অবশেষে ধরা পড়লেন সাকিবকে ফাঁসানো সেই দীপক

স্পোর্টস ডেস্কঃ

সাকিবকে ফাঁসানো সেই বিখ্যাত জুয়াড়ি দীপক আগারওয়াল অবশেষে ধরা পড়লেন। ভারতীয় এই জুয়াড়িই বাংলাদেশের তারকা অলরাউন্ডার সাকিব আল হাসানকে অনৈতিক প্রস্তাব দিয়ে ফাঁদে ফেলেছিলেন। এন্টি করাপশন কোড ভঙ্গের দায়ে আজ (বুধবার) তাকে সব ধরনের ক্রিকেট থেকে দুই বছরের নিষেধাজ্ঞা দিয়েছে আইসিসি। দীপক আগারওয়াল অবশ্য তার বিরুদ্ধে আনীত অভিযোগের একটি স্বীকার করে নিয়েছেন। তাই এই দুই বছরের সাজার মধ্যে মওকুফ করা হয়েছে ছয় মাসের নিষেধাজ্ঞা।টি-টেন লিগে সিন্ধি নামে একটি দলের মালিকানার অংশীদারও এই দীপক আগারওয়াল।

পেশাদার এই জুয়াড়ির কাজই ক্রিকেটারদের নানাভাবে ফাঁসানো। আইপিএল চলার সময় সাকিবকে এই দীপক বিভিন্নভাবে ফাঁদে ফেলার চেষ্টা করেন। বারবার মেসেজ দিয়ে সাকিবের সঙ্গে যোগাযোগ করার চেষ্টা করেন তিনি।

সাকিব এসব কিছু নিয়ে রিপোর্ট করেননি বলেই দুই বছরের জন্য নিষিদ্ধ হন। পরে এক বছরের সাজা স্থগিত করা হয়। শুধু সাকিব নন, আরও অনেক ক্রিকেটারের জীবন নষ্ট করার হোতা এই দীপক। ২০১১ সালে তার হুমকিতে ভারতের ২৯ বছর বয়সী একজন ক্রিকেটার আত্মহত্যা করেন।

২০১৭ সালে একবার ভারতীয় পুলিশ তাকে গ্রেফতারও করেছিল।তবে শুধরাননি দীপক। জেল থেকে বের হওয়ার পর ফিক্সিং কার্যক্রম আরও বাড়িয়ে দেন এই জুয়াড়ি। কিন্তু তিনি ক্রিকেট সংশ্লিষ্ট কিছুতে জড়িত না থাকায় তার বিরুদ্ধে এতদিন কোনো অ্যাকশনে যেতে পারেনি আইসিসি।এবার দীপক ফেঁসেছেন টি-টেন লিগের ফ্র্যাঞ্চাইজিতে থাকায়। আইসিসির এন্টি করাপশন ইউনিটের তদন্তে তার বিরুদ্ধে কয়েকটি অভিযোগ পাওয়া যায়। যার মধ্যে রয়েছে আইসিসির তদন্ত প্রক্রিয়া বাধাগ্রস্থ করা, প্রমাণ নষ্ট করাসহ আরও কিছু কর্মকাণ্ড।

  •  
  •  
  •  
  •