মাইক্রোসফট খুচরা বিক্রয়কেন্দ্র বন্ধ করে দিয়েছে

নিউজ ডেস্কঃ

যুক্তরাষ্ট্রসহ বিশ্বের অন্য কয়েকটি দেশে ছড়িয়ে থাকা খুচরা বিক্রয়কেন্দ্রগুলি (৮৩টি)স্থায়ীভাবে বন্ধের ঘোষণা দিয়েছে মাইক্রোসফট।

সিএনবিসির এক খবরে বলা হয়, শুক্রবার প্রতিষ্ঠানটির একজন কর্মকর্তা এ সিদ্ধান্তের কথা জানান।

তিনি জানান এখন থেকে অনলাইন স্টোরের ওপর বেশি মনোনিবেশ করবে তারা। সেখানেই মিলবে তাদের পণ্য, সহায়তা, প্রশিক্ষিণসহ আরো বিভিন্ন ধরনের সেবা। আর বিক্রয়কেন্দ্রের কর্মীরা ন্যস্ত হবেন ওয়েবসাইটে। চাকরিতে বহাল থাকবেন তাদের সবাই।

মাইক্রোসফটের কর্পোরেট ভাইস প্রেসিডেন্ট ডেভিড পোর্টার একটি ব্লগ পোস্টে লিখেছেন, ডিজিটাল মাধ্যমে আমাদের পণ্যের পরিচিতি বাড়ায় অনলাইনে আমাদের পণ্যের বিক্রি বেড়েছে। তাছাড়া আমাদের মেধাবী কর্মীরা ক্রেতাদের সরাসরি সেবা প্রদানের বাইরেও এই বিকল্পক্ষেত্রে সাফল্যের প্রমাণ রাখছে।

তিনি বলেন, বিক্রয়কেন্দ্রের ওই কর্মীরাই অনলাইন মাধ্যমে মাইক্রোসফটের কর্পোরেট কেন্দ্রগুলো থেকে ক্রেতাদের একই সেবা দিয়ে যাবেন।

এদিকে প্রতিষ্ঠানটির শেয়ারের মূল্য ২ শতাংশ পড়ে যায় একই দিনে।

প্রসঙ্গত, গত এক দশক বা তার চেয়েও বেশি সময় ধরে অ্যাপলের অনুকরণে বিক্রয়কেন্দ্র বাড়িয়েছে মাইক্রোসফট। এমনকি নিউইয়র্কের ফিফথ এভিনিউতে অ্যাপলের প্রধান বিক্রয়কেন্দ্রের কাছেই একটি বিক্রয়কেন্দ্র খোলে তারা।

কিন্তু করোনাভাইরাস ছড়িয়ে পড়ার পর গত মার্চে বিক্রয়কেন্দ্রগুলো অস্থায়ীভাবে বন্ধ করার সিদ্ধান্ত নেয় মাইক্রোসফ্ট। এবার পুরোপুরি বন্ধ করতে মালামালের ক্ষয়ক্ষতি বাবদ কর বাদেই তাদের গুণতে হবে প্রায় ৪৫০ মিলিয়ন ডলার, শেয়ার প্রতি যা ০.০৫ ডলার।

মাইক্রোসফটের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, বিশ্বের ১৯০টি জায়গায় প্রতি মাসে ১২০ কোটি মানুষের পৌছতে মাইক্রোসফ্ট ডটকমের ডিজিটাল স্টোরফ্রন্টগুলোতে এবং এক্সবক্স ও উইন্ডোজের স্টোরগুলিতে বিনিয়োগ অব্যহত রাখা হবে।

এছাড়া লন্ডন, নিউইয়র্ক, সিডনি ইত্যাদি স্থানে মাইক্রোসফ্ট এক্সপেরিয়েন্স সেন্টার চালুসহ ক্রেতাদের সেবা দেওয়ার নতুন নতুন ক্ষেত্রের কথা চিন্তা করবে তারা।

  •  
  •  
  •  
  •