ভারত গেলেন বিলুপ্ত ছিটের ৭২ জন বাসিন্দা

রেজাউল করিম রেজা, কুড়িগ্রাম প্রতিনিধি:
রোববার দ্বিতীয় দফায় ভারত গেলেন কুড়িগ্রামের অভ্যন্তরে সদ্য বিলুপ্ত ১২ টি ছিট মহলের মধ্যে দুইটি ছিটমহলের ১৫ পরিবারের ৭২ জন বাসিন্দা।

এরমধ্যে ফুলবাড়ী উপজেলার ১০ টি পরিবারের ৪৯ জন ও ভুরুঙ্গামারী উপজেলার ৫ টি পরিবার ২৩জন ভারতে যাওয়ার জন্য সকাল ১১ টায় ভুরুঙ্গামারী উপজেলার বাগভন্ডার সীমান্তের অস্থায়ী চেক পয়েন্টে পৌছেন। সেখানে ইমিগ্রেশনের মাধ্যমে তাদের ট্রাভেল পাশ পরীক্ষা-নিরিক্ষা পর দুপুর দেড়টায় ভারতের ইমিগ্রেশনের মাধ্যমে ভারতে প্রবেশ করেন। ভারতগামীদের কাগজপত্র পরীক্ষা-নিরিক্ষা শেষে তাদেরকে বরন করেন ভারতের কোচবিহারের ডিএম পিউল গানাথনসহ বাংলাদেশে নিযুক্ত ভারতীয় হাইকমিশনের সদস্য সচিব অভিজিত মিত্র।

এ সময় বাংলাদেশের পক্ষে কুড়িগ্রাম জেলা অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক মোঃ রফিকুল ইসলাম সেলিম, ৪৫ বর্ডার গার্ড ব্যাটালিয়ন কুড়িগ্রামের পরিচালক লেঃ কর্ণেল মোঃ জাকির হোসেন, ফুলবাড়ী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা নাছির উদ্দিন মাহমুদ ও ভুরুঙ্গামারী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মামুন ভুইয়াসহ জেলা প্রশাসনের অন্যান্য কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

এর আগে জেলা প্রশাসনের সহায়তায় প্রয়োজনীয় জিনিসপত্র নিয়ে মিনিবাস ও পিকআপ যোগে সকাল ১০ টায় তারা স্ব-স্ব ছিটমহল থেকে বাগভান্ডারের উদ্দেশ্যে রহনা দেন। এসময় তাদের আত্মীয় স্বজনসহ দীর্ঘ দিনের পরিচিত জনদের মাঝে এক আবেগঘন পরিবেশের সৃষ্টি হয়।

কুড়িগ্রাম জেলার অভ্যন্তরের ১২ টি বিলুপ্ত ছিটমহলের মধ্যে শুধু মাত্র ২টি ছিটমহলের ৬৬ পরিবারের ২৬৫ জন বাসিন্দা ভারতে নাগরিকত্ব নিয়ে ভারতে যাওয়ার চুড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেয়। এর মধ্যে প্রথম দফা ২২ নভেম্বর ভারত গেলেন ফুলবাড়ী উপজেলার দাসিয়ার ছড়ার ১০ পরিবারের ৪৯ জন ও ভুরুঙ্গামারী উপজেলার গাড়োলঝাড়া সাবেক ছিটের ৫ পরিবারের ২৩ জন। দ্বিতীয় দফায় ২৪ নভেম্বার ভারতে যাবেন দাসিয়ারছড়ার ৩০ পরিবারের ১১৫ জন ও তৃতীয় দফায় ২৬ নভেম্বর ভারত যাবেন দাসিয়ার ছড়ার ২৭ পরিবারের ৭৮ জন।

ফুলবাড়ী উপজেলার বিলুপ্ত দাসিয়ার ছড়া ছিটের বাসিন্দা লক্ষী রানী জানান, আমার দুই ছেলে, ছেলের বউ এবং নাতি-নাতনিসহ ১০ জন ভারতে যাচ্ছি। যেতে খুব খারাপ লাগছে কিন্তু উপায় নাই। আমার কিছু আত্মীয় স্বজন ভারতে থাকায় সেখানে যেতে হচ্ছে।
একই ছিটের বাসিন্দা সামছুল হক জানান, আমরা একই পরিবারের ৯ জন ভারতে যাচ্ছি। আরো ৪ ভাইসহ বাবা-মা বাংলাদেশে থাকবে। জন্মভুমি ছেড়ে যেতে খুবই খারাপ লাগছে।

কুড়িগ্রামের অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক মোঃ রফিকুল ইসলাম জানান, কুড়িগ্রাম জেলার ১২ টি ছিমহল থেকে ৩০৫ জন ভারতের নাগরিক্ত নিয়ে ভারতে যাওয়ার কথা থাকলে শেষ পর্যন্ত ২৬৫ জন ভারতে যাওয়া চুড়ান্ত সিদ্ধান্ত গ্রহন করে। এর মধ্যে রোববার দুইটি ছিট মহলের ১৫টি পরিবারের ৭২ জনকে সুষ্ঠভাবে ভারতে পাঠানো হয়েছে। আগামী ২৪ নভেম্বর ভারতে যাবেন ১১৫ জন এবং ২৬ নভেম্বর ভারতে যাবেন ৭৮ জন। দ্বিতীয় ও তৃতীয় যাতে বিলুপ্ত ছিটের বাসিন্দারা ভালোভাবে ভারতে যেতে পারেন তার জন্য সব ধরনের প্রস্ততি সম্পন্ন করা হয়েছে।

  •  
  •  
  •  
  •  
ad0.3

Tags: