বেড়েছে ক্ষুরা রোগের প্রার্দুভাব

নিউজ ডেস্কঃ

নওগাঁর পোরশা উপজেলার গরুর ক্ষুরা রোগের ব্যাপক প্রাদুর্ভাব দেখা দিয়েছে। এ রোগে আক্রান্ত হয়ে এক সপ্তাহে তিনটি গরু মারা গেছে। ফলে গরুর মালিকরা বিপাকে পড়েছে। এ অবস্থায় স্থানীয়ভাবে বিভিন্ন প্রকার অ্যান্টিবায়োটিক ওষুধ ও কবিরাজি ওষুধ ব্যবহার করেও রোগ ভালো হচ্ছে না।

জানা গেছে, উপজেলার ঘাটনগর ইউনিয়নের নিস্কিনপুর, তেঁতুলিয়া ইউনিয়নের ছাতিয়া ও নিতপুর ইউনিয়নের সোহাতী গ্রামে গরুর ক্ষুরা রোগের ব্যাপক প্রাদুর্ভাব দেখা দিয়েছে। প্রথম অবস্থায় ক্ষুরা রোগ গরুর পায়ে ও মুখে আক্রমণ করছে এবং ১/২ দিনের মধ্যে গরু কাঁপুনি দিয়ে মারা যাচ্ছে।

এ পর্যন্ত প্রাণিসম্পদ অফিস থেকে কেউ আসেনি বলে অভিযোগ রয়েছে। পূর্বে উপজেলা প্রাণিসম্পদ অফিস থেকে এ রোগের কোনো প্রকার টিকা দেয়াসহ কোনো পরামর্শ দেয়া হয়নি। আগে থেকে টিকা দেওয়া থাকলে তাদের গরুগুলো হয়তো মারা যেত না বলে কৃষকরা ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন।

নিস্কিনপুর গ্রামের রেজাউল করিমের রোববার ৩০ হাজার টাকা দামের একটি বকনা গরু, মঙ্গলবার তার ভাই আব্দুর রশিদের প্রায় এক লাখ টাকা মূল্যের একটি গাভি ও তার চাচাতো ভাই আব্দুল আলীর ৩০ হাজার টাকা দামের একটি বকনা গরু মারা গেছে।

পোরশা উপজেলা ভারপ্রাপ্ত প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা ও ভেটেরিনারি সার্জন ডা. শরিফুল ইসলাম জানান, আমরা ক্ষুরা রোগের কথা শুনেছি এবং ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে। তবে ক্ষুরা রোগের পর্যাপ্ত টিকা না থাকার কথা তিনি জানান। ক্ষুরা রোগ হলে গরু কিছু খেতে পারে না। এক সময় না খেয়ে গরু মারা যায়। এ সময় গরুকে স্যালাইনসহ তরল খাওয়ানোর জন্য পরামর্শ দেন।

  •  
  •  
  •  
  •