লিচুর অধিক ফলন পেতে করণীয়

নিউজ ডেস্কঃ

কৃষিবিদ ড. এম এ মজিদ মন্ডল: দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার ফলসমুহের মধ্যে লিচু অন্যতম। লিচু সাধারণত উষ্ণ ও অবষ্ণোমন্ডলীয় অঞ্চলের স্বার্থকভাবে জন্মে। চীনের দক্ষিণ অঞ্চলে লিচুর উৎপত্তিস্থল বলে ধারণা করা হয় তবে বাংলাদেশসহ ভারতীয় উপমহাদেশে লিচু সবচেয়ে জনপ্রিয় ফল কারণ এ ফল বৈচিত্র্যপূর্ণ ব্যবহার, পুষ্টিমাণ ও স্বাদে-গন্ধে অতুলনীয়।

বাংলাদেশে প্রায় সব অঞ্চলে লিচু জন্মে কিন্তু দেশের উত্তরাঞ্চলে (বিশেষ করে বৃহত্তর রাজশাহী, দিনাজপুর, রংপুর, পাবনা, কুষ্টিয়া, যশোর প্রভৃতি অঞ্চলে) এর বাণিজ্যিকভাবে ব্যাপক চাষ হয়ে থাকে। লিচু চাষীরা প্রতি বছর অনেক ক্ষতির শিকার হয়ে থাকেন সাধারণত দুই প্রকারের সমস্যার কারণে যথাঃ (অ) প্রাকৃতিক কারণ (যেমন- ঝড়, শিলাবৃষ্টি, খরা প্রভৃতি) এবং (আ) রোগ ও (ই) পোকামাকড় দ্বারা আক্রান্ত হয়ে। সঠিক পরিচর্চা ও রোগ-পোকামাকড় দমন করে প্রথম ক্ষতি আংশিক এবং দ্বিতীয় ও তৃতীয় ক্ষতি প্রায় সম্পূর্ন রুপে সমাধাণ করা সম্ভব। নীচে ইহা পর্যায়ক্রমে আলোচনা করা হল:

ফল না ধরা ও ঝরে পড়ার কারণসমুহঃ (১) লিচু গাছে সাধারণত এক বছর বেশী ধরে এবং পরের বছর কম ধরে (একে অল্টারনেট বিয়ারিং বলে)। (২) কৌলিক গঠন, (৩) গর্ভমুন্ডে নিম্ন পরাহহীনতা, (৪) বর্ধিত ভ্রণের পুষ্টিহীনতা, (৫) একই ছড়ায় অনেক গুলি ফল ধারণ, (৬) সুষম পুষ্টির অভাব, (৭) প্রবল ঝড়, (৮) শিলাবৃষ্টি, (৯) দীঘ সময় খরা, (১০) মাটিতে রসের অভাব, (১১) হরমোনের অসাম্যতা, (১২) রোগ ও (১৩) পোকা-মাকড়ের অক্রমণ ইত্যাদি।

ফলন্ত লিচু গাছের যত পরিচর্যা ও ফল ঝরা রোধ করণঃ (১) সুষম সারের ব্যবহার করতে হবে। একটি ৫-১০ বছরের লিচু গাছে জৈব সার ২৫-৪০ কেজি, ইউরিয়া ৬০০ গ্রাম, টি.এস.পি ৫০০ গ্রাম, এম.পি ২৫০ গ্রাম মিশ্রণ করে তিন ভাগে ভাগ করে প্রতি বছর তিন বার প্রয়োগ করতে হবে (ফেব্রুয়ারী, মে ও আগষ্ট মাসে)। দুপুর বেলা গাছের ছায়া যতটুকু স্থানে পড়ে সেটুকু স্থানে মাটি কুপিয়ে আলগা করে সার প্রয়োগ করতে হবে। গাছে যদি জিংকের অভাব দেখা যায়, অর্থাৎ পাতা যদি তামাটে রং ধারণ করে তবে প্রতি বছর ৫০০ লিটার পানিতে ২ কেজি জলান্বিত চুন ও ৪ কেজি জিংক সালফেট গুলিয়ে বসন্তকালে গাছে ছিটাতে হবে। তবে উপরে উল্লিখিত সারগুলি গাছের বয়স ৫ বছরের নীচে হলে উহার অর্ধেক এবং গাছের বয়স ১০ বছরের বেশী হলে উহার দেড়গুণ সার প্রয়োগ করতে হবে। (২) খরা মৌসুমে গাছে সেচ দিতে হবে। মাটির ধরণ অনুসারে খরার সময় ১০-১৫ দিন পর পর সেচ দিতে হবে। (৩) লিচুর বাগান আগাছা মুক্ত রাখতে হবে। লিচুর শিকড় গভীর ভাবে আমের মত মাটির নীচে প্রবেশ করে না তাই বছরে ৩-৪ বার অগভীর ভাবে চাষ দিলে ভাল হয়। (৪) গাছের গোড়ায় গরু-মহিষ বাঁধানো বা মানুষ চলাচলের পথ রাখা যাবে না। (৫) ফল খুব ছোট থাকা অবস্থায় প্রতি ৪.৫ লিটার পানিতে ১ মিলি প্লানোফিক্্র এক/ দুই বার ¯েপ্র করলে ফল ঝরা বন্ধ হয়। (৬) জিংক সালফেট দ্রবণের সাথে ২,৪-ডি (১৫ পিপিএম) স্প্রে করে ফল ঝরা কমানো যায়।

পোকা দমন

লিচুর মাইটসঃ ইহা লিচুর জন্য সব চেয়ে ক্ষতিকারক মাকড় এর কারণে লিচুর ফলন শুন্যে কাছাকাছি আসতে পারে।

লক্ষণ সমুহঃ (ক) অতি ক্ষুদ্র সাদা রং এর মাইট পাতার পিছনে বাদামি ভেলভেট তৈরী করে বসবাস করে। (খ) এতে পাতা পুরু হয়, দুমড়িয়ে থাকে এবং মারা যায়। (গ) এরা পাতা নীচের দিকে ভক্ষণ করে। (ঘ) সাধারণত মার্চ- জুলাই মাসে এদের আক্রমণ বেশী দেখা যায়।

দমন ব্যবস্থাঃ (১) সালফার (গন্দ্বক) চুর্ণ প্রয়োগ করে এ মাকড় দমন করা যায়। (২) গাছে নুতন পাতা বের হওয়ার সাথে সাথে কেলথেইন ০.১২ % হারে তিন সপ্তাহ পর পর ২-৩ বার ¯েপ্র করতে হবে অথবা ডাইমেথোয়েট ০.০৫% হারে ব্যবহার করা যেতে পারে। (৩) মেটাসিস্টক্স ০.২% হারে ব্যবহার করেও উপকার পাওয়া যায়।

বাকল খেকো পোকাঃ লক্ষণ সমুহঃ (ক) মে-জুন মাসে পূর্ণ বয়স্ক প্রজাপতি গাছের বাকলে ডিম পাড়ে। (খ) ডিম ফুটে লার্ভা বের হয় এবং এগুলি বাকল ভক্ষণ করে, পরে কাণ্ড ছিদ্র করে। (গ) আক্রান্ত ডাল দুর্বল হয় এবং ফল ঝরে পড়ে।

দমন ব্যবস্থাঃ

(১) বাগান পরিস্কার পরিছন্ন রাখতে হবে। (২) ডালের ছিদ্র দিয়ে পেট্টোল ঢেলে বা ফরমালিন ঢেলে এবং পরে মাটি বা মোম দিয়ে গর্তের মুখ বন্ধ করে দিতে হবে।

লিচুর বীজ ছিদ্রকারী পোকাঃ ক্ষতির প্রকৃতিঃ (ক) এ পোকার ক্ষুদ্র কীট ফলের বোটার প্রান্ত দিয়ে বীজের মধ্যে প্রবেশ করে। (খ) এর আক্রমণের ফলে এক ধরণের বাদামী গুড়া (পিপিলিকার মাটির মত) দেখতে পাওয়া যায়। (ঘ) পাকা ফল ক্ষতিগ্রস্ত হয়ে খাওয়ার অযোগ্য হয় এবং বাজার মুল্য কমে যায়। (ঘ) ফল পাকার সময় মেঘলা আকাশ ও বৃষ্টিপাত হলে এ পোকার আক্রমণ বেশী হয়।

দমন ব্যবস্থাঃ (১) ফল সংগ্রহ করার পর অবশিষ্টাংশ পুড়িয়ে ফেলতে হবে। (২) বাগান আগাছা মুক্ত রাখতে হবে এবং ঝোপ-ঝাড় রাখা যাবে না। (৩) এ পোকার আক্রমণ হয়ে গেলে ডাইমেক্রম ১ মিলি প্রতি লিটার (১ লিটার পানিতে) মিশে অথবা ম্যালাথিয়ন ০.১% হারে পানিতে মিশে ফল পুষ্ট হবার ১৫ দিন পূবে স্প্রে করতে হবে।

বাদুড় দমনঃ পোকা-মাকড় ছাড়াও লিচুর অন্যতম আপদ হল বাদুড়। প্রতি বছর এদের আক্রমণে প্রচুর পরিমাণ ফল নষ্ট হয়। এরা ফল পাকা শুরু হলে সাধারণত রাতে ডালে ডালে ঝুলে পাকা ফল খেতে থাকে। বর্তমানে বাদুড়ের মাধ্যমে অনেক প্রকার রোগ ছড়িয়ে পড়ছে, যেমন- নিপা ভাইরাস। তাই বাদুড় তাড়িয়ে ফল রক্ষা ও রোগ থেকে মুক্তি ব্যবস্থা করা অতি প্রয়োজন।

দমন ব্যবস্থাঃ

লিচু পাকার সময় ফল রক্ষার জন্য বিশেষ ব্যবস্থা নিতে হবে। আমাদের দেশে প্রচলিত ও সহজ উপায়সমুহ হলঃ (১) ঢোল ও টিন পিটানো, (২) ফাঁটা বাঁশ ফোটানো, (৩) পটকা ফোটানো, (৪) বাগানের চার পার্শ্বে জাল পেতে, (৫) জাল দিয়ে ফল গাছ ঢেকে রেখে ইত্যাদি।

রোগ দমন

ফল পচা বা ফ্রট রটঃ এ রোগ এক প্রকার ছত্রাক দ্বারা হয়ে থাকে। রোগের লক্ষণ সমুহঃ (ক) প্রথমে ফলের উপর ছিটা ছিটা দাগ পড়ে। (খ) উক্ত দাগ একত্র হয়ে বড় আকার ধারণ করে এবং কালো বর্ণ ধারণ করে। (গ) ফল শুকিয়ে যায় এবং এক পর্যায়ে ঝরে পড়ে।

দমন ব্যবস্থাঃ (১) শুকনো ডালপালা বা অবশিষ্টাংশ পুড়িয়ে ফেলতে হবে। (২) ফলে বোর্দোমিক্সার ও ডাইথেন এম-৪৫ প্রয়োগ করতে হবে।

পোকামাকড় দমন

লিচুর শোষক পোকা/ আমের হপার (Litchu hopper): এই পোকার তিনটি প্রজাতি ক্ষতি করে থাকে। নিন্মে ক্ষতির প্রকৃতি ও দমন ব্যবস্থা দেয়া হল। ক্ষতির প্রকৃতিঃ লিচুর অনিষ্টকারী পোকার মধ্যে এ পোকা সব চেয়ে বেশী ক্ষতিসাধন করে থাকে। লিচুর পাতা ও বোটায় এরা ডিম পাড়ে। এজন্য আক্রান্ত পাতা ও ফুল শুকিয়ে যায় এবং গুটি আসার পূর্বেই ফুল ঝরে য়ায়। এতে ফলন মারাত্মকভাবে কমে যায়। এ পোকার আক্রমণের অন্যতম লক্ষণ হল, আক্রান্ত গাছের নীচে দিয়ে হাঁটলে পোকা লাফিয়ে গায়ে পড়ে।

দমন ব্যবস্থাঃ এ পোকা দমন করতে হলে মুকুল আসার আগে অথবা মুকুল আসার মুহুর্ত থেকে নিম্নলিখিত কীটনাশক স্প্রে  করতে হবেঃ ডায়াজিনন ৬০ ইসি বা লেবাসিড ৫০ ইসি চা চামুচের ৪ চামুচ ৮.৫ লিটার পানিতে মিশিয়ে ১৫ দিন পর পর দুই বার স্প্রে করতে হবে। অথবা ম্যালাথিয়ন বা এম.এস.টি ৫৭ ইসি উপরোক্ত মাত্রায় স্প্রে করতে হবে।

ফলের মাছি বা লিচুর মাছি পোকা (Litchu fruit fly):

ক্ষতির প্রকৃতিঃ এ পোকার কীড়া পাকা লিচুর মধ্যে প্রবেশ করে শাঁস খেয়ে ফেলে। এতে ফল পচে যায় ও ঝরে পড়ে। আক্রান্ত লিচু কাটলে অসংখ্য পোকা দেখা য়ায়। পোকার আক্রমণ বেশী হলে গাছের সমস্ত আম খাওয়ার অনুপযোগী হয়ে যায়।

দমন ব্যবস্থাঃ লিচুর পাকার পূর্বে যখন পূর্ণ বৃদ্বিপ্রাপ্ত হয় ডিপটেরেক্স চা চামুচের ৪ চামচ ৮.৫ লিটার পানিতে মিশিয়ে ৭ দিন পর পর দুই বার স্প্রে করতে হবে। অথবা ডায়াজিনন ৫০ ইসি ২মিলি/লিটার পানিতে মিশে ফলে স্প্রে করতে হবে (উক্ত সময়ে ফল খাওয়া যাবে না)।

লিচুর বিছা পোকা (Litchu defoliator):

ক্ষতির প্রকৃতিঃ এ পোকার কীড়া লিচুর গাছের পাতা খেয়ে ফেলে। আক্রমণের মাত্রা বেশী হলে গাছ পত্র শূন্য হয়ে যায় এবং ফুল-ফল হয় না বা হলেও ঝরে পড়ে। তবে কোন গাছ একবার আক্রান্ত হলে বার বার আক্রান্ত হওয়ার সম্ভনা থাকে।

দমন ব্যবস্থাঃ আক্রান্ত গাছে ডাইমেক্রম ১০০ ইসি ৩০০ মিলি বা ডায়াজিনন ৫০ ইসি ৪০০ মিলি বা সুমিথিয়ন ৫০ ইসি ৪৫৪ মিলি ২২৫ লিটার পানিতে মিশে স্প্রে করতে হবে।

  •  
  •  
  •  
  •  
ad0.3

Tags: