পুলিশি হেফাজতে অভিযুক্তের মৃত্যু

নিউজ ডেস্ক:

আজ শুক্রবার বিকেলে লালমনিরহাটের হাতীবান্ধায় পুলিশি হেফাজতে হিমাংশু বর্মন নামে এক ব্যক্তির মৃত্যু হয়েছে। পুলিশের নির্যাতনের কারণে তার মৃত্যু হয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে।

নিহত হিমাংশু বর্মন উপজেলার ভেলাগুড়ী ইউনিয়নের পূর্ব কাদমা মালদাপাড়া এলাকায় বিশেস্বর চন্দ্র বর্মনের ছেলে।

এর আগে শুক্রবার দুপুরে উপজেলার ভেলাগুড়ি ইউনিয়নের পূর্ব কাদমা এলাকার মালদাপাড়া গ্রামের নিজ বাড়ি থেকে স্ত্রী ছবিতা রানীকে হত্যার অভিযোগে তাকে আটক করে থানায় নিয়ে আসে পুলিশ।

সূত্র মতে, শুক্রবার সকালে হিমাংশু বর্মনের বাড়ি থেকে তার স্ত্রী ছবিতা রানীর মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ। এ ঘটনায় স্ত্রীকে হত্যার অভিযোগে হিমাংশু বর্মনকে আটক করে থানায় নিয়ে আসে পুলিশ। পরে বিকেলে থানা হাজতে মৃত্যু হয় হিমাংশু বর্মনের। তবে পুলিশ নির্যাতনের কারণে তার মৃত্যু হয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে। বর্তমানে তার মরদেহটি হাতীবান্ধা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে রয়েছে।

এ বিষয়ে হাতীবান্ধা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের আবাসিক মেডিকেল অফিসার হিরনময় বর্মণ বলেন, “শুক্রবার বিকেল ৪টা ৫ মিনিটে পুলিশ তাকে হাসপাতালে নিয়ে আসে মৃত অবস্থায়। তার গলায় একটি দাগ রয়েছে।”

এ ব্যাপারে হাতীবান্ধা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা এরশাদুল আলম বলেন, “ছবিতার মৃত্যু বিষয়ে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য তার স্বামী হিমাংশুকে থানায় নিয়ে আসা হয়। জিজ্ঞাসাবাদে প্রাথমিকভাবে হিমাংশুর কাছে কিছু তথ্য পাওয়া যায়। এই অস্থায় থানার নারী-শিশু হেল্প ডেস্কের কাছে তাকে রেখে অফিসাররা খেতে যায়। এই সুযোগে সেখানে থাকা ওয়াইফাইয়ের তার গলায় পেঁচিয়ে জানালার গ্রিলে ঝুলে সেখানে আত্মহত্যা করে হিমাংশু’।”

  •  
  •  
  •  
  •  
ad0.3