অভিন্ন নীতিমালা নিয়ে বাকৃবি শিক্ষক সমিতির জরুরী সভাঃ প্রতিবাদ, প্রত্যাখ্যান ও কর্মসূচী প্রদানের সিদ্ধান্ত

বাকৃবি প্রতিনিধিঃ

পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক নিয়োগ, পদোন্নতি ও পদোন্নয়ন সংক্রান্ত নীতিমালা বাস্তবায়নের পরিপ্রেক্ষিতে বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় (বাকৃবি) শিক্ষক সমিতি জরুরী সাধারণ সভার আয়োজন করে। রবিবার ১৪ ফেব্রুয়ারি বিকেল ৩.৩০ টা থেকে সন্ধ্যা ৬.৩০ টা পর্যন্ত শিক্ষক কমপ্লেক্স এ সভা অনুষ্ঠিত হয়। এতে লেকচারার থেকে সিনিয়র প্রফেসর পর্যন্ত প্রায় সকল শিক্ষককে স্বতঃফুর্ত অংশগ্রহণ করতে ও বক্তব্য দিতে দেখা যায়।

গত ৯ই ফেব্রুয়ারি শিক্ষামন্ত্রনালয়, ইউজিসি ও বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক ফেডারেশন এর ভার্চূয়াল সভায় নীতিমালা বাস্তবায়নের যে নীতিগত সিদ্ধান্ত হয় তারই প্রেক্ষিতে বাকৃবি শিক্ষক সমিতি ১০ ফেব্রুয়ারি এক জরুরী সাধারণ সভার মাধ্যমে সর্বসম্মতিক্রমে তা প্রত্যাখ্যান করে। নীতিমালা বাস্তবায়নের বিরুদ্ধে করণীয় নির্ধারণে  আজ রবিবার আবারও জরুরী সাধারণ সভার আয়োজন করে বাকৃবি শিক্ষক সমিতি।

সভার সিদ্ধান্ত অনুযায়ী আগামীকাল সোমবার দুপুর ১২ টায় সংবাদ সম্মেলন করার কথা রয়েছে। সভায় সর্বসম্মতিক্রমে আবারও অভিন্ন নীতিমালাকে প্রত্যাখ্যান করা হয় এবং অন্যান্য বিশ্ববিদ্যালয়গুলোকে একসাথে নিয়ে মানববন্ধন, প্রতিবাদ, সভাসমাবেশ এবং প্রয়োজনে কঠোরতর প্র্রোগ্রামের কর্মসুচী নেওয়ার সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়। করা হবে বলে জানান শিক্ষক সমিতির নেত্রীবৃন্দ।

বক্তারা বলেন দেশে উচ্চশিক্ষাকে ধ্বংস করতে, সরকারের উন্নয়নকে বাধাগ্রস্থ করতে এবং শিক্ষকদের নিয়ন্ত্রণ করতে এ নীল নকশা করা হয়েছে।

শিক্ষক সমিতির সভাপতি প্রফেসর ড. মোঃ জয়নাল আবেদীন এর সভাপতিত্বে এবং সাধারণ সম্পাদক প্রফেসর ড. সুবাস চন্দ্র দাস এর সঞ্চালনায় এ সভাটি অনুষ্ঠিত হয়।

উল্লেখ্য  ২০১৯ সালে পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক নিয়োগ, পদোন্নতি ও পদোন্নয়ন সংক্রান্ত নীতিমালা গ্রহণ ও বাস্তবায়নের চেষ্টা করা হলে তা পরবর্তীতে বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক ফেডারেশনের প্রবল প্রতিরোধের মুখে  স্থগিত হয়ে যায়।

 

  •  
  •  
  •  
  •  
ad0.3

Tags: