রাবি অধ্যাপকের বিরুদ্ধে গোপন নথি ফাঁস চেষ্টার অভিযোগ

রাবি প্রতিনিধি:

রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্রপ সায়েন্স অ্যান্ড টেকনোলজি বিভাগের অধ্যাপক আলী আসগরের বিরুদ্ধে গোপন নথি ফাঁস চেষ্টার অভিযোগ পাওয়া গেছে। একই বিভাগের অধ্যাপক খাইরুল ইসলামের এই অভিযোগ করেছেন।

এই বিষয়ে অধ্যাপক খাইরুল ইসলাম বলেন, সম্প্রতি নিয়োগপ্রাপ্ত ক্রপ সায়েন্স অ্যান্ড টেকনোলজি বিভাগে তিন শিক্ষক শামসুন্নাহার, মুখতার হোসেন ও রেজভী আহমেদ ভুঁইয়ার গোপন ও ব্যক্তিগত কিছু নথি হাইজ্যাক করে প্রফেসর ড. আলী আসগর বিভাগের বাহিরে ডিন অফিসে ফটোকপি করতে থাকে। পরে বিষয়টি টের পেয়ে অন্যান্য অফিস কর্মচারীরা হইচই শুরু করে। আমি এই বিষয়টি জানতে পেরে আলী আসগরের নিকটে গিয়ে নথিগুলো ফেরত দিতে অনুরোধ জানাই। এখানে হাতাহাতি বা ধস্তাধস্তির কোন ঘটনা ঘটেনি। নথিগুলো নিয়ে যাওয়ার পরে একাই তিনি মাটিতে লুটিয়ে পরে।

এ বিষয়ে সম্প্রতি নিয়োগ প্রাপ্ত ক্রপ সায়েন্স অ্যান্ড টেকনোলজি বিভাগের শিক্ষক রেজভী আহমেদ ভুঁইয়া বলেন, যখন এ ঘটনা ঘটছে তখন আমি রাবির প্রসাশনিক ভবনে অবস্থান করছিলাম। পরে বিভাগে আসার পর ঘটনাটি শুনলাম অফিসের প্রধান সেলিম সাহেব, অফিস পিয়ন মোতালেব এবং বিভাগের শিক্ষক খাইয়রুল ইসলাম স্যারের কাছে। আসলে এ ঘটনাটি অত্যন্ত দুঃখজনক। যারা বিশ^বিদ্যালয়ে মানুষ গড়ার কারিগর তাদের কাছে এ ধরনের কোন কিছু প্রত্যশা করা যায় না।

এ সম্পর্কে অফিস পিয়ন মোতালেব বলেন, নথিগুলো খাইরুল স্যার আলী আসগর স্যারের কাছ থেকে উদ্ধার করেছেন। মারামারি বা হাতাহাতির কোন ঘটনা ঘটেনি।

জানতে চাইলে আলী আসগর বলেন, তাদের কোন গোপন নথি আমি গ্রহণ করিনি বা রপ্ত করিনি। আমার বিরুদ্ধে খাইরুল ইসলাম অপপ্রচার করছে। খাইরুল ইসলামকে তার অভিযোগ প্রমাণ করতে বলুন। একজন মানুষের বিরুদ্ধে মিথ্যা অভিযোগ করা উচিত নয়।

  •  
  •  
  •  
  •