করোনা পরবর্তী “কালো ছত্রাক” কী? লক্ষণ ও করনীয় জেনে নিন

black

নিউজ ডেস্কঃ করোনা থেকে সেরে ওঠার পরও নিস্তার নেই। ভুগতে হচ্ছে নানা জটিলতায়। দেখা দিচ্ছে নতুন সব রোগ। সম্প্রতি তালিকায় যোগ হয়েছে ব্ল্যাক ফাঙ্গাস ওরফে কালো ছত্রাক।

করোনা ভাইরাসের কারণে যখন রোগীর শরীরে রোগ প্রতিরোধ শক্তি কম থাকে, তখন সেই ব্যক্তি ব্ল্যাক ফাঙ্গাস ইনফেকশনে আক্রান্ত হলে সেটি মূহূর্তের মধ্যেই মৃত্যু ঝুঁকি তৈরি করতে পারে বলে মনে করছেন চিকিৎসকরা।

কালো ছত্রাক বা ব্ল্যাক ফাঙ্গাস ইনফেকশন আসলে কী?

জনস্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞ ও চিকিৎসক লেলিন চৌধুরী জানান, মানুষের শরীরে অনেক ধরণের ইনফেকশন হতে পারে – এবং এগুলো হতে পারে ব্যাকটেরিয়া, ভাইরাস বা ফাঙ্গাস থেকে।

মূলত রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বিপর্যস্ত হলে শরীরে থাকা ব্যাকটেরিয়া, ভাইরাস এবং ফাঙ্গাস এই ইনফেকশনগুলো শুরু করে এবং সে কারণেই কোভিডের পর এ ধরণের প্রবণতা বেশি হতে পারে বলে মনে করেন তিনি।

তিনি বলেন, “করোনার লক্ষণ ও প্রভাবের কোনো শেষ নেই। মজা করে বলা হলেও এটি সত্যি যে প্রেগন্যান্সি আর ফ্র্যাকচার ছাড়া আর সব কিছুই করোনার লক্ষ্মণ হতে পারে। মানসিক রোগ থেকে শুরু করে হার্ট বা মস্তিষ্ক – কোন কিছুই এর বাইরে নয়। আবার পোস্ট-কোভিড সম্পর্কিত সমস্যাকে এখন লং কোভিড বা দীর্ঘমেয়াদী কোভিড বলা হচ্ছে।

“অর্থাৎ করোনাভাইরাস সেরে গেলেও নতুন করে অনেক সমস্যা দেখা দিতে পারে। ফাঙ্গাস ইনফেকশন তারই একটি,” বলছিলেন লেলিন চৌধুরী।

এই চিকিৎসক জানান যে রক্ত, চামড়া, মুখ, নখসহ শরীরের নানা জায়গায় ব্ল্যাক ফাঙ্গাস ইনফেকশন হতে পারে এবং সাধারণত রক্ত পরীক্ষার মাধ্যমে এটি চিহ্নিত করা সম্ভব হয়।

ফাঙ্গাসের লক্ষণঃ

১। নাক বন্ধ হয়ে আসা, ন্নাক থেকে চাপা রক্তের মতো বা কালো পুঁজ বেরনো।
২। চোয়ালে বা উহের এক দিকে ব্যথা, অবশ হয়ে যাওয়া বা ফুলে যাওয়া।
৩। নাকের উপর কালছে দাগ
৪। দাঁতে ব্যথা বা দাঁত আলগা হয়ে আসা
৫। দৃষ্টি ঝাপসা হয়ে আসা বা দুটো করে জিনিস দেখা, জ্বর, ত্বকের সমস্যা।
৬। বুকে ব্যথা, নিঃশ্বাসের সমস্যা বেড়ে যাওয়া।

ফাঙ্গাস হলে যা করবেনঃ
১। হাইপারগ্লাইসোমিয়া নিয়ন্ত্রণ।
২। পুঁজ বেরনোর পর রক্রে গ্লুকোজের মাত্রা মাপা। ডায়াবেটিস রোগীদের ক্ষেত্রেও তাই।
৩। সঠিক পদ্ধতিতে, সঠিক পরিমাণে এবং ঠিক সময়ে স্টেরয়েড নেওয়া।
৪। অক্সিজেন থেরাপির সময় পরিস্কার, স্টেরালাইজ করা পানি ব্যবহার করা (হিউমিডিফায়ারে)
৫। প্রয়োজনে অ্যান্টিবায়োটিক এবং অ্যান্টি ফাঙ্গাল ওষুধ খাওয়া।

যা করা যাবে নাঃ
১। লক্ষণগুলো খেয়াল রাখা, অবহেলা না করা।
২। নাকে কালচে দাগ দেখলেই অতঙ্কিত না হওয়া, বিশেষ করে যে কোভিড রোগীদের রোগ প্রতিরোধক ক্ষমতা কম।
৩। ফাঙ্গাসের উপস্থিতি বুঝতে প্রয়োজনীয় শারীরিক পরীক্ষা করতে ভয় না পাওয়া (কেওএইচ স্ট্রেনিং, মাইক্রোস্কোপি কালচার ইত্যাদি)।
৪। চিকিৎসা শুরু করতে দেরি না করা।

  •  
  •  
  •  
  •  
ad0.3

Tags: , ,