মাল্টা চাষ করে স্বাবলম্বী হতে চান তুহিন

নিউজ ডেস্কঃ

মাল্টা একটি বিদেশী ফল। এই ফল যেমন সুস্বাধু তেমনি পুষ্টিগুণ সমৃদ্ধ। তাছাড়া মাল্টা প্রতি বছর বিদেশ থেকে আমদানি করা হয়। আর এই চাষাবাদ যেহেতু আমাদের দেশেই বিস্তার লাভ করেছে, অনেকেই সফল হচ্ছেন মাল্টা চাষ করে – সেই অনুপ্রেরণা থেকে মাল্টা চাষের উদ্যোগ করে গ্রহণ করেন তিতুমীর কলেজ পড়ুয়া তুহিন। চাচাতো ভাইয়ের কাছ থেকে জমি লিজ নিয়ে শুরু করে চাষাবাদ, হতে চান স্বাবলম্বী ।

তিনি বলেন, আমরা তিনজন মিলে শেয়ারে মাল্টা বাগান করেছি। আমারা নরসিংদীর রায়পুরা থানার হাসনাবাদ গ্রামে মোট দু‘টি বাগান করেছি – একটি ২৪ শতাংশ আরেকটি ১৩৩ শতাংশ জমি নিয়ে। ছোট্ট বাগানে ১৫০ টি গাছ আর বড় বাগানে ৩০০ মাল্টা গাছের সাথে ৩০০ পেয়ারা গাছও লাগিয়েছি।

তিনি বলেন, যতটুকু জেনেছি প্রতি গাছে ৪০০-৫০০ পিস মাল্টা আসে। আসলে এগুলো আল্লাহর দান। তবে সাধারণত মাল্টা ১৮ মাস বয়সে ফল আসে এবং মাল্টা তৃতীয় বছর থেকে মাল্টা গাছ পরিপূর্ণতা আসে, মাল্টা গুণগত মান সম্পন্ন হয়।

অন্য ফলের বাগান ছাড়া মাল্টাই কেন করলেন উত্তর জানতে চাইলে তুহিন বলেন, কারণ হচ্ছে মাল্টা আমাদের দেশে চাষ উপযোগহীন এবং দেশের বিভিন্ন প্রান্তে অনেকেই চাষ করে সাফল্য পেয়েছেন। আর সেই অনুপ্রেরণা থেকেই আমার মাল্টা চাষের দিকে আগ্রহ।

সরকারি কোন সহায়তা পেয়েছে কিনা জানতে চাইলে তিনি বলেন, এই ছোট্ট বাগানটি করার পিছনে তিনি সরকারি সহায়তা না পেলে নিজের পক্ষে এভাবে শুরু করা সম্ভব ছিলো না। তিনি সরকারের পক্ষ থেকে একটি ডিজিটাল স্প্রে মেশিন, বিনামূল্যে চারা, সার ও কিছু ঔষধও পেয়েছেন যা তাকে মাল্টা বাগানকে আরো বেগবান করতে সহায়তা করেছে। কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের যোগাযোগ করে এই মাল্টা বাগান পেয়েছেন বলে তিনি জানান।

আপনি তো ঢাকায় লেখে পড়া করেন, কিন্তু মাল্টা বাগানে চিন্তা কিভাবে মাথায় আসলো? এমন প্রশ্নের উত্তরে তিনি বলেন, আসলে করোনা মানুষকে নতুন করে মানুষ হতে শিখিয়েছে। আমি করোনাকালীন সময়ে বাড়িতে চলে আসি। কিছু করব করব ভাবছি। এমন সময় আমার ৪বছর আগে ইচ্ছা ছিল মাল্টা বাগান করব। সেই ইচ্ছা অনুযায়ী খোঁজ করতে থাকি। পরবর্তী সময়ে করোনাকাল পুরোটা মাল্টা বাগান করতে ব্যয় করেছি।

তিন বিঘা জমি থেকে কি পরিমাণ মাল্টা পাবেন বলে আশা করেন? এমন প্রশ্নের উত্তরে তুহিন বলেন, পূর্ণ বয়স্ক একটি গাছে প্রায় ১মণ মাল্টা পাওয়া যায়। সে হিসেবে পাইকারী দরে বিক্রয় করলে ৬০ টাকা কেজি। সেই হিসাবে প্রতি গাছ থেকে ২৪০০ টাকা করে ইনকাম আসবে। আর যদি ইনশাআল্লাহ ২৫০টি গাছে মাল্টা আসে তাহলে ৬০০,০০০ টাকা করে আসবে।

  •  
  •  
  •  
  •  
ad0.3

Tags: