কাশ্মীরে হঠাৎ উত্তেজনায় কাশ্মীর ছাড়ছে হাজার হাজার মানুষ

আন্তর্জাতিক ডেস্ক:

কেন্দ্রীয় সরকারের নিরাপত্তা সতর্কতা ঘোষণার পর শুক্রবার থেকে ভারত শাসিত কাশ্মীর ছাড়তে শুরু করেছে হাজার হাজার পর্যটক ও তীর্থযাত্রী। শনিবার রাজ্যের বিমানবন্দর ও বাস টার্মিনালে দেখা গেছে উপচেপড়া ভীড়।

শুক্রবার ভারতীয় নিরাপত্তা বাহিনী জানিয়েছিল, তারা অমরনাথে তীর্থযাত্রাগামী হিন্দুদের ওপর পাকিস্তান সমর্থিত সন্ত্রাসী গোষ্ঠীর হামলা পরিকল্পনার প্রমাণ পেয়েছে। অমরনাথ যাত্রাপথে তল্লাশি চালিয়ে বেশ কিছু আগ্নেয়াস্ত্র ও স্থলমাইন উদ্ধার করা হয়েছে।

তাই নিরাপত্তার জন্য পর্যটক ও তীর্থযাত্রীদের উপত্যকা থেকে দ্রুত চলে যেতে বলেছে সেনাবাহিনী ও কেন্দ্রীয় সরকার। রাজ্যে ইতোমধ্যে কেন্দ্রীয় নিরাপত্তা বাহিনীর ২৮ হাজার সদস্য নিয়োজিত থাকলেও বৃহস্পতিবার অতিরিক্ত আরো ২৮ হাজার সদস্যকে কাশ্মীরে পাঠানোর ঘোষণা দিয়েছে সরকার।

শনিবার স্থানীয় সরকারের এক কর্মকর্তা জানিয়েছেন, কেন্দ্রীয় সরকারের এই ঘোষণায় আতংক সৃষ্টি হয়েছে এবং এর ফলে লাখ লাখ পর্যটক, তীর্থযাত্রী ও শ্রমিক কাশ্মীর ছেড়ে চলে যাচ্ছে।

সুনির্দিষ্ট সংখ্যা না বললেও ওই কর্মকর্তা জানিয়েছেন, প্রায় ২০ হাজার হিন্দু তীর্থযাত্রী ও ভারতীয় পর্যটক এবং দুই লাখের বেশি শ্রমিক এই অঞ্চল ছেড়ে চলে যাচ্ছেন।

একসঙ্গে এতো লোক রাজ্য ছাড়তে শুরু করায় বিমানবন্দর ও বাসস্টেশনগুলোতে ব্যাপক চাপ পড়েছে। শনিবার শ্রীনগর বিমানবন্দরে ভিড় করেছিলেন কিছু বিদেশিসহ উদ্বিগ্ন কয়েক হাজার পর্যটক। অনেকেই বিমানের টিকিট পাননি। অবশ্য অমরনাথের তীর্থযাত্রী ও পর্যটকদের নিয়ে বেশ কয়েকটি গাড়িকে উপত্যকা থেকে বেরিয়ে আসতে দেখা গেছে।

ভারত সরকারের এই ঘোষণার পরপর জার্মানি ও যুক্তরাজ্য তাদের নাগরিকদের কাশ্মীরে ভ্রমণের ব্যাপারে সতর্কতা জারি করেছে।

এদিকে, বিরোধী দল কংগ্রেস সরকারের এই ঘোষণার নিন্দা জানিয়ে বলেছে, কাশ্মীরে আতংকের পরিবেশে সৃষ্টি করছে সরকার।

প্রবীণ নেতা গুলাম নবি আজাদ এক সংবাদ সম্মেলনে বলেছেন, ‘সরকার বিদ্বেষের পরিবেশ তৈরি করার চেষ্টা চালাচ্ছে, তারা বোঝাতে চাইছে যে কাশ্মীর বাইরের লোকদের জন্য নিরাপদ নয়। আমরা সরকারের এই সিদ্ধান্তের নিন্দা করছি।’

  •  
  •  
  •  
  •