জীবাণু শনাক্তকারী ফেস মাস্ক উদ্ভাবন করলেন গবেষকরা

সাবরিন জাহান:

সম্প্রতি তৈরি হয়েছে এমন একটি মাস্ক যা ল্যাব পরীক্ষার মতো নির্ভুলভাবে কোভিড১৯ ভাইরাস শনাক্ত করতে পারে এবং একই সাথে শ্বাসকষ্ট উৎপন্নকারী রোগজীবাণু থেকে রক্ষা করে। কথাটি অবাক করার মতো হলেও তা বাস্তবে পরিণত করেছেন হার্ভার্ডের উইস ইনস্টিটিউট এবং এমআইটি-র গবেষকদের নেতৃত্বে একটি দল।

মাস্কটিতে ব্যবহৃত হয়েছে শুষ্ক এবং কোষবিহীন বায়োসেন্সর যা ফ্যাব্রিকের সাথে অন্তর্ভুক্ত করে তৈরি করা হয়েছে একটি মুখের মাস্ক এবং একটি জ্যাকেট। এটি করোনা সহ অ্যান্টিবায়োটিক-প্রতিরোধী ব্যাকটিরিয়া সনাক্ত করতে সক্ষম।

করোনা মহামারী আঘাত হানার পর মাস্কের ধারণাটি তাদের মাথায় আসে। টিমের যারা কভিড-১৯ রোগীদের চিকিৎসা করছিলেন তারা উল্লেখ করেছিলেন, ডায়াগনস্টিক পরীক্ষাগুলি ধীর গতির হওয়ায় সন্দেহজনক রোগীদের শনাক্ত করা কঠিন ছিল। তাই নুগুইন এর টিমটি পরীক্ষাটিকে মাস্কের মাধ্যমে সম্পন্ন করার কথা ভেবেছিল।

এর পূর্বে বিভিন্ন কাজের ক্ষেত্রে কোষীয় সেন্সর ব্যবহৃত হলেও জীবিত কোষবিহীন বায়োসেন্সর ব্যবহারের এটিই প্রথম প্রদর্শন। জীবিত কোষের পুষ্টি, আর্দ্রতা এবং তাপমাত্রার প্রয়োজন হয়। পরিবেশে ছড়িয়ে যাবার পাশাপাশি জিনগত পরিবর্তনের ফলে তাদের মূল কার্যক্রম বিঘ্নিত হয়। তাই এর পরিবর্তে গবেষকরা সেল-ফ্রি সিস্টেম ব্যবহার করেন।

ওয়াইস ইনস্টিটিউট এর সিন্থেটিক জীববিজ্ঞানী এবং সহকারী পিটার নুগুয়েন বলেছেন যে ,শুষ্ক উপাদানগুলি ব্যবহার করার একটি সুবিধা হ’ল তারা কেবল পুনরায় পানির সংস্পর্শে আসলে সক্রিয় হয়, তারা যদি কোনো দূষিত বায়ুকনার সংস্পর্শে আসে তবে ব্যবহারকারীকে দ্রুত প্রতিক্রিয়া জানাতে পারে। সেন্সরটি যেকোনো মাস্কে ব্যবহার করা যাবে বলে তারা জানান।

মাস্কটি সক্রিয় করতে ব্যবহারকারীকে মাস্কের একটি বোতামে চাপ দিতে হয়। এর ফলে মাস্কে অল্প পানি নির্গত হয় যা শুষ্ক সংবেদক সিস্টেমে আদ্রতা প্রদান করে। মাস্কের সেন্সরে কোনো ভাইরাস ধরা পড়লে কিছু ধারাবাহিক প্রক্রিয়া সম্পন্ন হয়। ভাইরাসের আরএনএ প্রকাশিত হবার পর তা ডাবল স্ট্র্যান্ড ডিএনএতে রূপান্তর হয়।

অবশেষে, ভাইরাল ডিএনএর অনুলিপিগুলি ফ্লুরোসেন্ট এর সহায়তায় মাস্কের একটি স্ট্রিপের সাথে প্রতিক্রিয়া করে স্ট্রিপের রেখার প্যাটার্ন পরিবর্তন করে। এটি অনেকটা গর্ভাবস্থা পরীক্ষার মতো। পুরো প্রতিক্রিয়াটি দুই ঘন্টারও কম সময় নেয়।

কিছু পরীক্ষা বাকি থাকায় মাস্কটি এখনও চূড়ান্ত হয়নি।
ভাইরাস সংবেদনশীল মাস্কটি প্রকৃত কোভিড১৯ রোগীদের উপর পরীক্ষা করা দরকার ,হাসপাতালে সুরক্ষার তাগিদে তখন তা সম্ভব ছিলনা, নুগেইন বলেছিলেন। সেই সাথে ইউএস ফুড অ্যান্ড ড্রাগ অ্যাডমিনিস্ট্রেশন (এফডিএ) এরও অনুমোদনের প্রয়োজন হবে বলে জানিয়েছেন তিনি।

আরেকটি সীমাবদ্ধতা হ’ল বর্তমানে সেন্সরগুলি কেবল একবার ব্যবহার করা যেতে পারে। এটি কেবল হ্যাঁ বা না পর্যবেক্ষণ করে, অর্থাৎ সংক্রমনের অবস্থাটি বিবেচনা করতে পারে।

যদিও কাজটি চূড়ান্ত হয়নি তবুও বিশ্বজুড়ে মহামারী চলাকালীন তাদের সর্বোত্তম চেষ্টায় তা সম্পন্ন করার লক্ষ্য রয়েছে। আশা করা যায় শীঘ্রই এটিকে বাজারজাত করা সম্ভবপর হয়ে উঠবে।

  •  
  •  
  •  
  •  
ad0.3