তানোরে বাড়ছে কুলা-ডালির কদর

মিজানুর রহমান, তানোর সংবাদদাতা:
বরেন্দ্র ভূমি হিসেবে খ্যাত রাজশাহীর তানোরে অগ্রহায়ণ মাস আসলেই বেড়ে যায় বাঁশের তৈরি কুলা-ডালির কদর। ফসল কাটা-মাড়াইয়ের পর ধান থেকে পাতান (চিটা) ও ধুলা-ময়লা বের করার জন্য কৃষকের প্রয়োজন হয় কুলা ও ডালির। সামনে অগ্রহায়ণ মাস। সারাদেশের ন্যায় রাজশাহী অঞ্চল জুড়ে গ্রামের হাটগুলোতে কুলা-ডালি বিক্রির ধুম পড়েছে।

এউপজেলার কুলা-ডালি তৈরি কাজে বেশকিছু এলাকার গ্রামের হতদরিদ্র নারী-পুরুষরা জড়িত। তবে, বেশিরভাগ ক্ষেত্রে কারিগর হিসেবে এ উপজেলায় আদিবাসী নারীরাই সংখ্যাগরিষ্ঠ। এঅঞ্চলের হাটগুলোতে বর্তমানে বাজারে চাহিদা বেড়ে যাওয়াই বাঁশের তৈরি কুলা-ডালিসহ পল্লীকুটির শিল্পের প্রতিটি জিনিসই বিক্রি বেড়ে গেছে।

সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা যায়, এউপজেলার কারিগররা সুনিপুণভাবে হাতের শৈল্পিক ছন্দে জয়া বাঁশ আর তরলা বাঁশ এ দুই বাঁশের মধ্যে নরম মেজাজী মনের জয়া বাঁশ ব্যবহারের পাশাপাশি বেত দিয়ে পল্লীকুটির শিল্প সামগ্রী তৈরি করেন। বছরব্যাপী কমবেশী এসব জিনিস বিক্রি হলেও আগ্রহায়ণের আগে কুলা ও ডালির কদর বাড়ে। তাই বিক্রির পরিমানও বেড়ে যায়। এঅঞ্চলের প্রায় প্রতিটি হাটগুলোতে কুলা ও ডালির পাশাপাশি বাঁশের তৈরি মাছ ধরা ছুটি, পলই, ঝাকাসহ বিভিন্ন উপকরণও হাটে বিক্রি হয়ে থাকে।

পুরো উপজেলা ঘুরে দেখা গেছে, ৮০ ভাগ আদিবাসিরা এগুলো তৈরি করছেন। উপজেলার তালন্দ হাটে বাঁশের তৈরি কুলা ও ডালি বিক্রেতা সন্তোষ সরেন জানান, সপ্তাহ ধরে তার বাবা-মা আর তিনি মিলে ১৫টি কুলা ও ১০টি ডালি তৈরি করেছেন। এসব কুলার বাজার মুল্য ৪০ থেকে ৫৫ টাকা আর ডালির বাজার মূল্য ৬৫ থেকে ১০০ টাকা দরে বিক্রি হয়েছ। সব ধরণের খরচ বাদ দিয়ে আয় হয়ে থাকে ১৩০০ থেকে ১৪৫০ টাকা। আগে তাদের গ্রামের বেশিরভাগ নারীরা এসব বাঁশের জিনিস তৈরি করতেন। কিন্তু খাটুনির তুলনায় লাভ কম হওয়ার কারণে অনেকেই এ পেশা থেকে সরে এসেছেন। এখন হাতেগোনা দুয়েকজন এ পেশায় জড়িত। সারা বছরই এসব জিনিস তৈরি করেন। কিন্তু আগ্রহায়ণের মৌসুমে এর চাহিদা বেশি থাকে বলেও জানান তিনি।

উপজেলার তালন্দ উপরপাড়া গ্রামের কৃষক ও সার ডিলার আয়েশ উদ্দিন জানান, বর্তমানে আমনের ধান কাটা-মাড়া মৌসুম চলছে। বিগত বছরের কুলা ও ডালিগুলো নষ্ট হয়ে গেছে। সে কারণে তিনি হাটে এসেছেন কুলা ও ডালি কিনতে। প্রতি পিস কুলা ৪৫ টাকা ও ডালি ৮৫ টাকা দরে কিনেছেন। একই উপজেলার চাপড়া গ্রামর কৃষক আবজাল জানান, হাটে কুলা ও ডালি কেনার উদ্দেশ্যে তিনি এসেছেন। এজন্য কুলা ও ডালি কিনছেন তিনি।

  •  
  •  
  •  
  •  
ad0.3

Tags: