কৃষি বিভাগের দেয়া তথ্য অনুযায়ী, রাজশাহী চাঁপাইনবাবগঞ্জ, নাটোর ও নওগাঁয় যে পরিমাণ আম ঝরে পড়েছে তার আনুমানিক বাজার মূল্য প্রায় তিনশো কোটি টাকা।

  •  
  •  
  •  
  •