খাদ্য নিরাপত্তার জন্য বিদেশের উপর নির্ভরশীল হতে চাই নাঃ কৃষিমন্ত্রী

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ

আমরা খাদ্য নিরাপত্তার জন্য বিদেশের উপর কোনক্রমেই নির্ভরশীল হতে চাই না-  ২৮ জুন, মঙ্গলবার বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃক জাতীয় বাজেট ২০২২-২৩ এর উপর এক ওয়েবিনারে এ কথা বলেন কৃষিমন্ত্রী ডঃ মোঃ আব্দুর রাজ্জাক। ওয়েবিনারের মূল প্রতিপাদ্য বিষয় ছিলো “বাংলাদেশের জাতীয় বাজেট ২০২২-২৩: কতটুকু কৃষি এবং খাদ্য ব্যবস্থা সহায়ক?‘‘

ওয়েবিনারে সভাপতিত্ব এবং মূল প্রবন্ধ পাঠ করেন কৃষি অর্থনীতি বিভাগের বিভাগীয় প্রধান প্রফেসর ডঃ হাসনীন জাহান। মূল প্রবন্ধে জাতীয় বাজেটের বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ বিষয় বিশেষ করে কৃষির বিভিন্ন খাতে বরাদ্দকৃত বাজেট নিয়ে পুর্নাঙ্গ বিশ্লেষণ করা হয়। বাজেটে কৃষি খাতের বরাদ্দ সঠিকভাবে ব্যবহারের ক্ষেত্রে জোর দেয়া হয় এবং কোভিড-১৯ সংকট, প্রাকৃতিক দুর্যোগ এবং চলমান বৈশ্বিক সংকট মোকাবেলায় কৃষিখাতের বাজেট কি ভূমিকা রাখতে পারে তার উপর গুরুত্ব আরোপ করা হয়।

কৃষিমন্ত্রী ডঃ মোঃ আব্দুর রাজ্জাক ওয়েবিনারে প্রধান অতিথির বক্তব্যে কৃষি খাতের বাজেট বরাদ্দের যৌক্তিকতা তুলে ধরেন এবং কৃষি নিয়ে সরকারের বিভিন্ন কর্ম -পরিকল্পনা বিস্তারিত বর্ণনা করেন। তিনি উপকূলীয় কৃষি ও হাওড় কৃষির বিভিন্ন সমস্যা, উদ্যোক্তা তৈরি, কৃষি বাজার ব্যবস্থা, গুদামজাতকরণ, ভ্যালু এডিশন, কৃষি প্রণোদনা, যান্ত্রীকিকরণ ইত্যাদি নিয়ে মূল্যবান তথ্য প্রদান করেন।

হাওর অঞ্চলের জন্য স্বল্পকালীন জাত উদ্ভাবন, লবণাক্ত অঞ্চলের জন্য টেকসই ভ্যারাইটি উদ্ভাবনের উপরও গুরুত্ব দেন মন্ত্রী।  এছাড়া তিনি তথ্য ও প্রযুক্তি ব্যবহার করে কৃষি বিপণন ব্যবস্থা কে উন্নীত করতে কৃষি অর্থনীতিবিদদের এগিয়ে আসার আহবান জানান।

কৃষিমন্ত্রী বলেন, আমরা খাদ্য নিরাপত্তার জন্য বিদেশের উপর কোনক্রমেই নির্ভরশীল হতে চাই না। কৃষি বর্তমান সরকারের অগ্রাধিকারের ১ নম্বর সেক্টর এবং এটি অব্যাহত থাকবে। বর্তমান সরকার আধুনিক কৃষির জন্য কাজ করে যাচ্ছে বলেও তিনি উল্লেখ করেন।

বিশ্ববিদ্যালয় এবং গবেষণা প্রতিষ্ঠান থেকে মাঠ পর্যায়ে ব্যবহার উপযুক্ত প্রযুক্তির উপর গুরুত্ব আরোপ করেন মন্ত্রী এবং এই প্রযুক্তি যাতে অর্থনৈতিক ভাবে টেকসই হয় সেই লক্ষ্যে গবেষকদের কাজ করার আহবান জানান।

এছাড়াও ওয়েবিনার খন্ডিত জমিতে কৃষি যান্ত্রিকীকরণের সীমাবদ্ধতা কাটিয়ে উঠতে যথাযথ পদক্ষেপ, মধ্যসত্ত্ব ভোগীদের প্রাতিষ্ঠানিক রুপ প্রদান এবং নিয়ন্ত্রণ, তরুণ উদ্যোক্তা তৈরির উপর গুরুত্ব দেয়া হয়।

এছাড়াও পোল্ট্রি খাদ্যের মূল উপাদান ভুট্টা ও সয়াবিন বিদেশ থেকে আমদানি নির্ভর না হয়ে দেশেই উৎপাদন বৃদ্ধির উপর জোর দেন বক্তারা।

ওয়েবিনারে অন্যান্য আলোচকবৃন্দ বাজেটের বরাদ্দ যযথাযথভাবে কাজে লাগাতে কৃষি সম্পর্কিত প্রতিষ্ঠানগুলোর সক্ষমতা বাড়ানো, জৈব পদ্ধতিতে চাষাবাদ ও মাটির গুনাগুণ রক্ষায় নজর দেওয়া, কৃষি যন্ত্রের ব্যবহার বৃদ্ধি, নিরাপদ খাদ্য নিশ্চিত করতে উদ্যোগ নেওয়া, ধান-চাল সংগ্রহের সক্ষমতা বৃদ্ধি, কৃষির বিভিন্ন চ্যালেঞ্জ মোকাবেলায় গবেষণায় গুরুত্ব বৃদ্ধি, হাওরের বন্যা মোকাবেলায় শষ্য বীমা চালু, কৃষি পণ্যের আপেক্ষিক আয়-ব্যয় পর্যালোচনা করে আমদানি-রফতানি কৌশল নির্ধারণ, রফতানি নির্ভর খাতগুলোতে নিজেদের সক্ষমতা বৃদ্ধি করা, ইত্যাদি বিষয়ে নানান মতামত দেন।

ওয়েবিনারটি মডারেট করেন বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের ইমেরিটাস প্রফেসর ডঃ এম এ সাত্তার মন্ডল।

তিনি কৃষি অর্থনীতিবিদ হিসেবে চালের জাত উদ্ভাবনে ভোক্তার চাহিদা বিবেচনায় নেওয়া, কৃষি যন্ত্রের ব্যবহার বৃদ্ধি, কৃষি পণ্যের বাজার ব্যবস্থাকে সমৃদ্ধ করা, ইত্যাদি বিষয়ে নিজের মতামতও ওয়েবিনারে তুলে ধরেন।

দেশ-বিদেশের উল্লেখযোগ্য সংখ্যক বিজ্ঞানী, শিক্ষক ও ছাত্র-ছাত্রীবৃন্দ ওয়েবিনারে যুক্ত থেকে মতামত প্রদান করেন।

  •  
  •  
  •  
  •  
ad0.3