যে কারণে পরীমনির জামিন চাওয়া হয়নি

বিনোদন ডেস্কঃ চিত্রনায়িকা পরীমনিকে এক দিন রিমান্ডে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ শেষে শনিবার আদালতে হাজির করা হয়েছিল। শনিবার বেলা ১১টা ৪৭ মিনিটে তাঁকে একটি সাদা মাইক্রোবাসে করে ঢাকা মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেটের আদালতের হাজতে আনা হয়।

মামলার তদন্ত কর্মকর্তা সিআইডি পুলিশের পরিদর্শক কাজী গোলাম মোস্তফা ফের রিমান্ড না চেয়ে পরীমনিকে কারাগারে আটক রাখার আবেদন করেছেন। অন্যদিকে আজ পরীমনির জামিন চেয়ে আবেদন করেননি তাঁর আইনজীবী। এতে ক্ষুব্ধ হয়েছেন পরীমনি।

পরীমনি আইনজীবী মজিবুর রহমানের উদ্দেশে বলেন, ‘আপনারা আমার জামিন চান না কেন? আমি তো পাগল হয়ে যাচ্ছি। আপনারা জামিন চান, আপনারা আমার সঙ্গে কী কথা বলবেন? আমি তো পাগল হয়ে যাব! আপনারা বুঝতেছেন আমার কী কষ্ট হচ্ছে?’

এরপর কঠোর নিরাপত্তার মধ্যে পরীমনিকে পুলিশ আাদলত থেকে বের করে কারাগারে নিয়ে যায়।

উল্লেখ্য গত ৪ আগস্ট রাজধানীর বনানীর বাসা থেকে চিত্রনায়িকা পরীমনিকে বিপুল পরিমাণ মাদকসহ গ্রেপ্তার করে র‍্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‍্যাব)। পরদিন তার বিরুদ্ধে বনানী থানায় মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনে মামলা করা হয়।

এরপর গত ৫ আগস্ট তাকে চার দিনের রিমান্ডে নেয় পুলিশ। সেই রিমান্ড শেষে গত ১০ আগস্ট বনানী থানার মামলায় পরীমণির দুই দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন ঢাকার মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট দেবব্রত বিশ্বাস।

সবশেষ গত বৃহস্পতিবার ঢাকা মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট আতিকুল ইসলাম পরীমণিকে এক দিনের রিমান্ড দেন। সে দিনই পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগ (সিআইডি) রিমান্ড কার্যকর করতে পরীমণিকে নিয়ে যায়।

কী কারণে জামিন চাওয়া হয়নি আজ? এ বিষয়টি নিয়ে কথা হয় তাঁর আইনজীবী নীলাঞ্জনা রিফাতের সঙ্গে। পরীমনির আইনজীবী নীলাঞ্জনা রিফাত বললেন, ‘আমরা এই কোর্টে আর জামিন আবেদন করতে চাচ্ছি না। এখানে একাধিকবার জামিন চেয়েও পাইনি বলে এমন সিদ্ধান্ত নিয়েছি। তাই আমাদের সিদ্ধান্ত, পরীমনির জামিনের আবেদন এবার আমরা উচ্চ আদালতে করব। আমাদের আশাবাদ, উচ্চ আদালত পরীমনির জামিনের বিষয়টি আমলে নেবেন।’

পরীমনির আইনজীবী নীলাঞ্জনা রিফাত জানালেন, ‘মোট চারবার জামিনের আবেদন করা হয়। প্রতিবারই নামঞ্জুর করেন বিজ্ঞ আদালত। উচ্চ আদালতে পরীমনির জামিন আবেদনের বিষয়ে রোববার বিস্তারিত জানাতে পারব।’

  •  
  •  
  •  
  •  
ad0.3

Tags: