শর্ষে ফুলে, মিষ্টি মধু

নিউজ ডেস্কঃ

সিরাজগঞ্জের যমুনাতীরের চরগুলোতে যেদিকে তাকাবেন, কেবল হলুদ শর্ষের ফুলই চোখে পড়বে। সব খেতের পাশেই বসানো হয়েছে সারি সারি মৌবাক্স। শর্ষে ফুলের ম-ম গন্ধে ভরা খেতগুলোতে এখন দিনভর গুনগুন গুঞ্জন তুলে ওড়াউড়ি করে মৌমাছিরা। মৌবাক্সের পরিচর্যা আর মধু আহরণে তুমুল ব্যস্ত চাষিরা। রায়গঞ্জ উপজেলার নলকা ইউনিয়নের বোয়ালিয়ার বিলে গিয়ে গত সপ্তাহে এমন দৃশ্য চোখে পড়ে। স্থানীয়রা ছাড়াও এই মৌচাষিদের কাছ থেকে দেশি-বিদেশি কয়েকটি কোম্পানিও সরাসরি খেতে এসে মধু কিনছে।

শর্ষের ফলন ভালো হলে মধুও ভালো হয় বা উল্টো করেও বলা যায়, ভালো ফলনে মৌমাছিরাও বিশেষ ভূমিকা রাখে। সিরাজগঞ্জ জেলা কৃষি সম্প্রসারণ দপ্তরের হিসাব অনুযায়ী চলতি মৌসুমে জেলায় শর্ষে আবাদ হয়েছে ৪৯ হাজার ৫৫০ হেক্টর জমিতে। এবার শর্ষের বাম্পার ফলন আশা করা হচ্ছে। আর চলতি মৌসুমে জেলায় ২ লাখ ২০ হাজার কেজি মধু আহরণের আশা করা হচ্ছে। গত মৌসুমে আহরণ করা মধুর পরিমাণ ছিল ২ লাখ ১০ হাজার কেজি। চলতি মৌসুমের ২৯ ডিসেম্বর পর্যন্ত ২১ হাজার ৩৪৭ কেজি মধু আহরণ করা হয়েছে।

সূত্রগুলো জানায়, সিরাজগঞ্জে ৩৩৬টি মৌ খামার রয়েছে। প্রতিটি খামারের ১৫০ থেকে ৩০০টি পর্যন্ত মৌবাক্স রয়েছে। গত সপ্তাহে বোয়ালিয়ার বিলে গিয়ে দেখা যায়, মৌচাষিদের কেউ বাক্স থেকে মধু বের করছেন আবার কেউ বাক্স ঠিক করে দিচ্ছেন, কেউ ড্রামে মধু ভরছেন। খেত থেকে প্রতি কেজি মধু ৩০০ থেকে ৩৫০ টাকায় বিক্রি করছেন তাঁরা।

মধু ব্যবসায়ী শহিদুল ইসলাম বলেন, প্রতিবছরের মতো এবারও বোয়ালিয়ার বিলে শর্ষের মধুর জন্য ১৫০টি মৌবাক্স স্থাপন করা হয়েছে। পাঁচ থেকে সাত দিন পরপর মধু আহরণ করা হয়। তাঁরা ১০-১২ জন পালা করে কাজ করেন।

 

মৌচাষি শাহ আলম বিদেশি কোম্পানির কাছেও মধু বিক্রি করেন। তিনি বলেন, বোয়ালিয়ার চর এলাকায় ২০০টি মৌবাক্স বসিয়েছেন। চলতি মৌসুমে প্রায় দুই টন মধু আহরণের আশা করছেন তিনি। তাঁর কাছ থেকে দেশের কয়েকটি কোম্পানি মধু সংগ্রহ করে। এ ছাড়া বিদেশি কোম্পানির জন্যও তিনি মধু সরবরাহ করেন।

শুধু রায়গঞ্জ নয়, সিরাজগঞ্জের বেলকুচি, চৌহালী, উল্লাপাড়া, শাহজাদপুরসহ বিভিন্ন উপজেলায় শর্ষেখেতে চলছে মধু আহরণ। যমুনাতীরের চরাঞ্চলসহ এসব উপজেলায় শর্ষে ভালো হয়। খেতগুলো স্থানীয়দের হলেও মধু আহরণের জন্য দিনাজপুর, সাতক্ষীরা, মাগুরা, নাটোরসহ বিভিন্ন স্থান থেকে মৌ খামারিরা এখানে এসে আস্তানা গেড়েছেন। দিনাজপুরের ভাই ভাই আদর্শ মৌ খামারের মালিক মিনারুল ইসলাম বলেন, এবার শর্ষের ফলন ভালো হওয়ায় এ অঞ্চলে মধু আহরণের লক্ষ্যমাত্রা অর্জিত হবে বলে আশা করা হচ্ছে।

পাবনা থেকে আসা মৌচাষি আশরাফুল ইসলাম বলেন, দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে মধু সংগ্রহ করতে আসেন পাইকারি ব্যবসায়ীরা। তবে মধু সংরক্ষণ, প্রক্রিয়াজাতকরণ ও বাজারজাতকরণের সঠিক ব্যবস্থা নিশ্চিত করা হলে আরও ভালো দাম পাওয়া যাবে।

মৌচাষিরা বললেন, দেশি কোম্পানির মধ্যে এপি, স্কয়ারের প্রতিনিধিরা তাঁদের কাছ থেকে মধু কেনে। এ ছাড়া ভারতে ডাবর কোম্পানির লোকজনও কয়েক বছর ধরে মধু কিনছে। সিরাজগঞ্জের উল্লাপাড়ায় একটি মধু প্রক্রিয়াকরণ কারখানা হয়েছে। মধু প্রক্রিয়াজাত করা হলে এতে যে গন্ধ থাকে, সেটা কমে যায়। স্বাদ ও গাঢ়ত্বেও পরিবর্তন আনা যায়। প্রক্রিয়াকরণের আরও কিছু কারখানা হলে মৌচাষিরা প্রক্রিয়াজাত মধু বিক্রি করে আরও ভালো দাম পাবেন।

মাঠে মধু কিনতে আসা আবদুর রহিমের সঙ্গে কথা হলো। তিনি বলেন, প্রতিবছরই তিনি মাঠ থেকে মধু সংগ্রহ করে সারা বছর বিক্রি করেন।

খেত থেকে মধু কিনতে আসা কয়েকজন জানান, ঢাকার খোলাবাজারে তাঁরা সাত থেকে সাড়ে সাত শ টাকা কেজি মধু বেচতে পারেন। এ বছর অনলাইনে প্রচুর মধু বিক্রি হচ্ছে।

সিরাজগঞ্জ জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপপরিচালক মো. আবু হানিফ বলেন, সরকার শর্ষে চাষে বীজ ও সার প্রণোদনা দেয়। ফলে কৃষকেরা চাষে আরও বেশি আগ্রহী হচ্ছেন। এই মৌবাক্সের মধু থেকে মৌচাষিরা বাড়তি আয় করেন। খেতে মৌবাক্স স্থাপনে মৌমাছির পরাগায়নের মাধ্যমে ফসলের ১০ শতাংশ ফলন বেশি হয়। এখানকার মধু বিভিন্ন কোম্পানির পাশাপাশি স্থানীয় বাজারেও বিক্রি হয়।

  •  
  •  
  •  
  •