দক্ষিণ আফ্রিকার ভুট্টা উৎপাদন রেকর্ড অবস্থান থেকে কমছে

নিউজ ডেস্কঃ

আগের মৌসুমে ইতিহাসের দ্বিতীয় সর্বোচ্চ উৎপাদনের রেকর্ড করেছিলেন দক্ষিণ আফ্রিকার ভুট্টা চাষীরা। বাম্পার ফলনে ফুলে-ফেঁপে উঠেছিল দেশটির ভুট্টা উৎপাদন ও রফতানি খাত। তবে বছর ঘুরতেই বদলে যাচ্ছে পরিস্থিতি। এবারের মৌসুমে দেশটিতে কৃষিপণ্যটির উৎপাদন রেকর্ড অবস্থান থেকে এক-পঞ্চমাংশের বেশি কমে যেতে পারে। মার্কিন কৃষি বিভাগের (ইউএসডিএ) গ্লোবাল এগ্রিকালচারাল ইনফরমেশন নেটওয়ার্ক প্রতিবেদনে এ সম্ভাবনার কথা বলা হয়েছে। খবর রয়টার্স ও এগ্রিমানি।

ইউএসডিএর প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, চলতি ২০২০-২১ মৌসুমে দক্ষিণ আফ্রিকায় সব মিলিয়ে ১ কোটি ২৬ লাখ টন ভুট্টা উৎপাদনের সম্ভাবনা রয়েছে। ২০১৯-২০ মৌসুমে দেশটির ইতিহাসে ভুট্টা উৎপাদনের দ্বিতীয় সর্বোচ্চ রেকর্ড হয়েছিল। সেই অবস্থান থেকে এবারের মৌসুমে কৃষিপণ্যটির উৎপাদন এক-পঞ্চমাংশের বেশি বা ২১ শতাংশ কমে যেতে পারে।

এবারের মৌসুমে দক্ষিণ আফ্রিকায় ভুট্টা উৎপাদন কমে যাওয়ার পেছনে প্রভাবক হিসেবে কাজ করেছে গত মৌসুমে কৃষিপণ্যটির বাম্পার ফলন। ইউএসডিএ বলছে, বাম্পার ফলনের জের ধরে আগের মৌসুমে উৎপাদিত ভুট্টা বিক্রিতে সমস্যা তৈরি হয়েছিল। অনেক কৃষক ভুট্টার পর্যাপ্ত দাম পাননি। অনেকের কাছে এখনো ভুট্টার মজুদ রয়ে গেছে। বাড়তি মজুদ ও দরপতনের জের ধরে এবারের মৌসুমে দক্ষিণ আফ্রিকার কৃষকরা ভুট্টা আবাদে আগ্রহ হারিয়ে ফেলেছেন। এ কারণে ২০২০-২১ মৌসুমে দেশটিতে কৃষিপণ্যটির উৎপাদন রেকর্ড অবস্থান থেকে কমে আসছে।

প্রতিবেদনের তথ্য অনুযায়ী, চলতি ২০২০-২১ মৌসুমে দক্ষিণ আফ্রিকায় সব মিলিয়ে ২৩ লাখ হেক্টর জমিতে ভুট্টা আবাদ হয়েছে। ২০১৯-২০ মৌসুমের তুলনায় এবার দেশটিতে ভুট্টা আবাদের আওতায় জমির ব্যবহার ১১ শতাংশ কমে এসেছে।

ভুট্টা উৎপাদনকারী দেশগুলোর বৈশ্বিক শীর্ষ তালিকায় দক্ষিণ আফ্রিকা ১১তম অবস্থানে রয়েছে। কৃষিপণ্যটির রফতানিকারকদের তালিকায় দেশটির অবস্থান নবম। ২০১৯-২০ মৌসুমে দেশটি থেকে ২৫ লাখ টন ভুট্টা রফতানির তথ্য দিয়েছে ইউএসডিএ। আর চলতি বছরের শুরু থেকে এখন পর্যন্ত দক্ষিণ আফ্রিকান রফতানিকারকরা মোট ছয় লাখ টন ভুট্টা রফতানি করেছেন। এর মধ্যে সবচেয়ে বেশি ভুট্টা রফতানি হয়েছে আফ্রিকার আরেক দেশ জিম্বাবুয়েতে। এবারের মৌসুমেও দক্ষিণ আফ্রিকা থেকে একই পরিমাণ ভুট্টা রফতানির সম্ভাবনা দেখছে প্রতিষ্ঠানটি।

  •  
  •  
  •  
  •