বিয়ের প্রতিশ্রুতি দিয়ে ধর্ষণ, হেফাজত নেতার বিরুদ্ধে মামলা

mamla

নিউজ ডেস্কঃ হেফাজতে ইসলামের সদ্য বিলুপ্ত কমিটির প্রচার সম্পাদক জাকারিয়া নোমান ফয়েজীর বিরুদ্ধে ধর্ষণের অভিযোগে মামলা করেছেন চট্টগ্রামের এক নারী।

বৃহস্পতিবার দিনগত রাত ২টার দিকে চট্টগ্রামের হাটহাজারী মডেল থানায় মামলাটি করা হয়। চট্টগ্রাম জেলা পুলিশ সুপার এসএম রশিদুল হক মামলার সত্যতা গণমাধ্যমকে নিশ্চিত করেছেন।

মামলায় অভিযোগ করা হয়, ২০১৯ সালের সেপ্টেম্বরে ফেসবুকের মাধ্যমে ওই নারীর সাথে নোমান ফয়েজীর পরিচয় হয়। মেসেঞ্জার ও হোয়াটসঅ্যাপ চ্যাটিংয়ের মাধ্যমে তাকে ফুসলাতে থাকেন। পরে বিয়ের প্রলোভন দিয়ে ওই নারীকে হাটহাজারীতে আসতে বলেন।

সে অনুযায়ী ওই নারী হাটহাজারী এলে ওই বছরের নভেম্বরে কনক বিল্ডিংয়ের নিচ তলায় বাসা ভাড়া করে দেন নোমান। এক বছর ধরে ভাড়া বাসায় অবস্থানকালে বিভিন্ন সময়ে তিনি ওই নারীকে ধর্ষণ করেন।

পরে ওই নারী হাটহাজারী থেকে চট্টগ্রাম শহরে তার খালার বাসায় চলে আসেন। এরপরও বিয়ের প্রলোভন দিয়ে সুকৌশলে বিভিন্ন বাসা ও হোটেলে নিয়ে গিয়ে তাকে ধর্ষণ করেন নোমান ফয়েজী।

অবশেষে নোমান ফয়েজীর প্রতারণা বুঝতে পেরে ওই নারী নিজে হাটহাজারী মডেল থানায় তার বিরুদ্ধে ধর্ষণ মামলা দায়ের করেন।

হেফাজত নেতা জাকারিয়া নোমান ফয়েজীকে ইতিমধ্যে তিনটি মামলায় গ্রেফতার দেখানো হয়েছে। তাকে জিজ্ঞাসাবাদ করতে বৃহস্পতিবার ১০ দিনের রিমান্ড আবেদন করা হয়েছিল। তবে আদালত পাঁচ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন।

চট্টগ্রাম জেলার পুলিশ সুপার এসএম রশিদুল হক বৃহস্পতিবার বিকালে এক সংবাদ সম্মেলনে কাওমী মাদ্রাসা ভিত্তিক সংগঠন হেফাজত ইসলামের নেতা জাকারিয়া নোমান ফয়েজীর একাধিক ‘বিয়েবহির্ভূত সম্পর্কের’ প্রমাণ পাওয়ার কথা বলেছিলেন।

তিনি বলেন, “তিনি (নোমান ফয়েজী) আমাদের কাছেও স্বীকার করেছেন। … আমি ব্যক্তিগতভাবে তাকে জিজ্ঞাসাবাদ করেছি। আমি তাকে বলেছি আপনি যে বেশভূষা নিয়ে চলেন এবং আপনার যে লক্ষ্য উদ্দেশ্য, সেগুলোর সাথে এসব যায় কিনা… এজন্য তিনি দুঃখ প্রকাশ করেছেন।”

  •  
  •  
  •  
  •  
ad0.3

Tags: ,