ঘুড়ি উৎসব ফরিদপুরে পদ্মার চরে

নিউজ ডেস্কঃ

খ্রিস্টীয় বর্ষপঞ্জির প্রথম দিনে শুক্রবার বিকালে ফরিদপুরে ঘুড়ি উৎসব অনুষ্ঠিত হয়েছে। সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ‘ফরিদপুর সিটি পেইজ’-এর আয়োজনে এবং টাইমস বিশ্ববিদ্যালয় ফরিদপুরের সহায়তায় এ উৎসবের আয়োজন করা হয় শহরতলীর ধরার মোড় এলাকায় পদ্মা নদীর পাড়ে। এটি ছিল আয়োজকদের চতুর্থ আয়োজন। ২০১৮ সাল সাথে এ উৎসব অনুষ্ঠিত হয়ে আসছে।

বিকালে এ অনুষ্ঠানের উদ্বোধন করেন- ফরিদপুরের জেলা প্রশাসক অতুল সরকার। উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন টাইমস বিশ্ববিদ্যালয়ের ভাইস চ্যান্সেলর আখতারুল ইসলাম।

আলোচনায় অংশ নেন- অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (শিক্ষা) মোহাম্মদ সাইফুল কবির, সরকারি রাজেন্দ্র কলেজের ইংরেজি বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক রিজভী জামান ও দেবাশীষ বিশ্বাস এবং ফরিদপুর সিটি পেইজের মডারেটর ইমদাদুল হক।

এ উৎসবে পাঁচ শতাধিক প্রতিযোগী বিভিন্ন ধরন, আকার ও আকৃতির ঘুড়ি নিয়ে সমবেত হয়। পরে ১০ জনকে পুরস্কৃত করা হয়।

ফরিদপুর সিটি পেইজ কর্তৃপক্ষের আয়োজনে অনুষ্ঠিত ঘুড়ি উৎসবে বাহারি নামে নয়ন তারা, কইরা, চিল, প্লাজো, রোহিঙ্গা, এ্যাংরিবার্ড, ডোল, ঈগলসহ বিভিন্ন নামের কয়েকশ ঘুড়ি পদ্মা নদীর বুকের সোনালী বিকালকে আরো বর্ণিল করে তোলে। সেই সাথে হাজারো শিশু-কিশোর আর যুব ও অগ্রজদের পদচারণায় মুখর হয়ে ওঠে পদ্মার বালু চর।

ঘুড়ি উড়িয়ে উৎসবে অংশ নেয়া প্রতিযোগীরা বলেন, এটি অবশ্যই ফরিদপুরের একটি অন্যরকম আয়োজন, এটি এমন একটি উৎসব যেখানে সকল বয়সী মানুষ এক হয়েছে, এটি মিলন মেলায় পরিণত হয়েছে।

আয়োজকদের অবশ্যই ধন্যবাদ জানাতে হবে যে, একদিনের জন্য হলেও আমাদের ছোট বেলার স্মৃতিকে মনে করিয়ে দিয়েছে। করোনার এই সময়ে একটু হলেও আনন্দ পাচ্ছি।

এ উৎসবের অন্যতম আয়োজক ‘ফরিদপুর সিটি’ ফেসবুক পেইজ-এর ইমদাদুল হক বলেন, আজকের এ ঘুড়ি উৎসব চতুর্থবারের মতো হচ্ছে। আমাদের শৈশবের স্মৃতিকে যাতে ভুলে না যাই এবং বাঙালির সংস্কৃতির অংশ হওয়ার এমন আয়োজন করা হয়েছে।

ফরিদপুরের অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক সাইফুল কবির জানান, এই ধরনের উৎসব আমাদের মনের খোরাক জোগায়। দেখে ভাল লাগছে করোনার সময়ে সবাই মাস্ক পড়ে প্রতিযোগিতায় অংশ নিচ্ছে। এ ধরনের আয়োজনকে জেলা প্রশাসন সব সময় সহযোগিতা করবে।

  •  
  •  
  •  
  •