দেশেই করোনার টিকা উৎপাদনে মত বিশেষজ্ঞদের

নিউজ ডেস্কঃ

দেশেই করোনা টিকা উৎপাদনের ক্ষেত্রে সংশ্লিষ্ট ওষুধ কোম্পানির সক্ষমতা রয়েছে কি না সে বিষয়ে মতামত দিয়েছেন স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় গঠিত ‘কোর কমিটি’। দুটি দুটি ওষুধ কোম্পানি ইনসেপ্‌টা ফার্মাসিউটিক্যালস ও পপুলার ফার্মাসিউটিক্যালস এ ক্ষেত্রে এগিয়ে রয়েছে বলে তারা মত দেন।

বিশেষজ্ঞদের মতে রাশিয়ার টিকা ‘স্পুতনিক-ভি’ বাংলাদেশেই উৎপাদনের ক্ষেত্রে এ দুটি ওষুধ কোম্পানির সক্ষমতা রয়েছে। তবে হেলথকেয়ারের বিষয়ে কোর কমিটি বলেছে, একসঙ্গে প্রচুর পরিমাণে টিকা উৎপাদনের সক্ষমতা এই মুহূর্তে তাদের নেই।

করোনাভাইরাস প্রতিরোধী টিকা সংগ্রহ ও বিতরণবিষয়ক আন্তমন্ত্রণালয়-সংক্রান্ত পরামর্শক কমিটির কাছে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় গঠিত কোর কমিটি গত বৃহস্পতিবার ওই দুই ওষুধ কোম্পানির সক্ষমতার বিষয়ে মতামত পাঠিয়েছে। এটি নিশ্চিত করেছেন স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় ও ঔষধ প্রশাসন অধিদপ্তরের দুজন দায়িত্বশীল কর্মকর্তা।

এর আগে গত বুধবার স্বাস্থ্যসেবাসচিবের নেতৃত্বে পরামর্শক কমিটির সভা অনুষ্ঠিত হয়। সভায় মোট তিনটি কোম্পানির উৎপাদন সক্ষমতার ভিত্তিতে স্কোরিংয়ের মাধ্যমে মূল্যায়ন করে ঔষধ প্রশাসন অধিদপ্তর ও কোর কমিটিকে চূড়ান্ত সুপারিশ পাঠাতে বলা হয়। টিকা উৎপাদনের জন্য হেলথকেয়ার ফার্মাসিউটিক্যালসকে তখন বিবেচনায় নেওয়া হয়েছিল।

জানা যায়, টিকা উৎপাদনের সক্ষমতা নির্ধারণের জন্য মোট পাঁচটি বিষয় বিবেচনায় নেওয়া হয়েছে। কোম্পানির দক্ষতা, মান, জনবল ও সামর্থ্য, অভিজ্ঞতা এবং কত দ্রুত উৎপাদনে যেতে পারবে—এসব বিষয় বিবেচনায় নেওয়া হয়।

স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তারা জানান, যদি রাশিয়া টেকনোলজি ট্রান্সফার (প্রযুক্তি হস্তান্তর) করে, তবে এক থেকে দেড় মাসের মধ্যেই ওই দুই কোম্পানি উৎপাদনে যেতে পারবে।

  •  
  •  
  •  
  •  
ad0.3

Tags: